সোমবার, ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

টাকার বিনিময়ে টেস্ট নিয়ে তীব্র প্রতিবাদ বাংলাদেশে, কমছে টেস্টের সংখ্যাও

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১১, ২০২০
news-image

 

তারিক চয়নঃ

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণ টেস্ট বিষয়ে তুরস্কের আনাদলু এজেন্সি ইংরেজীতে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এটি হুবহু অনুবাদ করা হলঃ

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমানোর জন্য যখন বিশেষজ্ঞরা এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলো টেস্টের সংখ্যা আরো বাড়ানোর দাবি জানাচ্ছে, তখন সরকার উল্টো টেস্টের সংখ্যা কমিয়ে দিয়েছে।

মার্চের ৮ তারিখ ১৬ কোটি ৫০ লক্ষ জনসংখ্যার বাংলাদেশে প্রথম কোন করোনা রোগী শনাক্ত হবার পর থেকে এ পর্যন্ত ৯ লাখ ১৮ হাজার ২৭২ টি টেস্ট করে ১৯.৪৩% এরই করোনা শণাক্ত হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় শুক্রবার ১৩ হাজার ৫০০ টি নতুন টেস্ট করিয়েছে।

এখন আবার সরকার টেস্ট করার জন্য মূল্য নির্ধারণ করেছে। প্রধান বিরোধী দল বিএনপি এবং ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) সহ বিশেষজ্ঞরা এবং মানবাধিকার সংগঠনগুলো সরকারি এই সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন। চলছে তুমুল সমালোচনাও।

টিআইবি এক বিবৃতিতে বলেছে, সরকারি হাসপাতালে ‘টাকার বিনিময়ে টেস্ট’ এর সিদ্ধান্ত এমন সময়ে নেয়া হয়েছে যখন ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ছে। এমন সিদ্ধান্ত বিশেষ করে দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য ‘বৈষম্যমূলক, অমানবিক, ক্ষতিকর এবং আত্মঘাতী’ উল্লেখ করে টিআইবি সরকারকে এ থেকে সড়ে আসার দাবি জানায়।

করোনা নিয়ন্ত্রণে গঠিত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটিও শুক্রবার টেস্ট ল্যাবের সংখ্যা বাড়ানোর চেয়ে টেস্টের সংখ্যা বাড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ করেছে।

বাংলাদেশ ডক্টরস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ডা. শাহেদ রাফি পাভেল বলেন, আসছে ঈদকে কেন্দ্র করে যখন দেশে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাবার সম্ভাবনা তখন টেস্ট কমিয়ে দেয়া মানুষের কাছে ভুল বার্তা বহন করতে পারে। সরকারের কাছে পর্যাপ্ত টেস্ট কিট না থাকায় এমনটা করা হয়ে থাকলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের তা ব্যাখ্যা করা উচিত।

‘টাকার বিনিময়ে টেস্ট’ করানোর সমালোচনা করে রাফি বলেন, ‘টেস্ট করানোর ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখনো এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলোর চেয়ে পিছিয়ে আছে। সংক্রমণের চেইন ভাঙতে আরো বেশি করে টেস্ট করানো প্রয়োজন।’

সরকার অবশ্য বলছে অপ্রয়োজনীয় টেস্ট এড়াতেই এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এ মাসের শুরুতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় বলেছে, করোনার কোন উপসর্গ ছাড়াই দেশের ‘বহু’ মানুষ ফ্রি টেস্টের সুবিধা নিচ্ছিলেন।

আর পড়তে পারেন