রবিবার, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে স্বামীর নির্যাতনে চার মাসের অন্তঃস্বত্তা গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ, শাশুড়ী আটক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৪, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পাষন্ড স্বামীর নির্যাতনে পারভিন আক্তার (২০) নামের এক গৃহবধূর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। নিহত পারভিন উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের জামুকরা গ্রামের গার্মেন্টস্ শ্রমিক আবদুল করিমের স্ত্রী ও পাশ্ববর্তী কনকাপৈত ইউনিয়নের চন্দ্রপুর দক্ষিণ পাড়ার মো. মফিজুর রহমান এর তৃতীয় কন্যা।

এ ঘটনায় পারভিনের শ্বাশুড়ি সকিনা বেগমকে আটক করেছে পুলিশ। পাষন্ড স্বামী পলাতক রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পারভিন আক্তারকে প্রায় পাঁচ মাস আগে জামুকরা গ্রামের গার্মেন্টস্ শ্রমিক আবদুল করিমের সাথে সামাজিকভাবে বিয়ে দেয়া হয়। বর্তমানে পারভিন আক্তার চার মাসের অন্তঃস্বত্তা ছিল। আবদুল করিম ঢাকায় ভগ্নিপতির বাসায় থেকে গার্মেন্টসে চাকরী করতো। এ সুবাধে দেড়মাস আগে পারভিনকে ঢাকায় নেয়। দীর্ঘদিন ধরে গার্মেন্টসে কাজ না করায় পারভিন তাকে বকা দেয়।

এতে আবদুল করিম ক্ষীপ্ত হয়ে স্ত্রী পারভিন আক্তারের পেটে লাথি মারে। এরপর সে অসুস্থ্য হয়ে পড়লেও তার চিকিৎসা করানো হয়নি। অসুস্থতা বাড়তে থাকায় গত ১৯ এপ্রিল পারভিনকে স্বামীর বাড়ি জামুকরায় পাঠিয়ে দেয়া হয়। পরদিন আবদুল করিমও বাড়িতে আসে। পারভিনের মা-বাবা খবর পেয়ে দুইদিন পরে পারভিনকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যায়। কয়েকদিন পর তাকে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। শুক্রবার সকালে পারভিনের মৃত্যু হলে লাশ তার বাবার বাড়ি চন্দ্রপুরে আনা হয়।

তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশের একটি টিম লাশটি উদ্ধার শেষে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। অপরদিকে এঘটনায় নিহত পারভিনের শ্বাশুড়ি সকিনা বেগমকেও আটক করা হয়। এবিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় মহিলা মেম্বার নাসিমা বেগম বলেন, আমি বাড়ীতে ছিলাম না, বাড়ীতে এসে খবর পেয়ে পারভিনদের বাড়ীতে গিয়ে বিস্তারিত জানতে পারি। আমি চাই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের উপযুক্ত সাজা হোক। এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই আবদুস সালাম বলেন, এ ঘটনায় নিহত পারভিনের শ্বাশুড়িকে আটক করা হয়েছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

আর পড়তে পারেন