বুধবার, ৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামে চেতনা নাশক ঔষধ খাইয়ে নিজ মেয়েকে ধর্ষণ, গ্রেফতার বাবা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ৩১, ২০২১
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে আমের জুসের সাথে চেতনা নাশক ঔষধ খাইয়ে স্কুলপড়ুয়া নিজ মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে বাবা লিটন মিয়াকে (৪৫) আটক করেছেন পুলিশ। ধর্ষণের শিকার হওয়া ১৭ বছরের মেয়েটি স্থানীয় একটি স্কুলের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী।

চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের রামরায়গ্রাম এলাকায়।

আটককৃত লিটন মিয়া নেত্রকোনা জেলার আটপাড়া উপজেলার মরাকান্দা গ্রামের বাসিন্দা, সে একজন রিক্সাচালক। এ

ঘটনায় ধর্ষিতার মা হাজেরা বেগম বাদী হয়ে স্বামী লিটন মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ ঘটনার সত্যতা পেয়ে ধর্ষক লিটনককে আটক করে সোমবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করেন।

চৌদ্দগ্রাাম থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কাদের জানান, গত ৭ এপ্রিল লিটন মিয়া আমের জুসের সাথে চেতনা নাশক দ্রব্য খাইয়ে অচেতন করে তার মেয়েকে ধর্ষণ করে। এছাড়াও বিভিন্ন সময় ভয় দেখিয়ে মেয়েকে একাধিক বার ধর্ষণ করে। বিষয়টি মেয়ে তার ছোট বোনকে জানালে ছোট বোন মা হাজেরাকে জানায়। পরে হাজেরা ৩০ মে স্বামী লিটন মিয়ার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

ধর্ষিতার মা হাজেরা বেগম জানান, তিনি একজন মাটি কাটার শ্রমিক। প্রতিদিনের ন্যায় তিনি মাটি কাটতে চলে যান। ঘটনার প্রথম দিনে লিটন মিয়া রিক্সা চালিয়ে চৌদ্দগ্রাম বাজার থেকে আমের জুস কিনে নিয়ে তার সাথে চেতনা নাশক দ্রব্য খাইয়ে তার মেয়েকে একাধিকবার ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ঘটনা প্রকাশ করলে হত্যার হুমকি দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শুভরঞ্জন চাকমা জানান, ধর্ষিতার মায়ের অভিযোগ পেয়ে আমরা মামলা গ্রহণ করি। অভিযুক্ত লিটন মিয়াকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে ও ভিকটিমের মেডিকেল সম্পন্ন করতে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

 

আর পড়তে পারেন