মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ডায়াবেটিক রোগীদের রোজা রাখার নিয়ম, খাদ্যভাস,ব্যায়াম,ঔষধ,রক্তের শর্করা নির্ণয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১, ২০১৭
news-image

ডাঃ অংকুর দত্তঃ
শুরু হয়েছে মাহে রমজান। সবাইকে রমজান মাসের শুভেচ্ছা। রমজান মাসে ডায়াবেটিক রোগীদের বিশেষ নিয়ম মানতে হয়, বিশেষ খেয়াল রাখতে হয়। কারন রক্তে গ্লুকোজের পরিমান কমে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। রোজার মাসে রক্তে গ্লুকোজের পরিমান ৫-১৫ হলে নরমাল। ৫ এর কম, কিংবা ১৫ এর বেশি হলে রোজা রাখা যাবে না। ডায়াবেটিক রোগীদের মধ্যে যারা চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া রোজা রাখেন তারা বেশ কিছু জটিলতার সম্মুখীন হন। বিশেষ করে : (১) রক্তে সুগারের স্বল্পতা (হাইপোগ্লাসেমিয়া) । (২) রক্তে সুগারের আধিক্য (হাইপারগ্লাইসেমিয়া) । (৩) ডায়াবেটিক কিটো এসিডোসিস । (৪) পানিশূন্যতা বা ডিহাইড্রেশন।
ডায়াবেটিক রোগী রোজা রাখতে পারবেন। যাদের সামর্থ্য আছে তাদের ডায়াবেটিস এমন কোন বাধা নয়। প্রয়োজন পূর্ব প্রস্তুতি।
রমজানের প্রস্তুতিঃ
১। রমজানের ফরজ রোজাকে সঠিকভাবে আদায়ের জন্য ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করে রোজার প্রস্তুতি নেয়া প্রয়োজন। ২। যারা রোজা রাখার আগ্রহ প্রকাশ করেন, ডাক্তার তাদেরকে ঝুকিপূর্ণ অবস্থাগুলো এবং এর উত্তরণের উপায়গুলো শিক্ষা দিয়ে দিবেন। ৩। রক্তের সুগার কমে যাতে না যায় (হাইপো) তার জন্য ব্যায়াম এবং ঔষধের সমন্বয় করে দিবেন। ৪। দিনে, রাত্রে সুগার পরিমাপ করে ঔষধ সমন্বয়ের ব্যাপারে রোগী ও রোগীর পরিবার সকলকে শিক্ষা প্রদান করবেন। ৫। সকল রোগীর জন্য একই ব্যবস্থা প্রযোজ্য নয়। রোগীর অবস্থা অনুযায়ী আলাদা আলাদা ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ডায়াবেটিক রোগীদের ইফতারের সময় প্রচুর পরিমানে পানি খেতে হবে, যাতে পানিশূন্যতা কাটানো যায়।এবং অনেকে রমজানে জিলাপি খেতে পছন্দ করেন,সেই ক্ষেত্রে জিলাপি খাওয়ার ২ ঘন্টা পর রক্তের গ্লুকোজ দেখতে হবে। যদি কাংক্ষিত মাত্রায় থাকে তাহলে খাওয়া যাবে।
ডায়াবেটিস রোগীদের খাদ্যভাস,ব্যায়াম,ঔষধ,রক্তের শর্করা নির্ণয়:
অনেকের মতে রমজান মাসে সকল খাবার বেশী করে খাওয়া যায়,যেটা ভুল ধারনা। কারণ অতিরিক্ত খাবারে হজম প্রক্রিয়ায় সমস্যার পাশাপাশি, রক্তের শর্করা বাড়াবে। আবার কম খেলে হবে হাইপোগ্লাইসেমিয়া। সেই ক্ষেত্রে সুষম খাবার খেতে হবে। হাইপোগ্লাইসেমিয়া আর পানি শুন্যতায় ডায়াবেটিকস রোগীরা রমজানে বেশি আক্রান্ত হয়।
হাইপোগ্লাইসেমিয়া (রক্তের শর্করা) হ্রাসের লক্ষণ :
১. হঠাৎ মাত্রাতিরিক্ত ঘাম
