শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দাউদকান্দির স্বাস্থ্যসেবার বেহাল দশা, চিকিৎসক সংকট: স্বাস্থ্যসেবা পাচ্ছে না তৃণমূলের জনগণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৪, ২০২১
news-image

 

জাকির হোসেন হাজারী :
কুমিল্লার দাউদকান্দিতে তৃণমূল পর্যায়ে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যসেবা। উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রসহ ইউনিয়ন পর্যায়ের স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোর অবস্থা বেহাল। সরকারের পক্ষ থেকে চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়া হলেও সেখানে থাকতে চান না অনেকেই। ইউনিয়ন পর্যায়ের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে তো দেখাই মেলে না চিকিৎসকদের। ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র গুলো পদায়ন থাকলেও চিকিৎসক নেই কোন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের বহিঃবিভাগে নেই কোন চিকিৎসক। স্যাকমো দিয়ে চলছে চিকিৎসা সেবা। সব মিলিয়ে চিকিৎসা সেবার হযবরল অবস্থা এখানে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও ১০টি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র রয়েছে। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো সিভিল সার্জন কার্যালয় এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র গুলো পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় থেকে তদারকি করা হয়। মূলত উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো থেকে রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র থেকে পরিবার পরিকল্পনা এবং প্রাথমিক চিকিৎসাসেবা দেওয়া হয়।

প্রতিটি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে একজন মেডিকেল অফিসার থাকলেও একবছর যাবৎ এদের কাউকে কর্মস্থলে দেখেনি বলে এলাকার লোকজন জানান। পদায়ন দাউদকান্দি হলেও প্রেষনে ঢাকা এবং কুমিল্লায় চলে গেছেন মেডিকেল অফিসাররা । এর মধ্যে স্বপাড়া উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ডাঃ বিথী আজিজ ও ইলিয়টগঞ্জ উত্তর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের সহকারী সার্জন ডাঃ ফাহমিদা ইস্কান্দার তুরিন একবছর যাবৎ কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। এছাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অসিার, জুনিঃ কনসালটেন্ট (সার্জারী), জুনিঃ কনসালটেন্ট (এনেসথেসিয়া), জুনিঃ কনসালটেন্ট(শিশু), দোনারচর ২০ বেড হাসপাতলের জুনিঃ কনসালটেন্ট (মেডিসিন), জুনিঃ কনসালটেন্ট (সার্জারী) শুন্য থাকায় কাক্সিক্ষত সেবা পাচ্ছেন না এলাকার সাধারণ রোগীরা। এ ছাড়া প্রয়োজনের তুলনায় ওষুধ সংকটও রয়েছে।

সরেজমিনে গেলে উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ দক্ষিন ইউনিয়নের মোবারকপুর গ্রামের বাসিন্দা কবির হোসেন জানান, আমাদের ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে বেশির ভাগ সময়ই চিকিৎসক থাকেন না। আর প্রায় সময়ই বন্ধ থাকে, তাই বাধ্য হয়েই গ্রাম্য চিকিৎসকদের কাছে যেতে হয়। এ স্বাস্থ্য কেন্দ্রটিতে পদায়নকৃত মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইমাম মেহেদি হাসান খান একবছর যাবৎ প্রেষনে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে সংযুক্ত আছেন। তিনি বলেন, আমাদের ইচ্ছা গ্রামের মানুষদের সঠিক চিকিৎসা সেবা দেয়া, কিন্তু সরকারী চাকরী করি তাই সরকার যখন যেখানে পাঠাবে সেখানেই যেতে হবে। এর বেশি কিছু বলবো না।

সুন্দলপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ ও পরিবার কল্যান কেন্দ্রের সহকারী সার্জন কুমিল্লা সদর উপজেলা বাসিন্দা ডাঃ অভিষেক দেবনাথ তিন মাস আগে এখানে যোগদান করার পরপরই প্রেষনে সংযুক্তি নিয়ে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে চলে যান।

