বুধবার, ১৩ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

তিতাসে জোরপূর্বক জায়গা দখলের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১
news-image

 

মোঃ জুয়েল রানা, তিতাসঃ

কুমিল্লার তিতাস উপজেলার মজিদপুর গ্রামের মোঃ হোসেন মিয়ার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক জায়গা দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার মজিদপুর গ্রামের মোঃ রফিক মিয়া পাঠানের বাড়িতে।

এমন অভিযোগ তুলে মোঃ রফিক মিয়া পাঠান বলেন, উপজেলার মজিদপুর মৌজার জে.এল নং ৮৩, বিএস খতিয়ান নং ৫১৮, ৯৪৬ ও ৬৬৫, সাবেক দাগ ৬৯৩ হালে ১১৬৫ দাগে ৪শতক বাড়ি, ৬৮৯ হালে ১১৬৪ দাগে ৪শতক বাড়ি, ৬৮৬ হালে ১১৫৮ দাগে ২শতক ডোবা ও ৬৮৮ হালে ১১৬০ দাগে ২ শতক ডোবা মৃত শিরিজ চন্দ্র সাহার ছেলে দীপক চন্দ্র সাহা, সুভাষ চন্দ্র সাহা, শ্যামল কুমার সাহা এবং মৃত হারবাল সাহার ছেলে শান্তি রঞ্জন ও কালু লাল থেকে মোট ১৬শতাক জায়গা ১৯৯৫ সালে সাব কবলা দলিল মূলে মালিক হইয়া প্রায় ২৬ বছর যাবৎ ভোগ দখল করে আসছি।

হঠাৎ করে একই গ্রামের মৃত মন্তাজ উদ্দিনের ছেলে মোঃ হোসেন মিয়া (৫৫) ২০১৪ সালে ১০ শতাংশের একটি জাল দলিল করে বছর খানে পূর্বে জোরপূর্বক ওই ক্রয়কৃত সম্পত্তির মধ্যে সীমানা নির্ধারন করে পিলার গাড়ে। এতে আমরা বাধা দিলে এবং ঘর তুলতে গেলে হোসেন গংরা আমাকে ও আমার ছেলেদের মারধর করে। এছাড়াও তিনি আরো বলেন এই জায়গা বিষয়ে এলাকায় এবং থানায় কয়েক বার বিচার সালিশ বসলে বিচারকরা দুই পক্ষের কাগজ পত্র দেখে আমাদের পক্ষে রায় দিলে হোসেন তা মানে না। এবিষয়ে কুমিল্লা কোর্টে একটি মামলা করেছি। মামলাটি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

এদিকে অভিযুক্ত হোসেন মিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কোন জাল দলিল করি নাই, আমি সিএস ও আরএস সূত্রে মালিকানাদের ওয়ারিশ মৃত বিশ্বম্বর সাহার ছেলে কমল সাহ থেকে ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৪ইং তারিখে ১০ শতাংশ সাব কবলা দলিল করে উক্ত জায়গা দখল করেছি। কোন জোরপূর্বক জায়গা দখল করি নাই। এনিয়ে কুমিল্লা কোর্টে একটি মামলা করেছি। আদালত যেটা রায় দিবে আমি সে রায় মেনে নিবো।

এবিষয়ে মজিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ফারুক মিয়া সরকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কমল সাহা পিতা মৃত বিশ্বম্বর সাহা মসজিদপুর গ্রামের বাসিন্দা না এবং এই নামে কোন ব্যক্তি অত্র গ্রামে নাই।

তিতাস থানার এসআই মধুসূদন বলেন, উভয় আদালতে মামলা করেছে ঐ মামলার তদন্ত প্রাপ্ত হয়ে আমি রফিক পাঠান ও হোসেনকে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য নোটিশ পাঠিয়েছি। তদন্ত শেষ হলে আদালতে প্রতিবেদন পাঠাব।

আর পড়তে পারেন