রবিবার, ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে ৫-৬টি চিরকুটে যা লিখে গেলেন আত্মহত্যাকারী আইয়ুব

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ২৫, ২০১৮
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

আমি মরে গেলে সবাই শান্তি, তবে তাই হোক। আমার মা বলে আমার জন্য নাকি উনি সকলের নিকট দোষী এবং কালার কিন্তু কেন দোষী তা আমি জানিনা। তাই আমি চলে গেলাম। আমার মৃত্যুর খবরটা যেন কাজল ও কুদ্দুছকে দেওয়া হয়। এভাবেই আবেগঘন বেশ কয়েকটি চিঠি লিখে যান চৌদ্দগ্রামে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যাকারী আইয়ুব আলী পাটোয়ারী (২৯)। সে উপজেলার পৌরসদর এলাকার পাঁচরা গ্রামের মৃত শফিকুর রহমানের পুত্র। স্থানীয় কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম পাটোয়ারী জানান, বৃহস্পতিবার ভোরে বসতঘরের ভুতুরের সাথে গামছা পেছানোর অবস্থায় তার লাশ দেখা যায়। ধারনা করা হয়েছে সে বুধবার রাতের যে কোন সময়ে সে গামছা পেছিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

একই চিরকুটের নিচে অপর লেখায় দেখা যায়; আমার মাকে দোষমুক্ত করে গেলাম, ভালো থেকো “মা”। কুদ্দুছকে যন্ত্রনামুক্ত করে গেলাম, ভালো থেকে “কুদ্দুছ”। কাজলকে ভয়মুক্ত করে গেলাম, ভালো থেকে “কাজল”। চিরকুটের এক কর্ণারে ছোট করে লিখে যান, এই তিনজন মানুষের ভালোর জন্যই আমি আমার জীবন উৎসর্গ করলাম, আল্লাহ এই তিনজন মানুষকে তুমি ভালো রেখো।
আবেগঘন লেখনির মাধ্যমে এই চিরকুটটিসহ বেশ কয়েকটি চিঠি পাওয়া যায় নিহত আইয়ুবের লেখা। এসব চিরকুটের লেখাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। ধারনা করা হচ্ছে পারিবারিক কোন কলহের কারণেই আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন আইয়ুব। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চিরকুটে লেখা মা ব্যতিত অপর ২ জনের মধ্যে কাজল আইয়ুবের স্ত্রী আর অপরজন পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার কুদ্দুছ দীর্ঘদিন আইয়ুবের সহকর্মী হিসেবে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ছুফুয়ার একটি ফ্যাক্টরীতে কর্মরত ছিলেন। এই বিষয়ে চিরকুটে প্রদানকৃত কুদ্দুসের নাম্বারে ফোন করলে সে জানান, আমি দীর্ঘদিন পূর্বে তার সাথে চাকুরীতে চৌদ্দগ্রাম ছিলাম। বর্তমানে আমি দশমিনার গ্রামের বাড়িতে থাকি। তার আতœহত্যার ঘটনাটি আমি শুনেছি। চিরকুটে আত্মহত্যার জন্য তার দায়ী থাকার বিষয়টি প্রকাশের ঘটনায় সে জানায়, হয়তো কোনভাবে ফাসানোর জন্যই তার নাম দেওয়া হয়েছে। কুদ্দুসের দেওয়া তথ্যমতে জানা যায়, নাটোরের বনপাড়া উপজেলার কাজলের সাথে বিগত ২০১৬ সালের ৩১ এপ্রিল আইয়ুবের বিবাহ সম্পন্ন হয়। এছাড়া চিরকুটে প্রদানকৃত কাজলের বোন সুমির নামে প্রদানকৃত নাম্বারে ফোন করলে কাজলের ভগ্নিপতি পরিচয়ে এক ব্যাক্তি ফোন রিসিভ করে। সে জানায়, কাজল আইয়ুব ছাড়াও ইতিপূর্বে ২টি বিবাহ বসে। আইয়ুব তার ৩নং স্বামী। কাজলের এসব কারণে তার সাথে দীর্ঘদিন ধরেই কোন ধরনের যোগাযোগ হয়না বলেও দাবী করে সে।
অপর একটি চিরকুটে কুদ্দুছের মোবাইল নাম্বার, তার বিস্তারিত ঠিকানা, কুদ্দুসের মায়ের মোবাইল নাম্বার, বড় ভাই, ছোট ভাই ও কুদ্দুসের স্ত্রীর মোবাইল নাম্বারসহ বেশ কয়েকটি মোবাইল নাম্বার লেখে যান। সে তার অপর চিঠিতে আরও লিখে যান, চিঠিতে প্রদানকৃত প্রত্যেকটি নাম্বার বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধিত। প্রত্যেকটি নাম্বারের বিপরীতে রেজিস্ট্রিকৃত ব্যাক্তির পূর্ণাঙ্গ নামও ঠিকানা সংগ্রহ করেই উক্ত চিঠিতে প্রদান করা হয়েছে বলেও দাবী করে সে। উক্ত চিঠির নিচে দেখা যায়, উপরোক্ত ব্যাক্তিদের মধ্যে যে কোন একজনকে গ্রেফতার করলেই মূল অপরাধী বের হয়ে আসবে। এছাড়াও বেশ আরও বেশ কয়েকটি চিরকুটে অস্পষ্ট কিছু বর্ণনাও পাওয়া যায়।
নিহতের প্রতিবেশী স্থানীয় আ’লীগ নেতা জামাল উদ্দিন পাটোয়ারী জানান, চিরকুটগুলো উদ্ধার করে পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে।
তদন্তের দায়িত্বে থাকা এস.আই আব্দুস সালাম জানান, আতœহত্যার ঘটনায় এবং চিরকুটগুলোর বিষয়েও তদন্ত চলছে।
চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল ফয়সল জানান, লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর বিস্তারিত জানা যাবে।

আর পড়তে পারেন