দোনারচর ২০ বেড হাসপাতালে দেখা যায়, একবছর আগে ডাঃ ফাবলিনা নওশিন নামে একজন মেডিকেল অফিসার এখানে পদায়ন হলেও এলাকার কোন লোজন তাকে দেখেননি বলে জানান। কথা হয় আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ সিনথিয়া তাসনিম এর সাথে। তিনি বলেন, অল্প কয়েকদিন আমি এখানে যোগদান করেছি। এর মধ্যে এখানে সমস্যার শেষ নেই। মানুষের অতি প্রয়োজনীয় পানি বিদ্যুৎ না থাকায় এখানে কেউ থাকতে চায় না। আমি প্রতিদিন বাসা থেকে চার্জার ফ্যান নিয়ে আসি। শুনেছি মেডিকেল অফিসার ফাবলীনা নওশীন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স গৌরীপুরে ডিউটি করেন।

অনুসন্ধানে জানাযায়, সম্প্রতি ওএসডি হওয়া দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ শাহীনুর আলম সুমন থাকাকালিন সময়ে ১৫টি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের মেডিকেল অফিসার ও সহকারী সার্জনগন প্রেষনে জেলা সদর ও রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতলে চলে যান। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের চিকিৎসকদের অনুপস্থিতিতে গ্রাম চিকিৎসকদের সাথে শাহীনুর আলম সুমন মাসোহারা চুক্তি করেন বলে বিশ^স্থ সূত্রে জানাযায়। দাউদকান্দি সদর, গৌরীপুর বাজার, ইলিয়টগঞ্জ বাজার, শহিদনগর, সুন্দুলপুর এলাকার গ্রাম্য চিকিৎসকদের সংগঠন করান তিনি। সংগঠনের সভাপতি গৌরীপুরের মহসিন এবং সাধারণ সম্পাদক দাউদকান্দি সদরের সুমন সাহার মাধ্যমে মাসোহারা কালেকশন করা হতো। গ্রাম্য চিকিৎসকদের কাছ থেকে শাহীনুল আলম সুমনের মাসোহারা গ্রহনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর তাকে ওএসডি করেন। গ্রাম্য চিকিৎসক সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং কোন কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন।

ওএসডি হওয়া শাহীনুর আলমের স্থলে নতুন দায়িত্ব নেন ২৫তম বিসিএসের (স্বাস্থ্য) কর্মকর্তা মো. শহীদুল ইসলাম। তিনি বলেন, উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে মেডিকেল অফিসার না থাকার বিষয়টি নজরে এসেছে, এবিষয়ে অচিরেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলবো। আর গ্রাম চিকিৎসকদের সাথে পূর্বের স্বাস্থ্য কর্মকর্তার ভিডিও ভাইরালের বিষয়টি শুনেছি, এটি মোটেই কাম্য নয়। গ্রাম্য চিকিৎসকরা কোন ভাবেই গ্রাজুয়েট চিকিৎকদের সমতুল্য বা প্রতিযোগী হতে পারে না। তবে অনেক ক্ষেত্রে তাদের সহযোগিতাও প্রয়োজন হয়। কিন্ত কোন কোন ক্ষেত্রে গ্রাম্য চিকিৎসকদের দৌরাত্ম এমন জায়গায় পৌছে যে কোন একটা পর্যায়ে ওরা প্রফেশনাল হিসেবে ধরেনা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম খান বলেন, পূর্বে কি হয়েছে সেটা ডিপার্টমেন্ট দেখবে। উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র গুলোর মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসা সেবা পৌছে দেয়ার ব্যাপারে ইতিমধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ সদ্য যোগদানকৃত স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করেছি।

জেলা সিভিল সার্জন মোঃ মোবারক হোসেন বলেন, গত বছর করোনাকালীন সময়ে চিকিৎসকদের শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। তাছাড়া কিছু লোকবল সংকটও রয়েছে যা সমাধানের চেষ্টা চলছে।

আর পড়তে পারেন