সোমবার, ৮ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনা পৌর নির্বাচন: প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে আ’লীগে চরম কোন্দল  

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২৬, ২০২০
news-image

 

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:

কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে আ’লীগে এখন চরম কোন্দল বিরাজ করছে। পৌর মেয়র মো. মফিজুল ইসলামকে নৌকা প্রতিকের মনোনয়ন না দেয়া এবং বিভিন্ন ওয়ার্ডে পুরাতন কাউন্সিলরদের মনোনয়ন না দেয়ার আশংকায় চান্দিনা আ’লীগে দেখা দিয়েছে কোন্দল। কোন্দল দৃশ্যমান না হলেও আ’লীগের ঐক্য যে ভাঙ্গনের মুখে তা আর বলার উপেক্ষা রাখে না। দলীয় মনোনয়ন না পেলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেয়র মফিজ। ফলে নৌকা প্রতিকের প্রার্থীর বিজয় অনেকটাই অনিশ্চিত বলা যায়, কারণ আ’লীগের ভোট এখন দুভাগ হয়ে যেতে পারে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, সবাই ভেবেছিল বর্তমান পৌর মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম মেয়র পদে পুনরায় নৌকার প্রতিক পাবে। স্থানীয় সাংসদ অধ্যাপক আলী আশরাফও মফিজুল ইসলামের পক্ষেই ছিলেন বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়। অপর দিকে উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মো. শওকত হোসেন ভূইয়ার পক্ষে ছিলেন এমপির ছেলে উপজেলা আ’লীগের সভাপতি মোন্তাকিম আশরাফ টিটু। দিন শেষে মনোনয়ন পেয়ে সবাইকে চমকে দেন শওকত হোসেন ভূইয়া। এরপরই মূলত আ’লীগে অর্ন্ত:কোন্দল শুরু হয়। বর্তমান মেয়র মফিজও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ঘোষণা দেন। এখন নেতাকর্মীদের মধ্যে সংশয় দেখা দিয়েছে। আ’লীগের ভোট কে পাবেন এটাই এখন ধোয়াশা। ৫ বছর পৌর মেয়র ও পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদকের পদে দায়িত্ব পালন করা মফিজের মাঠ প্রায় গোছানো । অপরদিকে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী শওকত হোসেন সেই গোছানো মাঠ কতটুকু নিজের নিয়ন্ত্রণে আনতে পারবেন এখন সেটাই প্রশ্ন ।

এ বিষয়ে জানতে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মো. শওকত হোসেন ভূইয়ার মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক বর্তমান মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম জানান, পৌর এলাকায় আমার জনপ্রিয়তা ৭০ ভাগ। সাধারণ ভোটার ও তৃণমূল নেতাকর্মীদের আশ্বাস, সমর্থন ও ভালবাসা নিয়ে আমি অবশ্যই নির্বাচনে অংশগ্রহণ  করবো। আর নৌকা যে ব্যক্তি পেয়েছে, তার হাতে নৌকা নিরাপদ নয়। ভুল লোকের হাতে নৌকা প্রতিক দেয়া হয়েছে। আমি স্বতন্ত্র থেকেই নির্বাচন করে ইনশাল্লাহ জয়ী হবো।

এদিকে চান্দিনার বিভিন্ন ওয়ার্ডে চলমান কাউন্সিলরদের অনেকেই দলীয় মনোনয়ন পাবেন না বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। ৩ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর তাজুল ইসলামের পরিবর্তে পৌর উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সম্পাদক মোখলেছুর রহমানের ছেলে প্রবাস ফেরত রুবেল মনোনয়ন পেতে পারেন বলে জানা গেছে। কাউন্সিলর তাজুল ইসলাম এলাকায় বেশ জনপ্রিয় বলে বিভিন্ন জন দাবি করেছে।

