মঙ্গলবার, ১৩ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দুদকের ভয়ে দেশ ছেড়েছেন সিনহা: বিচারপতি মানিক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৩, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআইয়ের চাপের মুখে দেশ ছাড়ার এবং পদত্যাগ করার যে দাবি করেছেন, সেটি ঠিক নয় বলে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক।

তিনি বলেছেন, সিনহার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত শুরু করার কারণেই তিনি বিদেশে পাড়ি দিয়েছেন। তিনি মনে করেন, নির্বাচনের আগমুহূর্তে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে বইটি তড়িঘড়ি করে প্রকাশ করা হয়েছে। এটি আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে প্রচারণার দলিল।

বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিচারপতি মানিক আরো বলেন, আপিল বিভাগের পাঁচজন বিচারক সিনহার সঙ্গে কাজ করতে অস্বীকৃতি জানালে প্রধান বিচারপতির পদত্যাগ করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না।

নির্বাচনের আগমুহূর্তে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে সিনহা বইটি প্রকাশ করেছেন বলে দাবি বিচারপতি মানিকের। বলেন, ‘আমি বইটি পড়েছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস এটি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে প্রচারণার একটি দলিল। নির্বাচনে যাতে আওয়ামী লীগকে হেস্তনেস্ত করা যায় সেই উদ্দেশ্যেই এই বইটি তিনি লিখেছেন।’

তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি অত্যন্ত ক্ষমতাধর একজন ব্যক্তি। তাঁকে বের করে দেওয়া তো চাট্টিখানি কথা না। প্রধান বিচারপতি অনেক কিছু করতে পারেন। বিচারপতি মানিকের ভাষ্য, উনাকে (সিনহা) আপনি দেশ ছেড়ে চলে যান আর উনি চলে যাবেন- আমিও নিজেও বিচারপতি ছিলাম এটা আমি বিশ্বাস করতে নারাজ। প্রধান বিচারপতি তো দূরের কথা একজন হাইকোর্টের বিচারপতিকেও এভাবে দেশ থেকে বিতাড়ন সম্ভব নয়।

দেশে ত্যাগে বাধ্য করা নিয়ে সিনহা তার বেইতে যে বর্ণনা দিয়েছেন সেটিকেও অসত্য বলে দাবি করেন বিচারপতি মানিক। তার মতে, সিনহার বিরুদ্ধে দভিযোগগুলো আসার পর আপিল বিভাগের পাঁচ জন বিচারপতি অভিযোগগুলোর নথিপত্র দেখে দৃঢ়ভাবে সিদ্ধান্ত নিলেন যে, তারা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আর বসবেন না। সে অবস্থায় তার পদত্যাগ করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না।

কারণ তিনি তখন কাজ করতে পারতেন না। এছাড়া অভিযোগগুলো যখন আসলো তখন দুদক সচল হলো। আমি মনে করি দুদককে এড়ানোর জন্য উনি দেশ ছেড়েছিলেন।

সিনহার দাবি ৫ বিচারপতিকে চাপ সৃষ্টি করে তাঁর সঙ্গে কাজ না করতে রাজি করানো হয়েছে। এটিও মানতে নারাজ মানিক। তার মতে, ওই ৫ বিচারপতির সঙ্গে তিনি (মানিক) দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। এরা অত্যন্ত দৃঢ়চিত্তের এবং দৃঢ়চরিত্রের, ইস্পাত কঠিন চরিত্রের মানুষ কিন্তু এই পাঁচজনই।

‘তারা কারো প্রভাবে প্রভাবিত হওয়ার লোক নয়। তারা কারও চাপের মুখে নতি স্বীকার করার মানুষও তারা নয়। তারা কোনো অবস্থায় কারও চাপের কাছে নতি স্বীকার করবেনা। সুতরাং সিনহার এই অভিযোগ একেবারেই অসত্য বলে মনে করছি’-যোগ করেন মানিক।

অন্য বিচারপতিদের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে জানিয়ে বিচারপতি মানিক বলেন, পাঁচজনের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা পরিষ্কার বলেছেন যে, তাঁরা যেসব প্রমাণাদি দেখেছেন এরপর বিচারপতি সিনহার সঙ্গে বসার প্রশ্নই উঠতে পারে না।

বিচারপতি সিনহা তাঁকে গৃহবন্দী করে রাখার বিষয়ে বইতে যা লিখেছেন সে দাবিও প্রত্যাখ্যান করেন মানিক। বলেন, উনি লিখেছেন বা বলেছেন তাকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছিলো। কিন্তু ওই সময় বহু সাংবাদিক তার বাড়ির চারপাশে ছিলো। তারা কিন্তু কখনোই এমনটি বলেনি।

মানিকের ভাষ্য, ওই সময় তিনজন মন্ত্রী তাকে দেখতে গিয়েছিলেন। উনি দাঁতের ডাক্তারের কাছে গেছেন। বিভিন্ন দূতাবাসে গেছেন ভিসার জন্য। স্বজনদের সঙ্গে দেখা করছেন। বহু প্রচুর আইনজীবী বিশেষ করে বিএনপি-জামায়াতের আইনজীবীরাও দেখা করতে গেছেন। তারাও এমনটি বলেননি যে প্রধান বিচারপতিকে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। উনিও বলেননি। এখন নতুন শোনা যাচ্ছে।’

আর পড়তে পারেন