মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জার্মানির প্রতি ক্ষোভ ঝেড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১২, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

ন্যাটো সম্মেলন এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়নি। তার আগেই আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মূল সম্মেলন শুরুর আগে ১২ জুলাই বৃহস্পতিবার ব্রাসেলসে ‘ওয়েস্টার্ন মিলিটারি অ্যালায়েন্স’র কর্মকর্তাদের সঙ্গে সকালের নাস্তার টেবিলে জার্মানি ও ইউরোপিয়ান মিত্রদের তীব্র সমালোচনা করেছেন ট্রাম্প। বিশেষ করে জার্মানির প্রতি ইচ্ছামতো ক্ষোভ ঝেড়েছেন তিনি। আজই মূল সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হবে।

জার্মানির সমালোচনা করতে গিয়ে ট্রাম্প যেসব ভাষা ব্যবহার করেছেন, তা সব ধরনের ‘কূটনৈতিক সৌজন্যতাবোধের’ উর্ধ্বে বলে সমালোচনা হচ্ছে সর্বত্র।

ট্রাম্প বলেন, ‘জার্মানি রাশিয়ার সঙ্গে বড় ধরনের তেল ও গ্যাস চুক্তি করেছে। এটা খুবই দুঃখজনক। আমরা জার্মানি, ফ্রান্স ও অন্যান্য দেশগুলোকে সুরক্ষা দিচ্ছি। কিন্তু অনেকগুলো দেশ রাশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি করছে, যেখানে তারা রাশিয়াকে বিলিয়ন বিলয়ন ডলার দিচ্ছে। আমরা আপনাকে রাশিয়ার হাত থেকে বাঁচাতে চাই, আর আপনি গিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলারের চুক্তি করেন। আমি মনে করি এটা একদমই ঠিক নয়। জার্মানির প্রাকৃতিক গ্যাসের ৭০ শতাংশই নিয়ন্ত্রণ করে রাশিয়া। জার্মানি রাশিয়ার দ্বারা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রিত। কারণ তারা তাদের ৬০-৭০ শতাংশ জ্বালানি আনে রাশিয়া থেকে।’

সম্মেলন শুরুর আগেই ট্রাম্পের এমন ভাষা ব্যবহারের কারণে ন্যাটো জোটের শরীকরা ভীত হয়ে পড়তে পারেন বলে বিশ্লেষকরা ইঙ্গিত করেছেন। একই সঙ্গে এবারের ন্যাটো সম্মেলটি অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে উত্তপ্ত হবে বলেও ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। সম্মেলনের আগে থেকেও অবশ্য এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছিল।

ট্রাম্পের এমন ধারাবাহিক কঠোর সমালোচনার জবাবে বুধবার ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্ক কটাক্ষ করে বলেন, ‘প্রিয় আমেরিকা, মিত্রদের বাহবা দাও। কারণ তোমার মিত্র এখন আর বেশি নেই।’

প্রায় প্রতিদিনই ন্যাটো জোট কিংবা ইউরোপীয় বন্ধুদের কোনো না কোনো সমালোচনা করছেন ট্রাম্প। ন্যাটো জোটের শরীকরা জোটে যথাযথভাবে অর্থ সহায়তা দিচ্ছেন না বলে কয়েক বছর ধরে অভিযোগ করে আসছেন ট্রাম্প। বৃহস্পতিবারের ওই বৈঠকে ট্রাম্প সবাইকে অবাক করে দিয়ে জোটের শরীক দেশগুলোর কাছে নতুন প্রস্তাব করেন। ট্রাম্প চান শরীক দেশগুলো তাদের জিডিপির ৪ শতাংশ অর্থ ন্যাটো তহবিলে দিক। কিন্তু এখনো যুক্তরাষ্ট্র আর ব্রিটেন ছাড়া আর কোনো দেশই তাদের জিডিপির দুই শতাংশ অর্থও ন্যাটো তহবিলে দিচ্ছে না। ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র তাদের জডিপির ৩.৫ শতাংশ, ব্রিটেন ২.১ শতাংশ, ফ্রান্স ১.৮১ শতাংশ,জার্মানি ১.২৪ শতাংশ ও কানাডা ১.২৩ শতাংশ অর্থ ব্যয় করেছে।

শরীক দেশগুলো অঙ্গীকার করেছিল তারা তাদের জিডিপির ২ শতাংশ অর্থ ন্যাটো তহবিলে দেবে। কিন্তু সেটাই এখনো নিশ্চিত করা যায়নি। এর মধ্যেই জিডিপির ৪ শতাংশ অর্থ ন্যাটো তহবিলে দিতে ট্রাম্পের প্রস্তাবে অনেকেই অবাক হয়েছেন।

তবে ট্রাম্পের এ প্রস্তাবকে আমলে নিচ্ছেন না ন্যাটোর মহাসচিব জেন স্টলটেনবার্গ। তিনি বরং দেশগুলোর আগের প্রতিশ্রুত জিডিপির ২ শতাংশ অর্থ নিশ্চিত করার ওপর জোর দিচ্ছেন।

ট্রাম্পের প্রস্তাব নিয়ে তিনি সরাসরি কোনো মন্তব্য না করে বলেন, ‘আমার মনে হয় আমাদের আগে ২ শতাংশটা নিশ্চিত করা উচিত। আমি খুশি যে আমরা সে লক্ষ্যে এগুচ্ছি।’

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ন্যাটো জোটের শরীক দেশগুলোর এ বাদানুবাদে লাভ হচ্ছে রাশিয়ার। রাশিয়া দীর্ঘদিন ধরে এ জোটটি ভাঙতে চাইছে।

আর পড়তে পারেন