সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

দাউদকান্দিতে বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা, এক সপ্তাহে ৩০০ ছাড়িয়েছে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৯, ২০২১
news-image

জাকির হোসেন হাজারী:
অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় সাম্প্রতিক সময়ে কুমিল্লার দাউদকান্দিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত বেড়ে চলেছে। গত সাত দিনের ব্যবধানে প্রায় ৩০০ ব্যক্তির করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। গতকাল বুধবার করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬৩ জন, যা এই উপজেলায় একদিনে সর্বোচ্চ। আক্রান্তের হার ৫০শতাংশ।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, গত সাতদিনে দাউদকান্দিতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৩০০ জন। বর্তমানে ২১ জন করোনা পজেটিভ এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে ২০জনসহ মোট ৪১জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। অন্যরা বাসাবাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫ জন।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, বাজার এবং রাস্তার পাশে প্রায় সব দোকানই খোলা। দোকানগুলোর একটি শাটার খোলা রেখে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। হোটেলে বসে খাওয়া নিষেধ হলেও ছোট ছোট হোটেল সেটি মানছে না। মাস্ক পরে ঘর থেকে প্রয়োজনে বের হওয়ার কথা থাকলেও বেশির ভাগ লোকই মুখে মাস্ক ছাড়া বের হন। সড়ক গুলোতে চলছে সিএনজি অটোরিকশা । তবে প্রশাসন যখনই মাঠে নামছে বা যেদিকে যাচ্ছে, সেই দিকগুলো পুরো বন্ধ ও মানুষের মুখে মাস্ক পরতে দেখা যাচ্ছে। এভাবেই প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিধিনিষেধ ভাঙছেন ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষ।

দাউদকান্দি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. শহীদুল ইসলাম শোভন বলেন, দাউদকান্দিতে কভিডের পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে। প্রতিদিনই আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। ১৭ বেডের আইসোলেশন চালু থাকলেও ৪০ জনের বেশি রোগী ভর্তি । মানুষ সচেতন না হলে আক্রান্তের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। এর মধ্যে যারা আক্রান্ত হয়েছে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। কোন সমস্য দেখা দিলে নিকটস্থ স্বাস্থ্য কর্মীর সাথে যোগাযোগ করবে। অবশ্যই ঘরের বাইরে গেলে সবাইকে মাস্ক পরতে হবে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার(দাউদকান্দি সার্কেল) মোঃ জুয়েল রানা বলেন, আমরা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চেকপোস্ট বসিয়েছি, পাশাপাশি টহলও দিচ্ছি। লোকজন নানা অজুহাতে ঘর থেকে বের হচ্ছেন। আমরা তাঁদের আটকিয়ে জিজ্ঞাসা করলে বেশির ভাগ লোকই কোন না কোন অজুহাত দেখান। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, করোনা প্রতিরোধে পুলিশকে কোন ক্ষমতা দেয়া হয়নি, দেয়া হয়েছে শুধু টহল দেয়ার দায়িত্ব। টহল দেয়া ছাড়া আমাদের কোন কাজ নেই। প্রতিদিন বিভিন্ন বাজার থেকে ফোন আসে, “স্যার এখানে দোকান খোলা”। কিন্তু আমরা কিছু করতে পারছি না। তাই আমাদের দেখে কেউ ভয়ও পায়না। কারন বাজার কমিটির লোকজন আমাদের সাথে যোগাযোগ করে না, আবার শুনেছি কমিটির লোকজনের যোগসাজসেই নাকি দোকান খোলা রাখে। এখন আমাদের কোন ক্ষমতা নেই যে দোকানদারকে জরিমানা করা বা দোকান সিলগালা করার। তারপরও সরকার করোনকালীন আমাদের যা করতে বলছে, তার চেয়ে ২০গুন দায়িত্ব পালন করছে আমাদের পুলিশ।

দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম খান বলেন, ‘বিনা প্রয়োজনে বাসা থেকে বের হওয়া ও দোকানপাট খোলার কারণে আমরা জরিমানা করেছি। মানুষের মধ্যে অসচেতনতা দেখা যাচ্ছে। আমরা সবাইকে বলব, সবাই সচেতন হোন। করোনা ঠেকাতে আমাদের সবার ভূমিকা লাগবে।

আর পড়তে পারেন