মঙ্গলবার, ২রা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে মাদ্রাসা ছাত্রীকে এক বছর ধরে ফুসলিয়ে ধর্ষণ, ধর্ষক আটক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ১৫, ২০২১
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার:

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ২নং উজির পুর ইউনিয়নের কৈয়া গ্রামে এক প্রবাসীর মেয়ে মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

ভিক্টিমের পরিবার ও ছেলের পরিবারের পাল্টা পাল্টি মামলা, ধর্ষক আটক। নবজাতকের বাবার পরিচয় চায় মেয়ের পরিবার। এই ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। ঘটনাটি সুষ্ঠ তদন্ত করে বিচার দাবী করে ধর্ষীতার পরিবার।

মামলা সূত্রে জানাযায়, উপজেলার চক লক্ষীপুর এলাকার কৈয়া গ্রামের আবুল খায়ের এর ছেলে সাইমুন ইসলাম একই এলাকার রেহেনা বেগমের মেয়ের সাথে ছুফুয়া ছফরিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসায় পড়া কালীন এক সাথে যাতায়াত করত ও পরে উচ্চ মাধ্যমিকে পড়া কালীন সময়ে গত বছরের মার্চ মাস থেকে ঐ ছাত্রীকে ফুসলীয়ে ধর্ষণ করে ও ভিডিও ধারণ করে । ধর্ষনের ভিডিওটি ধারণ করার ফলে ভিক্টিম কোন ধরনের প্রতিবাদ করতে পারেনি।
ভিক্টিম জানায়, ছোটবেলা থেকেই তারা দুজন একসাথে মাদ্রাসায় যাওয়া আসা করত। দুজনই ছুফুয়া মাদ্রাসায় পড়ালেখা করত। তখন থেকেই তাদের মধ্যে স্বক্ষতা গড়ে উঠে তাকে বিভিন্ন সময় ফুসলিয়ে ও ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে গত এক বছর ধরে ধর্ষণ করে আসছে।

ভিক্টিমের মা রেহেনা বেগম জানায়, ছেলের পরিবার মেয়ের পরিবারের অভিভাবক চাচা সদ্য প্রবাস ফেরত দুলালকে প্রধান আসামী করে মোট চারজনের বিরুদ্ধে চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ বিষয়ে এড. নঈমূল হক মজুমদার জানায়, এই সমস্যাটি দেশের একটি সর্বজনিন সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে । এসকল সমস্যা সমাধানে সামাজিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধ মেনে চলতে হবে। অভিবাবকদের আরও সচেতন হতে হবে।

আর পড়তে পারেন