বুধবার, ১৪ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে সোনালী ব্যাংক দুর্ণীতির উর্বর ভূমি, অতীষ্ঠ গ্রাহকরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৫, ২০১৭
news-image

বেলাল হোসাইন, চৌদ্দগ্রাম ঃ
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম শাখা সোনালী ব্যাংকে সব অনিয়ম ও দুর্নীতিকে নিয়মে পরিণত করছে কর্মকর্তারা। সেখানে টাকা ছাড়া নড়ে না কোন চেক বা ফাইল। অনেক ক্ষেত্রে কর্মকর্তারা সরাসরি টাকা না নিয়ে দালাল দিয়ে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেয় বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এক কথায়, দালাল চক্রের কবলে পড়ে ব্যাংকের গ্রাহকরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন।
সরেজমিন ঘুরে জানা গেছে, উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের আঠারবাঁক গ্রামের আবাদ মিয়ার নেতৃত্বে ৭-৮ জন দালাল সোনালী ব্যাংকে গ্রাহকদের টাকা উত্তোলন সংক্রান্তে ব্যাংক অফিসারদের সহযোগিতা করে থাকে। ব্যাংক কর্মকর্তা ও দালালচক্রসহ সবার জন্য ঋণ গ্রহীতাদের থেকে ১৫-২০% টাকা কেটে রাখে। সব কিছু দেয়ার পরে নামমাত্র টাকা নিয়ে বাড়ি ফিরলেও ঋণের বোঝা ঋণগ্রহীতাদের মাথায় থাকে। এছাড়াও ঋণ গ্রহীতরা ব্যাংকের জুনিয়র অফিসার আবদুল মান্নান ও নুরুল আমিনকে খুশি করতে ব্যাংকে প্রবেশের আগেই দালাল চক্রের মাধ্যমে বেনসন সিগারেট কিনে দিতে দেখা যায়।
রোববার অফিস চলাকালীন সময়ে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জুনিয়র অফিসার আবদুল মান্নান ও নুরুল আমিন অফিসে বসে দিব্যি আরামে সিগারেট টানছেন। ওই সময় মুক্তিযোদ্ধা ও পেনশানভোগীরা টাকা উত্তোলন করতে এসে সিগারেটের ধোঁয়ায় বিরক্তবোধ হয়ে সিগারেট টানা থেকে বিরত থাকার জন্য বলা হলে তারা বলেন, সিগারেট খাওয়া তেমন দোষের কিছু নয়। লুঙ্গি পরিহিত দালালরা ঋণ গ্রহীতাদের বিভিন্ন টেবিলে আনা-নেওয়া করতে দেখা গেছে। এ বিষয়ে জুনিয়র অফিসার দুইজনের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন, ব্যাংকের স্টাফ নেই, তাই বাইরের লোকেরা সহযোগিতা করছে। এতে সমস্যা কোথায়?
এ বিষয়ে ব্যাংক ব্যবস্থাপক মোঃ আবাদ হোসেন জানান, ‘কোন প্রকার অভিযোগ পাইনি। এখন আপনাদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি, এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে’।
অপরদিকে সোনালী ব্যাংক কুমিল্লা অঞ্চলের ডিজিএম আনোয়ার ইকবাল বলেন, ‘আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দিলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে’।

আর পড়তে পারেন