রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জাতীয় কবির স্মৃতিময় কুমিল্লা শহর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১০, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
দীঘির নাম- রাণীর দীঘি। বেশ বড় দীঘি। এর অবস্থান কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের পাশে। এ দীঘির এক কোণে বসে কবি নজরুল কবিতা লিখতেন, গান গাইতেন, করতেন কবিতা পাঠ কিংবা লিখতেন প্রিয়তমাকে প্রেমের চিঠি। ভিক্টোরিয়া কলেজের শিক্ষার্থীরা গান বা কবিতা শুনতে কবির কাছে ভিড় জমাতেন। আড্ডা জমতো রোজ সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত। তারপর একদিন কবি হারিয়ে গেলেন। কিন্তু রয়ে গেছে সেই দীঘি, কলেজ, আর সেই আড্ডায় বসে লেখা গান ও কবিতা।

শুধু দীঘিরপাড় নয়, কুমিল্লা শহরের অনেক স্থানেই ছড়িয়ে আছে নজরুলের নানা স্মৃতি। এ সব স্মৃতি হাতড়াতেই একদিন কুমিল্লা শহরে হাজির হই। সঙ্গে ছিলেন অগ্রজ প্রভাষক মতিন সৈকত।

প্রথমেই আসি ভিক্টোরিয়া কলেজের পাশে রাণীর দীঘিরপাড়। এ দীঘির পশ্চিম-দক্ষিণ কোণেই আড্ডা জমাতেন নজরুল।

১৯২১ সালের এপ্রিলে নজরুল কুমিল্লায় প্রথম আসেন। ছিলেন ১৯২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। কারো মতে, ১৯২৪ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ছিলেন। এ সময়ে নজরুল পাঁচবার কুমিল্লায় আসা-যাওয়া করেছেন। থেকেছেন গড়ে ১১ মাস। কুমিল্লায় থাকাকালীন নজরুল এ দীঘিরপাড়ে অনেক সময় কাটিয়েছেন। ‘মাধবী লতা দোলে…’সহ আরও অনেক গান রচনা করেছেন এখানে বসেই। কবির স্মৃতি ধরে রাখতে এখানে একটি স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয়েছে।

দীঘিরপাড় থেকে রিকশায় আসি শিল্পকলা একাডেমি। এখানেও আছে চেতনায় নজরুল নামের ভাস্কর্য। সেখান থেকে হেঁটে এলাম বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তনে। মহারাজ বীরচন্দ্র মানিক্য বাহাদুর ১৮৮৫ সালে এ পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করেন। এ পাঠাগারের মাঠে ১৯২২ সালে মার্চে গান্ধীকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে নজরুলের নেতৃত্বে জনসভা ও মিছিল বের করা হয়।

বীরচন্দ্র পাঠাগার থেকে আমরা আসি কান্দিরপাড় নজরুল অ্যাভিনিউতে। এ অ্যাভিনিউতে ছিল ইন্দ্র কুমার সেনগুপ্তের বাসা। নজরুল কুমিল্লায় এলে এ বাড়িতে উঠতেন। এখানে থাকাকালে ইন্দ্র কুমার সেনের ভাতৃজায়া গিরিবালা দেবীর একমাত্র কন্যা আশালতা সেনগুপ্তা ওরফে দোলন ওরফে দুলীর সঙ্গে কবির প্রেম হয়। কবি তার নাম দেন প্রমীলা। ১৯২৪ সালের ২৫ এপ্রিল কলকাতার ৬নং হাজী লেনে তাদের বিয়ে হয়। প্রমীলাদের বাড়ির পাশেই ছিল বসন্ত কুমার মজুমদারের বাড়ি। কবি তার সঙ্গে সেখানেও আড্ডা দিতেন। এ অ্যাভিনিউতে ফরিদা বিদ্যা নিকেতনের সামনে, বসন্ত কুমার মজুমদারের বাড়ির সামনেসহ কয়েকটি স্থানে নজরুলের স্মৃতিফলক রয়েছে।

