সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চৌদ্দগ্রামের শ্রীপুরে বেপরোয়া সন্ত্রাসী গ্রুপ: দুই ব্যবসায়িকে কুপিয়ে নগদ অর্থ লুট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের শ্রীপুর ইউনিয়নে বেপরোয়া হয়ে পড়েছে সন্ত্রাসী গ্রুপ । চলছে চাদাঁবাজি। চাদাঁ না পেলেই হামলা-লুট-শারিরীক নির্যাতন। চলতি মাসের ৬ ও ৭ সেপ্টেম্বর শ্রীপুরের গোপাল নগর গ্রামের মদিনা মার্কেটে হামলার ঘটনা ঘটে। শ্রীপুরের বাসিন্দা আলী মিয়ার দুই ছেলে আবুল কালাম (৩৫) ও মাইন উদ্দিনকে (৩০) কুপিয়ে দুই দোকানের নগদ ৩ লক্ষ টাকা লুট করে নিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা। ভাংচুর করে ৩ লক্ষ টাকার ক্ষতি করে।

এ ঘটনায় আহত ব্যবসায়ির ভাতিঝা মো: মোবারক হোসেন ফারুক (৩৫) ৭ সেপ্টেম্বর চৌদ্দগ্রাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার আসামিরা হলেন, শ্রীপুর ইউনিয়নের জশপুর গ্রামের মৃত. মো: আলী আহাম্মদের ছেলে মো: হাফেজ আব্দুর রশিদ (৫০), আব্দুর রশিদের ছেলে মো: আবু সালেহ (২৪), মৃত. সফিকুর রহমানের ছেলে মো: ইউনুস মিয়া (২৫), নালঘর গ্রামের মৃত. টুক্কন আলীর ছেলে ফুল মিয়া (৫০) ও মো: শহিদ (২৭), ফুল মিয়ার ছেলে আব্বাস (২৪), আব্দুল কাদেরের ছেলে সাইফুল (২৮) ও আবুল কালামের ছেলে মো: রিপন (২২), গোপালনগর গ্রামের মৃত. কলিম উদ্দিনের ছেলে বজলুর রহমান (৫৫), বজলুর রহমানের ছেলে রেদোয়ান (২২), আব্দুর রশিদের ছেলে আব্দুল মতিন (৫০),আব্দুল মতিনের ছেলে বাবুল মিয়া (২২), আবু তাহেরের ছেলে শাহ আলম (২৫) ও আল-আমিন (২১), তারাপুস্কুরণী গ্রামের মৃত. সালামত উল্লাহর ছেলে গোলাম কিবরিয়া (৩৫) ।

আহত ব্যবসায়ির ভাতিঝা মো: মোবারক হোসেন ফারুক থানায় লিখিত অভিযোগে জানান, অভিযোগে উল্লেখিত আসামিরা পূর্বে আমার পিতা নাছির উদ্দিন ডিলারের কাছে চাদাঁ দাাবি করে না পেয়ে তার দোকান ভাংচুর করে। এরপর আমার পিতা বাদি হয়ে তাদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করে। যার সিআর মামলা নং-৪৪৬/২১ । আমি ও আমার দুই চাচা আবুল কালাম ও মাইন উদ্দিন এই মামলায় সাক্ষী হওয়ায় আমাদের প্রাননাশ করার জন্য তারা চেষ্টা করতে থাকে। ৬ সেপ্টেম্বর দুপুর সোয়া ২ টার দিকে এই সন্ত্রাসীরা দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে আমার উপর হামলা করে। এই সময় আমার দুই চাচাসহ স্থানীয়রা আমাকে রক্ষা করে। এ ঘটনায় আমার চাচা আবুল কালাম বাদি হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করলে তারা আরো ক্ষেপে যায়। ৭ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৭ টায় আমার দুই চাচা প্রতিদিনের ন্যায় তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে আসলে এসব সন্ত্রাসীরা ধারালো চাপাতি, চাকু, রামদা, লাঠি-সোঠা নিয়ে চাচাদের উপর হামলা করে। তারা আমার চাচা আবুল কালামের মাথার পিছনে, মাথার সামনে, ডান হাতে, পিঠে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এরপর তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে তারা লাঠি-সোঠা দিয়ে মারধর করে উনার শরীরের বিভিন্ন অংশে নীলা-ফোলা থেতলানো জখম করে। এ সময় আমার আরেক চাচা মাইন উদ্দিন এগিয়ে আসলে তারা উনার গলা চিপে হত্যার চেষ্টা করে এবং কপালের ডান পাশে কুপিয়ে রক্তাক্ত করে। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন অংশে মারধর করে গুরুতর আহত করে। সন্ত্রাসীরা আমার চাচা আবুল কালামের দোকানের ক্যাশে থাকা বিকাশের লেনদেনের নগদ ২ লক্ষ টাকা ও এক লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে। এছাড়া দোকান ভাংচুর করে ৩ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে।

আহতদের প্রথমে চৌদ্দগ্রাম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করে। পরে এই সন্ত্রাসীরা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও এসে আমার চাচাদের উপর হামলা করে। এ ঘটনায়ও থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি। এর আগে বজলুর রহমানের নেতৃত্বে চলতি বছরের ১০ জুলাই আমার বাবার দোকান ভাংচুর করা হয়। পরে ওইদিনই আমাদের বাড়িতে এসে বাড়িঘর হামলা করে ভাংচুর করে ৩ লক্ষ টাকার ক্ষতিসাধন করে। এ ঘটনায় আমার বাবা বাদি হয়ে চৌদ্দগ্রাম থানায় অভিযোগ দায়ের করে। ২০১৬ সালে শ্রীপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে বজলুর রহমানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আলী আহমেদ, মোস্তফা, আমীর হোসেন, আলকাছ, ওয়াসিম, আব্দুর রহমান, আলী মিয়া, ওয়াসিমসহ ৮ জনকে কুপিয়ে আহত করে। ২০১০ সালেও বজলুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। সে মামলায় সে জামিনে রয়েছে। বজলুর রহমানের নেতৃত্বে এই সন্ত্রাসী গ্রুপের অত্যাচারে মানুষ অতীষ্ঠ রয়েছে। আমরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এদিকে সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ শ্রীপুর ইউনিয়নের গোপালনগর এলাকার পূর্বের একটি মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি নুরুল হক, মতিন ও কাশেমকে গ্রেফতার করেছে।

 

আর পড়তে পারেন