শনিবার, ১৬ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জেনে নিন এই শীতে নিজেকে যত্ন নেওয়ার কিছু টিপস

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ২৩, ২০২০
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

আসছে শীত।কমছে আর্দ্রতা। বাড়ছে ধুলাবালি। আর উঁকি দিচ্ছে ত্বক ও নানা রকমের স্বাস্থ্যগত সমস্যা। তাই সময়ে নিতে নিজের প্রতি নিতে হয় বাড়তি যত্ন। তা নাহলে নিষ্প্রাণ হয়ে পড়বে আপনার ঝরঝরে চুল। উজ্জ্বলতা কমে শীতের সঙ্গে ত্বকের তৈরি হবে একধরনের শত্রুতা। তব্যা হ্যাঁ, শীতকালে শরীরের বাহ্যিক যত্নের পাশাপাশি নিতে হবে স্বাস্থ্যগত যত্নও। এ সময়ের আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে জীবনযাপনের ও খাবারে প্রতিও নিতে হবে বিশেষ খেয়াল।

ত্বকের যত্ন

এ সময়ে বিভিন্ন রকমের বিউটি ওয়েল বা সৌন্দর্যবর্ধক তেল ব্যবহারে ত্বকে আর্দ্রতার ভারসাম্য বজায় থাকে। এতে লোমকূপ থেকে ময়লা দূর হয়, দাগ কমে ও উজ্জ্বলতা বাড়ে।অলিভ অয়েল ও বাদাম তেলের মতো বিভিন্ন তেলের পাশাপাশি বেছে নিন ভালো মানের গ্লিসারিন ও ময়শ্চারাইজ সমৃদ্ধ লোশন। এগুলো ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে। যতবার ত্বক শুষ্ক মনে হবে ততবার ব্যবহার করুন। গোসলের পর ও প্রতিবার মুখ ধোয়ার পর ভেজা অবস্থায় ময়েশ্চারাইজার বা লোশন ব্যবহার করুন। হাত ও পায়ের যত্ন নিন। গোসলের সময় আরাম অনুভব হলেও শীতে অতিরিক্ত গরম পানি দিয়ে মুখ, মাথা ধোয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।শীত আসছে বলে ভাববেন না যে সানস্ক্রিন ব্যবহার করার প্রয়োজনীতা কমে গেছে। এসময় রোদ উঠলে বাইরে বের হওয়ার ৩০ মিনিট আগে এসপিএফ ১৫-৩০ সম্পন্ন সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

ঠোঁটের যত্ন

শীতে জিব দিয়ে ঠোঁট ভেজাবেন না। মধু ও পেট্রোলিয়াম জেলি মিশিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রেখে দিন ১০ থেকে ১৫ মিনিট। এরপর পরিষ্কার তুলা দিয়ে আস্তে আস্তে তুলে ফেলুন, এতে ঠোঁট কোমল হবে। জেলি ব্যবহার করুন ঠোঁট দিয়ে। ঘরোয়া প্যাক ব্যবহার করুন। তিলের তেলও ব্যবহার করা যেতে পারে। গ্লিসারিন ও অলিভ অয়েলমিশিয়ে ঠোঁটে লাগালেও তা ময়েশ্চারাইজারের কাজ করে। চালের গুঁড়ার সঙ্গে অল্প পানি মিশিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন ১৫ থেকে ২০ মিনিট। এতে ঠোঁটের মরা চামড়াগুলো উঠে আসে।

চুলেত্র যত্ন

চুলের রুক্ষ ভাব দূর করতে নিয়মিত তেল মাখতে হবে। তবে চুলে তেল দিয়ে বাইরে বের হলে এতে আরও বেশি ময়লা জমবে চুলে। বাইরে বের হলে চুল ভালোমতো বেঁধে ও ঢেকে রাখতে হবে। হ্যাট পরতে পারেন এসময়। অন্যদিকে তৈলাক্ত মাথার ত্বকে লুকিয়ে থাকে খুশকির প্রাদুর্ভাব। এ সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে মৌরি ও সমপরিমাণ পানি সারা রাত ভিজিয়ে রেখে পরদিন ভালোমতো বেটে মাথার ত্বকে এক থেকে দেড় ঘণ্টা লাগিয়ে রাখুন। এরপর শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া আরও একটি কাজ করতে পারেন। সেটি হলো- ইয়োগার্ট, লেবু ও ভিনিগার একটি পাত্রে ইয়োগার্ট নিন। সঙ্গে আপেল সিডার ভিনিগার ও লেবুর রস মিশিয়ে নিয়ে মাথার তালু এবং চুলে লাগিয়ে নিন। আধঘণ্টা রেখে দেওয়ার পর শ্যাম্পু ব্যবহার করে ধুয়ে ফেলুন। সময় পেলেই সপ্তাহের যে কনো দিন চুলে হট অয়েল ট্রিটমেন্ট ও হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করুন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে তেল লাগান। শীতের সময় চুল ধুতে হবে নিয়মিত। এ সময় বাইরে অনেক বেশি ধুলাবালু উড়ে বলে রোজ চুল পরিষ্কার করা উচিত। ঠান্ডা পানি দিয়েই চুল ধোয়ার কাজ সেরে ফেলা ভালো।

পায়ের যত্ন

শীতের সময়ে নরম জুতা পরার চেষ্টা করুন। না। পা ঢাকা জুতা পরবেন। সেইসঙ্গে পরুন মোজা। মোজা পরার আগে পায়ে ক্রিম লাগিয়ে নিতে পারেন।

স্বাস্থ্যের যত্ন

শীতে শরীরের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশ খানিকটা কমে যায়। ঠাণ্ডা আবহাওয়ার কারণে সর্দি, কাশি, পেটে সমস্যা, জ্বর, ঠাণ্ডাজনিত গলাব্যথা এ ধরনের বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এছাড়া তৃষ্ণা কম লাগায় শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দেয়। তাই পর্যাপ্ত স্যুপ ও জুস জাতীয় খাবার খান । শীতকালে গরম চা, কফি ও অ্যালকোহল বেশ লোভনীয় পানীয়। এগুলো শরীর আর্দ্রতাশূন্য করে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা ত্বকের যত্নে প্রথমেই পর্যাপ্ত পানি পান করার পরামর্শ দেন। শীতকালে ব্যায়ামের পর বা অন্য সময়েও হালকা গরম পানি বা কোমল পানীয় পান করুন। যা ঠান্ডা পানির চেয়ে শরীর দ্রুত শুষে নেয়। প্রতিদিন খাবারের তালিকায় রাখার চেষ্টা করুন ভিটামিন সি-যুক্ত খাবার। টাটকা ফল ও সবজিতে আছে বায়োটিন, যা ত্বক ও চুল ভালো রাখে। এটি আপনার শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের কাজ করবে। বাদাম ও সামুদ্রিক মাছে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাটি অ্যাসিড আছে। শীতকালে এগুলো বেশি করে খান।

আর পড়তে পারেন