বৃহস্পতিবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জনগণের মুখোমুখি কুসিক মেয়র প্রার্থীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৭, ২০১৭
news-image

০ আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী সীমা অনুপস্থিত
০ ২০২০ সালে দেশের সবচেয়ে সুন্দর সিটি হবে কুমিল্লা-সাক্কু
০ আধুনিক পদ্ধতিতে জলাবদ্ধতা ও যানজট নিরসন করা হবে- মামুন
০ লাল-নীল বাতি আর প্লাষ্টিকের ফুল দিয়ে নগরীর উন্নয়ন করা যায় না-শিরিন
০ মিলনায়তনে বিএনপির সমর্থকদের হট্টগোল

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতুঃ
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারি সকল মেয়র প্রার্থীগণকে নিয়ে সুজনের উদ্যোগে আয়োজিত পরিচিতি ও জনগণের মুখোমুখি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হননি আ’লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আনজুম সুলতানা সীমা। এছাড়া অপর তিন মেয়র প্রার্থী বিএনপি মনোনীত মনিরুল হক সাক্কু, স্বতন্ত্র প্রার্থী মেজর (অবঃ) মামুনুর রশীদ ও জাসদ মনোনীত প্রার্থী শিরিন আক্তার। মেয়র প্রার্থী শিরিন আক্তারের এক বক্তব্য নিয়ে মিলনায়তনে বিএনপি নেতাকর্মী ও সমর্থকরা হট্টগোল করেন।
বৃহস্পতিবার (১৬ মার্চ) বিকেলে কুমিল্লা বীর চন্দ্র নগর মিলনায়তনে জনগণের মুখোমুখি এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
সুজন, কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ মমিনুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সুজন, কুমিল্লা জেলা শাখার সহ-সভাপতি শাহ মোঃ আলমগীর, মহানগর সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সুজনের কেন্দ্রীয় সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারি দিলীপ কুমার সরকার ।
আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী সীমা অনুপস্থিত ঃ
জনগণের মুখোমুখি এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না আ’লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আনজুম সুলতানা সীমা। নগরীর ১২ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত থাকায় এ অনুষ্ঠঅনে আসতে পারেননি তিনি। তাই এ অনুষ্ঠানে আ’লীগের কোন নেতাকর্মী কিংবা সমর্থকদের তেমন উপস্থিতি ছিল না বললেই চলে।
২০২০ সালে দেশের সবচেয়ে সুন্দর সিটি হবে কুমিল্লা- সাক্কু ঃ
মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু অনুষ্ঠানে আসার আগেই তার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মিলনায়তনের প্রায় ৮০ ভাগ জায়গায় আসন গ্রহণ করেন। মেয়র সাক্কু তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিতে বলেন,গত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর আমি মাষ্টারপ্ল্যান করে কাজ করেছি। কারণ মাষ্টার প্ল্যান ছাড়া কাজ করা যায় না। আর এই মাষ্টারপ্ল্যান করতে এক বছর সময় লেগেছে। তাছাড়া আমি বিরোধী দলের ছিলাম। দেশের পরিস্থিতি ভালো ছিল না। আমি সদর সাংসদ হাজী বাহারকে বলেছি, আসুন এক সঙ্গে কাজ করি। তিনি আমাকে সহায়তা করেছেন। আমি পরিকল্পনা মন্ত্রী লোটাস কামালের সাথে একাধিকবার কথা বলেছি। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ৭০ ভাগ রাস্তার কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কুমিল্লা পার্কে ব্যক্তিগত টাকা দিয়ে সৌন্দর্য্য বধর্নের কাজ করেছি। সিটি কর্পোরেশন থেকে শুধু ৯ লক্ষ টাকা নিয়েছি। শহরে ফোয়ারা করেছি। জনগণ যদি আবার সুযোগ দেয় কুমিল্লা নগরীতে ২টি ছেলে ও ২টি মেয়েদের স্কুল করবো। ২০২০ সালে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন হবে দেশের সবচেয়ে সুন্দর সিটি।
আধুনিক পদ্ধতিতে জলাবদ্ধতা ও যানজট নিরসন করা হবে- মামুন
স্বতন্ত্র প্রার্থী মেজর (অবঃ) মামুনুর রশীদ বলেছেন, একজন মেয়রের একজন সাংসদ থেকে বেশি কাজ করার সুযোগ আছে। কুমিল্লা সিটিতে ৭০ হাজার বেকার যুবক রয়েছে। মহানগরীর ৯০ ভাগ লোক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে। রয়েছে জলাবদ্ধতা, যানজট, মাদক সমস্যা ও খেলার মাঠের স্বল্পতা। সব কিছুর জন্য প্রয়োজন সঠিক পরিকল্পনা।
আমি জনগণের রায়ে মেয়র নির্বাচিত হলে সঠিক পরিকল্পনা করে আধুনিক পদ্ধতিতে জলাবদ্ধতা ও যানজট নিরসন, বেকার সমস্যা দূরীকরণ ও মাদকমুক্ত যুব সমাজ গড়বো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলবো। ১০ টাকায় স্বাস্থ্য সেবার ব্যবস্থা করবো। নগরীর প্রতিটি বিদ্যালয়ে মাঠের ব্যবস্থা করে দিবো।
লাল-নীল বাতি আর প্লাষ্টিকের ফুল দিয়ে নগরীর উন্নয়ন করা যায় না-শিরিনঃ
জাসদ মনোনীত প্রার্থী শিরিন আক্তার বলেছেন, জনগণ দুদলের প্রতি আস্থা হারিয়ে ফেলেছে। জনগণ পরিবর্তন চায়। আমি পাশ করবো ইনশাল্লাহ। আমি মেয়র হলে যানজটমুক্ত ও জলাবদ্ধতামুক্ত কুমিল্লা সিটি গড়বো। তিনি সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কুকে ইঙ্গিত করে বলেন, শুধু লাল-নীল বাতি আর প্লাষ্টিকের ফুল দিয়ে সাজালে নগরীর উন্নয়ন হয় না।
মিলনায়তনে বিএনপির সমর্থকদের হট্টগোলঃ
সাক্কুকে নিয়ে জাসদ মনোনীত প্রার্থী শিরিন আক্তারের বক্তব্যের পর মিলনায়তনে উপস্থিত বিএনপির নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মেয়র প্রার্থী শিরিন আক্তারকে কটুক্তি করা শুরু করলে সুজনের কেন্দ্রীয় সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করেন। প্রায় ১০/১৫ মিনিট পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে।

আর পড়তে পারেন