২. মাথা ঘুরানো
৩. দৃষ্টি হঠাৎ শুন্য হওয়া
৪. বুক ধরফড় করা
৫. কোন কিছু বুঝতে না পারা।
এগুলো হলো হাইপোগ্লাইসেমিয়ার লক্ষণ। এরকম পরিস্থিতিতে রোজা ভাঙ্গা লাগবে। রোজার সময় যেকোন অসুস্থতা থাকলে যেমন ডায়ারিয়া সেই ক্ষেত্রে রোজা রাখা যাবে না। ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। যারা মুখে ঔষধ খায় ডায়াবেটিসের জন্য তাদের চেয়ে যারা ইনসুলিন নেয় তাদের হাইপোগ্লাইসেমিয়ার ঝুঁকি বেশী থাকবে। তাই এদের প্রতি পরিবারের সকলের বিশেষ খেয়াল রাখতে হবে। রমজান মাসে প্রতিটা ডায়াবেটিস রোগীকে ৩ বেলা বাধ্যতামূলক খেতে হবে।
ইফতার :
হাফ কাপ কমলার জুস, কিংবা অন্য কোন মিস্টি ফলের জুস দিয়ে রোজা ভাঙা উচিত। এটা রক্তের শর্করা পরিমান ঠিক রাখবে। এরপর ২ থেকে ৩ কাপ মুড়ি +২-৩ টা পেয়াজু, হাফ কাপ বুট+১-২ টা বেগুনি অথবা সরাসরি ভাত+ডাল+সবজি+ডিম/মাছ/মাংস থাকতে হবে। ইফতারে অনেকে জিলাপি খেতে পছন্দ করে। সেক্ষেত্রে জিলাপি খাবার পর ব্লাড সুগার পরিক্ষা করতে হবে। যদি রক্তে শর্করা পরিমান বাড়ে, সেইক্ষেত্রে খাওয়া যাবে না। ইফতারের সময় অবশ্যই প্রচুর পানি খেতে হবে, যাতে পানি শুন্যতা হ্রাস হয়।
রাত ১০ টায়: ২ কাপ ভাত+১/২কাপ পাতলা ডাল+সবজি+এক টুকরা মাছ/ডিম
সেহেরি:
আশ যুক্ত শর্করা যেমন আটার রুটি, পাউরুটি, বাসমতি চাল। এগুলোর সুবিধা হচ্ছে আস্তে আস্তে সময় নিয়ে এনার্জি ছড়িয়ে পরে। সেহেরিতে ভাত/আটার রুটি/ পাউরুটি+সবজি+ ফ্যাটি ডাইট যেমন মাংসের পরিমান একটু বেশি খাওয়া উচিত। কারন ফ্যাট হজম হতে অনেক সময় লাগে।
ব্যায়াম :
রমজান মাসে আলাদা ব্যায়াম করা লাগে না। কারণ অতিরিক্ত ব্যায়াম কিটোএসিডোসিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। তারাবি +৫ ওয়াক্ত নামাজ যথেষ্ট।
রক্তের শর্করা পরিক্ষা:
আমরা রোজার সময় ইফতারকে সকাল এবং সেহেরিকে রাত হিসাবে কাউন্ট করি। ইফতারের আগে ও খাওয়ার দুই ঘন্টা পরে এবং সেহেরির ২ ঘন্টা পর রক্তের শর্করা পরিক্ষা করতে হবে। এছাড়া যেকোন অসুস্থতার সময় পরিক্ষা করা উচিত। রোজার মাসে রক্তের শর্করা ৫-১৫ হলে নরমাল। ৫ কম কিংবা ১৫ বেশি হলে রোজা রাখা যাবে না। চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।
ঔষধ:রোজার মাসে ঔষধের ডোজে পরিবর্তন হয়। সেইজন্য রোজা শুরুর আগেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।
-ডাঃ অংকুর দত্ত
এমবিবিএস,এমপিএইচ (থিসিস), স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ।
সিসিডি(ডায়াবেটিস) ইডিসি (এডভান্স ডায়াবেটিস), বারডেম
এফএমডি(ফ্যামিলি মেডিসিন)
ডায়াবেটিস ও ফ্যামিলি মেডিসিন কনসালটেন্ট
সিডি প্যাথ হাসপাতাল,কুমিল্লা।

আর পড়তে পারেন