শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে মিথ্যা মামলায় আজিজদের হয়রানির অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৭, ২০১৭
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
জমি জমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা ৪নং শ্রীপুর ইউনিয়ন খেয়াইশ পশ্চিম পাড়ায় তিন ভাই মিলে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আপন ভাই মোঃ দেলোয়ার হোসেনকে (৩৫ ) হত্যা করে ।

এ ঘটনায় চৌদ্দগ্রাম থানায় নিহত মোঃ দেলোয়ার হোসেন এর স্ত্রী সানজিদা আক্তার ৫ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। চৌদ্দগ্রাম থানার পুলিশ এই ঘটনার সঙ্গে যারা যারা জড়িত তাদের মধ্যে দেলোয়ারের এক ভাই হারুনুর রশিদ (৪৫) এবং হারুনের স্ত্রী নাসিমা আক্তারকে (৩২) গ্রেপ্তার করেছে । অন্য দুই ভাই পলাতক রয়েছে।

নিহত দেলোয়ার হোসেন খেঁয়াইশ গ্রামের প্রয়াত হাসমত আলীর ছেলে ।

জানা যায়, দেলোয়ার হোসেন এর তিন শতক জমি বিক্রি করার প্রস্তাব দিলে হারুনুর রশিদ এলাকার লোকজনকে স্বাক্ষী রেখে দেলোয়ারের কাছ থেকে তিনশতক জমি ছয় লক্ষ টাকা দিয়ে খরিদ করে । ছয় লক্ষ টাকার মধ্যে তিন লক্ষ টাকা নগদ দেলোয়ারকে দেয় । বাকি তিন লক্ষ টাকা দুই মাস পর দেওয়ার কথা ছিল। দুই মাস পর দেলোয়ার হারুনের কাছে টাকা চাইলে, হারুন দেলোয়ারকে খারাপ আচরন করে । দেলোয়ার এলাকার লোকদেরকে নিয়ে হারুন এর কাছে টাকার কথা বললে হারুন জানিয়ে দেয় হারুন আর টাকা দিতে পারবেনা । হারুন তার তিন লক্ষ টাকা ফেরত চায়। অবশেষে দেলোয়ার হারুনের তিন লক্ষ টাকা ফেরত দিয়ে দেয় । কিছু দিন পর দেলোয়ার তার চাচা মোঃ আবূল হাশেম এর কাছে জমি বিক্রি করে । এই জমি বিক্রি করাকে কেন্দ্র করে ,জমিজমার ভাগ নিয়ে ভাইদের মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। এর মধ্যে হারুনুর রশিদ, জাফর আহম্মেদ ও জাকির হোসেন একদিকে , অন্যদিকে দেলোয়ার হোসেন । এক র্পযায়ে ঝগড়া করতে করতে দেলোয়ারকে তিন ভাই মিলে লাঠিপেটা করেন এবং লাঠি দিয়ে আঘাত করার পরও ক্ষিপ্ত হয়ে বড় একটি ছেনি নিয়ে এসে দেলোয়ারের উপর আক্রমন করে। দেলোয়ারের চিৎকার শুনে আবুল হাশেম ও আজিজুর রহমান তাকে বাচাঁনোর জন্য ছুটে আসলে আবুল হাশেম ও আজিজুর রহমানকে সহ হত্যার চেষ্টা করে। দেলোয়ারকে কুপিয়ে জখম করার পর তিন ভাই পালিয়ে যায় । এলাকাবাসী দেলোয়ার, আবুল হাশেম ও আজিজুর রহমানকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করে। হাসপাতালে পাঠানোর পর দেলোয়ার হোসেন এর মৃত্যু হয় ।

সূত্র জানায়, আসামি হারুন পরে চৌদ্দগ্রাম থানায় আবুল হাশেম ও আজিজুর রহমান ও সবিক গংদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন।
আজিজুর রহমান জানান, আসামিরা উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের করে আমাদের হয়রানি করার চেষ্টা করছে।

চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি আবুল ফয়সাল জানান, পাঁচ আসামির মধ্যে দুই জন গ্রেপ্তার হয়েছে । বাকি তিনজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে ।

আর পড়তে পারেন