শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে সড়ক ছাড়াই ব্রীজ নির্মাণ, জনদুর্ভোগ চরমে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১১, ২০১৭
news-image

মো ঃ বেলাল হোসাইন, চৌদ্দগ্রামঃ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার মুন্সিরহাট ইউনিয়নে বিকল্প শাহ্ ফখরুদ্দিন সড়ক হিসেবে খ্যাত ফেলনা ও পেঁচাইমুড়ী গ্রামের মাঝখান দিয়ে বহমান রাস্তাটি নির্মাণ না করেই মাঠের মাঝে একটি ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছে। রাস্তাবিহীন ওই ব্রীজটি এলাকাবাসীর কোন কাজেই আসছে না। সড়কটি মুন্সিরহাট ইউনিয়নের বাহেরগড়া থেকে পেঁচাইমুড়ী পর্যন্ত অংশ ইতিপূর্বে ১৯৯৫ ইং সনে নির্মান করা হয়। নির্মানকৃত রাস্তাটির পেঁচাইমুড়ীর অংশ থেকে পেঁচাইমুড়ী গ্রামের শেষ সীমানা পর্যন্ত অংশটি প্রায় আইলের মতো দেখতে। যেখানে ২-১জন লোকের বেশি স্বাভাবিক চলাফেরাই করা দায়।
জানা যায়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের সেতু/কালভার্ট নির্মান প্রকল্প ২০১২-১৩ অর্থ বছরে পেঁচাইমুড়ী মন্তু মিয়ার বাড়ী হইতে ফেলনা আফরাজুল হক মজুমদারের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তাটির সীমানা দেখিয়ে বালুজুড়ী খালের উপর ২৬ ফুট দৈর্ঘ্যরে ব্রীজটি নির্মান করা হয়। ব্রীজটির ব্রীজটি চলাচলের কাজে ব্যবহার না হলেও স্থানীয়দের অলস কিংবা বিকেলের অবসর সময় কাটানোর স্থান হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।
এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার অন্যতম ব্যস্থ সড়ক শাহ ফখরুদ্দিন সড়কের বিকল্প সড়ক হিসেবে খ্যাত বাহেরগড়া থেকে ফেলনা পর্যন্ত সড়কটি ব্যতিত গ্রামবাসীর অভ্যন্তরীণ যোগাযোগের অন্য কোন রাস্তা নেই। রাস্তা সংশ্লিষ গ্রামের হাজার হাজার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল ফেলনা ও পেঁচাইমুড়ী সীমান্ত পর্যন্ত রাস্তাটির বাকী অংশ নির্মাণের। রাস্তাটি নির্মিত হলে স্কুল ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ও সাধারন মানুষের পাশ্ববর্তী খিরনশাল ও মুন্সিরহাট বাজারে এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতে দুরত্ব অনেক কমে যাবে। বর্তমানে ঐ গ্রামের লোকজন দেড়কোটা বাজার পেরিয়ে শাহ্ ফখরুদ্দিন সড়ক ধরে যাতায়াত করতে হয়।
দীর্ঘ বছর ধরে সড়কটির সংস্কার/মেরামত না হওয়ায় সড়কটির ফেলনা মোল্লা বাড়ী অংশ খাদে খন্দে জর্জরিত হওয়ায় বর্ষা মৌসুমে চলাচল প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ হয়ে যায় এলাকার স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের যাতায়াতও। এতে করে ছেলে-মেয়েদের পড়ালেখাও হুমকির সম্মুখিন হয়। স্থানীয় এক যুুবলীগ নেতা জানান, বর্ষা মৌসুমে সড়কের মোল্লা বাড়ীর অংশে বাইরের কোন লোকও (মেহমান) আসতে চায় না।
সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখা যায়, ইতিপূর্বে নির্মিত সড়কটির মুল অংশের (পেঁচাইমুড়ী অংশে) বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গে চলাচলেরও অনুপযুক্ত হয়ে পড়েছে। পাশাপাশি রাস্তার মুল অংশ দখল করে পেঁচাইমুড়ীর বিভিন্ন স্থানে প্রভাবশালীরা বাড়ী এবং সীমানা প্রাচীর নির্মান করে সড়কের মুল অংশ অত্যন্ত সংকুচিত করে ফেলেছে। যার কারনে ঐ অংশে সাইকেল ব্যতিত চলাচল দায়।
ভুক্তভোগী সাধারন মানুষের দাবী সড়কটির এই বাকী অংশ অতি দ্রুত নির্মাণের মাধ্যমে জনসাধারন, স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের যাতায়াতের দুর্ভোগ লাগবের।

আর পড়তে পারেন