শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দাউদকান্দির স্বাস্থ্য কর্মকর্তার ঘুষের ভিডিও ভাইরাল: তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৬, ২০২১
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারী:
দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ শাহীনুর আলম সুমনের পল্লী চিকিৎসকদের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণের ভিডি ভাইরাল হওয়ার পর তাকে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে পাঠানো হয়েছে ডিজি অফিসে। ওএসডি হওয়া শাহীনুর আলমের স্থলে নতুন দায়িত্ব পেয়েছেন ২৫তম বিসিএসের (স্বাস্থ্য) কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আভ্যন্তরিন ও ঘুষের ভিডিও ভাইরাল হওয়া কর্মকর্তার অনিয়ম তদন্তে কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন অফিস তিতাস উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ সরফরাজ আহম্মেদকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে । কমিটির সদস্যরা হলেন সিভিল সার্জান অফিসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন ও মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইশরাত জাহান।

কমিটিকে ৩ কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হলেও লকডাউন ও ঈদুল ফিতরের ছুটি থাকায় তদন্ত কাজ শুরু করতে পারেননি বলে জানান ডাঃ সরফরাজ আহম্মেদ। তিনি বলেন, দুই একদিনের মধ্যে কাজ শুরু করা হবে।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ৭ মিনিট ৩৮সেকেন্ডের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে, যেখানে ডাঃ সুমন পল্লী চিকিৎসকদের কাছ থেকে মাসোহারার টাকা নিতে দেখা যায়। ডা. শাহীনুর আলম সুমন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করার পর থেকেই তার নামে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠে। তিনি রোগীদের সঙ্গে দূর্ব্যবহার, অপ্রয়োজনীয় টেস্ট দিয়ে কমিশন গ্রহণ, চিকিৎসাপত্রে নির্দিষ্ট ওষুধ লিখতে বাধ্য করা, পল্লী চিকিৎসকদের চেম্বার পরিদর্শনের নামে হয়রানী, হাসপাতালে বহিঃ বিভাগ ও আন্তঃ বিভাগের অধিকাংশ পরীক্ষা তার নির্দেশিত ডায়গনষ্টিক সেন্টারে করা। যেসব ডায়গনষ্টিক সেন্টার মাসোহারা দেয় শুধু তাদের প্রতিনিধিরাই হাসপাতালে প্রবেশ করতে পারে। একই অবস্থা ঔষধ কোম্পানীর বিক্রয় প্রতিনিধিদের বেলায়ও।

ডাঃ সুমনের এসব অনিয়মের বিষয় নিয়ে ফেইসবুকে আলোচনা চলছে। তবে ওই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা নিজেকে নির্দোষ দাবি করে সাংবাদিকদের বলেছেন, পল্লী চিকিৎসকদের ট্রেনিং শেষে সার্টিফিকেট বিতরণ অনুষ্ঠানের জন্য নেয়া  হয় টাকা। সেটাকে ভিন্নভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে।

জেলা সিভিল সার্জন কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ মোবারক হোসেন বলেন, দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আভ্যন্তরিন অনিয়ম তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওএসডি হওয়া কর্মকর্তার ভাইরাল হওয়া ঘুষের ভিডিও সম্পর্কেও সত্যতা যাচাই করবে এ কমিটি।

আর পড়তে পারেন