বুধবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রাম-লাকসাম সড়কের বেহাল দশা, জনদূর্ভোগ চরমে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৩, ২০১৮
news-image

স্টাফ রিপোর্টার ঃ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের অতি গুরুত্বপূর্ণ সংযোগ সড়ক চৌদ্দগ্রাম-লাকসাম সড়ক। এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য পণ্যবাহী ও যাত্রিবাহী পরিবহণ চলাচল করে। বিশেষ করে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে যানজট থাকলে বিকল্প সড়ক হিসেবে এই রাস্তা দিয়েই ঢাকা-চট্রগ্রামের অধিকাংশ গাড়ি চলাচল করে। এই সড়ক ধরেই বিভিন্ন যানবাহন লাকসাম বাইপাস হয়ে চাঁদপুর কিংবা কুমিল্লা বিশ্বরোড যাওয়া যায় অতি সহজে। ব্যস্থতম এ সড়কের অতি গুরুত্বপূর্ণ স্থান হলো চৌদ্দগ্রাম বাজার সংলগ্ন অংশ থেকে থেকে বাঙ্গড্ডা বাজার পর্যন্ত। এই অংশের বিভিন্ন স্থানে খাদ-খন্দ ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমান বর্ষা মৌসুমে ধারাবাহিক বৃষ্টিপাতের ফলে এসব খাদ-খন্দ ও গর্ত ভয়ংকর আকার ধারন করেছে। বিভিন্ন লরি ও ট্রাকসহ ভারী যানবাহন নিয়মিত চলাচল করায় এসব গর্তগুলো ছোট থেকে আরও বড় হচ্ছে। এছাড়া খাদ-খন্দগুলোতে মাঝে মধ্যে ইটের টুকরো ফেলায় তা গর্ত বন্ধের পরিবর্তে বৃষ্টির পানিতে মিষে কাদার সৃষ্টি করে। যার ফলে এই অংশ চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। এতে করে প্রায় প্রতিদিনই সড়কের অংশে গর্তে পড়ে বিভিন্ন যানবাহন আটকে পড়সহ নিয়মিত ছোট-বড় দুর্ঘটনার ঘটনা ঘটছে।

দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কের কোন সংস্কারমূলক কোনো কাজ হচ্ছে না। এতে সড়কের চাঁন্দিশকরা, ছাতিয়ানী ও পরিকোট নামক স্থানে বেশ কয়েকটি খাদ-খন্দ ভয়ংকর আকার ধারন করেছে। খাদ-খন্দ ও বড় বড় গর্তের কারণে সড়কটি এখন যানবাহন ও মানুষ চলাচলের প্রায় অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। সড়কের ২-১টি অংশের গর্তগুলো এতটাই বড় আকার ধারণ করেছে যে, কেউ চাইলে মাছ চাষ করতে পারবে। একটু বৃষ্টি হলেই সড়কটির ভাঙ্গা অংশে পানি জমে একাকার হয়ে যায়। এতে বর্তমান বর্ষা মৌসুমে হাটু সমান পানিতে মানুষের স্বাভাবিক চলাচলেও সমস্যা হচ্ছে। পাশাপাশি পানির উপর দিয়ে যানবাহন চলাচলের কারণে সিএনজি চালিত অটো রিক্সা, ব্যাটারী চালিত ইজিবাইক, রিক্সাসহ ছোট গাড়িগুলো রাস্তার মধ্যেই বিকল হয়ে পড়ছে অনেক সময়। মাঝ পথে এসব পরিবহণগুলো থমকে যাওয়ার ফলে সাধারণ যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন প্রতিনিয়ত।
স্থানীয়রা জানান, মাঝে মধ্যে সড়ক মেরামতের নামে কিছু ইট ভাঙ্গা রাস্তায় ফেললেও তা পর্যাপ্ত নয়। তাছাড়া অনেক সময় সড়কে নিয়মিত চলাচল করা সিএনজি ড্রাইভাররা নিজ খরচেই এসব খাদ-খন্দে ইট-কংক্রিট ফেলে। সড়কের অনেক স্থানে স্থানীয়রাও উদ্যোগ নিয়ে ইট-কংক্রিট ফেলার ঘটনাও ঘটেছে। কিন্তু এসব ইট-কংক্রিত ২-১দিন পরই বৃষ্টির পানিতে মিশে সড়ক কাদাযুক্ত ও পিচ্ছিল হয়ে ভয়ংকর আকার ধারন করে। জরুরী ভিত্তিতে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কটির ভাঙ্গা অংশগুলোর সংস্কার কাজ না করলে জন-ভোগান্তি আরো চরমে পৌঁছবে বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের আশঙ্কা,তাই এ ব্যাপারে কতৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

আর পড়তে পারেন