মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনায় ৩৮ বছর ধরে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন আশরাফ-রেদোয়ান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২১, ২০১৮
news-image

ডেক্স রিপোর্টঃ

কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা) আসনে  নির্বাচনের মাঠে ৩৮ বছর ধরে একে অপরের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।  এর মধ্যে রেদোয়ান চারবার ও আলী আশরাফ দুবার জয়ী হয়েছেন। এবার সংসদ নির্বাচনেও তাঁরা লড়াইয়ে আছেন।

রেদোয়ান বিভিন্ন সময় বিএনপি, জাতীয় পার্টি, স্বতন্ত্র ও এলডিপির হয়ে নির্বাচন করেছেন। এবার তিনি এলডিপি থেকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। অন্যদিকে আলী আশরাফ বরাবরই আওয়ামী লীগ থেকে ভোট করছেন। রেদোয়ান মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও আলী আশরাফ ডেপুটি স্পিকার ছিলেন।

এবার আওয়ামী লীগে কোন্দলের কারণে আলী আশরাফের এবং বিএনপির নেতা-কর্মীদের অনীহার কারণে রেদোয়ানের জন্য নির্বাচনে জেতা চ্যালেঞ্জিং হবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা। তবে এই দুই নেতা তা মনে করছেন না।

তবে এলডিপির চান্দিনা উপজেলার সাধারণ সম্পাদক মো. আতিকুর রহমান বলেন, ভোটের রাজনীতিতে রেদোয়ান আহমেদ চান্দিনায় বড় ফ্যাক্টর। নির্বাচনে জেতার সব কৌশল ও জনসমর্থন তাঁর আছে।

উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন আলম বলেন, ‘আশরাফ ভাই এই আসনের মাটি ও মানুষের নেতা। তিনি ১৯৭০ সাল থেকে নির্বাচন করছেন। চান্দিনার উন্নয়ন করেছেন। উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ছিলেন। আদর্শ নিয়ে রাজনীতি করেন। নৌকার কাছে সব ম্লান হয়ে যাবে। এবারও তিনি জয়ী হবেন।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার দপ্তর সূত্রে জানা যায়, ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আলী আশরাফ আওয়ামী লীগের (মালেক) পক্ষ থেকে নির্বাচন করে বিএনপির প্রার্থী রেদোয়ান আহমেদের কাছে ৬ হাজার ৩৭৫ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। ১৯৮৬ সালের ৭ মে রেদোয়ান জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচন করে আলী আশরাফকে পরাজিত করেন। ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি আলী আশরাফ স্বতন্ত্র প্রার্থী রেদোয়ানের কাছে ৫৪৮ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। ১৯৯৬ সালের ১২ জুন আলী আশরাফ বিএনপির প্রার্থী রেদোয়ানকে ৩৬৬ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেন। ২০০১ সালের ১ অক্টোবর আলী আশরাফ রেদোয়ানের কাছে প্রায় ৫০ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর আলী আশরাফ ৫ হাজার ৫৭০ ভোটের ব্যবধানে বিএনপির প্রার্থী খোরশেদ আলমকে পরাজিত করেন। রেদোয়ান তখন এলডিপি থেকে নির্বাচন করে ১৪ হাজার ২৭৬ ভোট পান। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আশরাফ জয়ী হন।

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির ছয়জন নেতা বলেন, এই আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চেয়েছিলেন উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রাণ গোপাল দত্ত। তিনি মনোনয়ন না পাওয়ার পর দলের একাংশের নেতা-কর্মীরা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। এ সময় চান্দিনায় প্রাণ গোপালের অনুসারীরা কেউ কেউ আলী আশরাফের নেতা-কর্মীদের হাতে মারধরের শিকার হন। পরে প্রাণ গোপাল দত্ত এলাকায় এসে নেতা-কর্মীদের নৌকার পক্ষে কাজ করার নির্দেশ দেন। অপরদিকে রেদোয়ান আহমেদ বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দেন। উপজেলা বিএনপির প্রয়াত সভাপতি ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধেও মামলা করেন তিনি।

জানতে চাইলে রেদোয়ান আহমেদ বলেন, ‘চান্দিনায় যাঁরা বিএনপি করেন, তাঁদের ৮০ ভাগই আমার তৈরি কর্মী। তাঁরা প্রত্যেকেই জোটের স্বার্থে, গণতন্ত্রের স্বার্থে আমার সঙ্গেই আছেন।’

আলী আশরাফ বলেন, ‘চান্দিনা উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী সংগঠন, ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও সদস্যরা আওয়ামী লীগের সঙ্গে আছেন। আমার সঙ্গেই আছেন। জনগণ নৌকার পক্ষে রায় দেবেন।’

আর পড়তে পারেন