নজরুল অ্যাভিনিউ থেকে রিকশায় আসি শহরের ধর্মসাগর পাড়ে। ত্রিপুরা রাজ্যের অধিপতি মহারাজা ধর্মমানিক্য ১৪৫৮ সালে এ দীঘি খনন করেন পানীয় জলের সুবিধার জন্য। বিশাল এ দীঘির পাশ দিয়ে বসার ও হাঁটার সুন্দর ব্যবস্থা আছে। দীঘিতে বেড়ানোর জন্য ভাড়ায় নৌকাও পাওয়া যায়। দীঘির পাড়ে রেস্টুরেন্টও আছে। আর দীঘির পাশেই আছে কামাল উদ্দিন চৌধুরী শিশুপার্ক। পার্কে একটি ফলকে আল মাহমুদের কবিতার পঙ্তি আছে- ‘এখানে সবুজ দিয়েছে বুক পেতে, গুল্মলতা আকাশে ওঠে মেতে, ছায়ার নিচে তোমার কথা ভাবি, তুমিই বুঝি এই বাগানের চাবি।’ ভালো লাগল এটা দেখে।

পার্কের জামতলায় কিছুক্ষণ বিশ্রাম নিলাম। পার্ক থেকে বের হয়ে এলাম নজরুল ইন্সটিটিউট কেন্দ্রে। সরকারি এ ইন্সটিটিউট নজরুল বিষয়ে কাজ করে থাকে। ইন্সটিটিউটের পাশেই আছে রানীরকুঠি বার্ড অতিথিশালা (ড. আখতার হামিদ খান স্মারক বাসগৃহ)। এবার আমরা অটোরিকশায় আসি শহরের ঝাউতলা রোডে। এ ঝাউতলা রোড থেকেই নজরুলকে গ্রেফতার করা হয়েছিল।

১৯২২ সালে ২২ সেপ্টেম্বর ধূমকেতু পত্রিকার একবিংশ সংখ্যায় ‘আনন্দময়ীর আগমনে’ শিরোনামে নজরুলের একটি কবিতা ছাপা হয়। এ কবিতার জন্য সরকার ধূমকেতুর সে সংখ্যাটি বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করে। এবং কবিতাটির জন্যই নজরুলকে ২৩ নভেম্বর এ ঝাউতলা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

ঝাউতলা থেকে আমরা নজরুলের স্মৃতিবিজড়িত শহরের বজ পুরের ইউসুফ স্কুল, দারোগাবাড়ি, মহেশাঙ্গন, মুরাদপুর জানুমিয়ার বাড়িসহ বিভিন্ন স্থান ঘুরে আসি। নজরুলের স্মৃতিবিজড়িত এ সব স্থান দেখে যেমন ভালো লাগল, তেমনি মনটাও একটু খারাপ হল, কারণ এ সব স্মৃতিবিজড়িত অনেক স্থানই আজ অযতেœ-অবহেলায় পড়ে আছে। তাই এ সব স্মৃতি রক্ষার কার্যকর উদ্যোগ প্রয়োজন। শাসনগাছার শাহ জালাল হোটেলে খাই দুপুরের খাবার। তারপর অটোরিকশায় এলাম বিশ্বরোডের মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্যের সামনে। সেখান থেকে আবার আসি ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড বাসস্ট্যান্ড। ওঠি বাসে। নামি ইলিয়টগঞ্জ। পুটিয়া হয়ে ইলিয়টগঞ্জ থেকে আবার বাসে ঢাকা ফেরা।

প্রয়োজনীয় তথ্য : ঢাকার সায়দাবাস থেকে কুমিল্লার উদ্দেশে তিশা, বিআরটিসি, এশিয়া, রয়েলসহ বিভিন্ন এসি/ননএসি বাস ছেড়ে যায় সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত। ভাড়া ১৮০ থেকে ২৫০ টাকা। সময় লাগবে প্রায় আড়াই ঘণ্টা। বাস থেকে নামতে হবে পদুয়ার বাজার। সেখান থেকে অটোরিকশায় যাওয়া যাবে এ সব স্থানে। থাকা-খাওয়ার জন্য কুমিল্লা শহরে বেশকিছু হোটেল-রেস্টুরেন্ট আছে।

আর পড়তে পারেন