৫ নং ওয়ার্ডে প্যানেল মেয়র কাজী জাফর উল্লাহ আজাদকে সরিয়ে এমপি আলী আশরাফের ভাইরার ছেলে তোফায়েল আহমেদ জনিকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। স্থানীয় সূত্রমতে, কাজী জাফর উল্লাহ আজাদ এলাকায় বেশ জনপ্রিয়। রাজনৈতিক জীবনে তিনি এমপি আলী আশরাফের একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে স্বীকৃত। গত সাংসদ নির্বাচনেও অধ্যাপক প্রাণ গোপালের গ্রুপে অনেকেই চলে গেছেন বা গোপনে আতাত করলেও কাজী জাফর উল্লাহ আজাদ ছিলেন ব্যতিক্রম। তিনি আলী আশরাফের বাইরে যাওয়ার চিন্তে করেন নি। স্থানীয় সূত্র জানান, কাজী জাফর উল্লাহ আজাদকে দলীয় মনোনয়ন না দিলে তা হবে আত্মঘাতি সিদ্ধান্ত।

৬ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর সুরুজ ভূইয়াকে পরিবর্তন করে পৌর যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলামকে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর ২৭ বছর ধরে জনপ্রতিনিধিত্ব করা মিনুয়ারা বেগমকে সরিয়ে ডা. প্রাণ গোপাল সমর্তিত মোর্শেদা বেগমকে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। ৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর নাসরিনকে মনোনয়ন নাও দেয়া হতে পারে। এ জায়গায় ডা. প্রাণ গোপালের সমর্থক আমেনা আক্তারকে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে।

ফলে মনোনয়ন পরিবর্তনের ফলে বিভিন্ন ওয়ার্ডে অর্ন্তকোন্দল বাড়তে পারে। তবে কয়েকটি ওয়ার্ডে কিছু কাউন্সিলরের ব্যাপক নেতিবাচক কর্মকান্ডের কারণে আ’লীগের ইমেজ চরমভাবে ক্ষুন্ন হয়েছে।

এফবিসিসিআইয়ের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও চান্দিনা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোন্তাকিম আশরাফ টিটু আজকের কুমিল্লাকে জানান, ২৭ ডিসেম্বর পৌর আ’লীগের মিটিং অনুষ্ঠিত হবে। ওই মিটিংয়ে আশা করি মনোমালিন্য শেষ হয়ে যাবে। শেষ পর্যন্ত পৌর মেয়র মফিজ সাহেব নির্বাচন করবে না বলে আমি মনে করি। তিনি নৌকা প্রতিকের পক্ষেই কাজ করবেন। আর যদি শেষ পর্যন্ত তিনি দলের বাইরে গিয়ে নির্বাচন করেন তাহলে আ’লীগের ভোটব্যাংকের তেমন ক্ষতি হবে না। কারণ দলের বাইরে গিয়ে কেউ ভোট দিবে না। তিনি ব্যক্তিগত ভোট হয়তো কিছু পাবেন। বেশিরভাগ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী পরিবর্তনের বিষয়ে তিনি বলেন, জনপ্রিয়তার ভিত্তিতে গণতান্ত্রিক উপায়ে প্রার্থী মনোনয়ন দেয়া হবে। অনেকেই আছেন যাদের জনপ্রিয়তা ছিল, কিন্তু ৫ বছরে নেতিবাচক কর্মকান্ডের কারণে জনপ্রিয়তা হারিয়েছেন, এমন লোকজন মনোনয়ন পাবে না। দলই সিদ্ধান্ত নিবে কারা মনোনয়ন পাবে। তবে যোগ্য ব্যক্তিরাই মনোনয়ন পাবে।

এ দিকে মেয়র পদে ৭ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছেন জেলা রিটার্নিং অফিসার ও সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা মো. শওকত হোসেন ভূইয়া, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক বর্তমান মেয়র মো. মফিজুল ইসলাম, বিএনপি মনোনীত প্রার্থী ও পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র শাহ মো. আলমগীর খান, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক মেয়র মো. আবদুল মান্নান সরকার, চান্দিনা বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী মো. শামীম হোসেন, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি এলডিপি মনোনীত প্রার্থী মো. জামশেদ আহমেদ জাকি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী কাজী রেজাউল করিম। এছাড়া সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৭জন প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়। অপরদিকে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৯ জন প্রার্থীর মধ্যে ৪৭ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়।

আগামী ১৬ জানুয়ারি ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে এই পৌরসভায়। এই পৌরসভায় মোট ভোটার প্রায় ৩২ হাজার।

আর পড়তে পারেন