মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জবি ছাত্রলীগ চাপাতি দিয়ে সাংবাদিককে কোপালো

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৬

sogbadikঢাকা: জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) সাংবাদিক সমিতির সাবেক সভাপতি বিডিনিউজের স্টাফ রিপোর্টার কাজী মোবারক হোসেনকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কর্মীরা। এসময় বাংলামেইল২৪ডটকমের স্টাফ করেসপন্ডেন্ট ইমরান আহমেদ উদ্ধার করতে এগিয়ে গেলে তাকেও পিটিয়ে আহত করে।

সোমবার বিকেল ৩টার দিকে জবির প্রধান ফটকের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কোতয়ালি থানায় মামলা করা হয়েছে।

ইমরান আহমেদের অভিযোগ, ঘাতকদের একজনকে হাতেনাতে ধরলেও তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান জবি ছাত্রলীগের সভাপতি এফএম শরিফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক এসএম সিরাজুল ইসলাম। এই দুজনের ইন্ধনেই সাংবাদিকের উপর হামলা করা হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার বিকেলে কাজী মোবারক হোসেন এবং বাংলামেইলের স্টাফ রিপোর্টার ইমরান আহমেদ অপু মোটরসাইকেল যোগে ক্যাম্পাস থেকে বের হওয়ার সময় প্রধান ফটকের সামনে কয়েকজন সন্ত্রাসী তাদের উপর হামলা করে। এসময় আইন বিভাগের নবম ব্যাচের শিক্ষার্থী জবি ছাত্রলীগ সভাপতি শরিফুল ইসলামের অনুসারী ইমরান বিশ্বাস সাদা রঙের একটি চাপাতি দিয়ে মোবারকের মাথায় কোপ দেয়। এতে মোবারকের ডান চোখের উপরে গুরুতর যখম হয়। এসময় তার মোটরসাইকেলে থাকা ইমরান আহমেদ এগিয়ে আসলে তাকেও বেধড়ক মারধর করে সন্ত্রাসীরা। পরে ছাত্রলীগকর্মী ইমরান বিশ্বাসকে হাতে-নাতে ধরে ক্যাম্পাসের ভিতরে নিয়ে যান সাংবাদিক ইমরান আহমেদ। আহত মোবারককে সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (মিডফোর্ট) চিকিৎসা দেয়া হয়।

জবি ভিসি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান জানান, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। ঘাতকদের একজনকে সনাক্ত করা গেছে। শিগগিরই তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জবি প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মদ বলেন, ‘ঘটনাটা তিনি শুনেছি। ঘাতক ইমরান বিশ্বাসকে সনাক্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে কাল (মঙ্গলবার) ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ বিষয়ে কোতয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বলেন, ‘এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। শিগগির আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ইমরান বিশ্বাসকে ছাড়িয়ে নেয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করে জবি ছাত্রলীগ সভাপতি এফএম শরিফুল ইসলাম বলেন, ‘আহত সাংবাদিক মোবারক বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ব্যক্তি এবং ছাত্রলীগ কর্মী। তার উপর ছাত্রলীগের হামলা ভিত্তিহীন। যারা ছাত্রলীগের নাম ভাঙিয়ে এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে তারা সন্ত্রাসী।’ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সুপারিশ করেছেন বলে জানান।

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেন, ‘ঘটনাটি আমরা শুনেছি। এব্যাপারে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

সূএ: বাংলামেইল২৪

আর পড়তে পারেন