মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চান্দিনায় গরিবের ‘১০ টাকার’ চাল জনপ্রতিনিধির ঘরে, এক ইউপি মেম্বারের নামে ৫ কার্ড!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৬, ২০১৭
news-image

 

মো. জাকির হোসেন,চান্দিনাঃ
‘শেখ হাসিনার বাংলাদেশ, ক্ষুধা হবে নিরুদ্দেশ’ এই শ্লোগানে দেশের অসহায় ও অতিদরিদ্রদের মাঝে ১০টাকা কেজি দরে চাল বিতরণে খাদ্য বাস্তবায়ন কর্মসূচীর সুবিধা পাচ্ছেন না অনেক দরিদ্র জনগোষ্ঠি। উল্টো তাদের জন্য বরাদ্দকৃত চাল যাচ্ছে ধনীর ঘরে। ভাগ বসাচ্ছেন জনপ্রতিনিধিরাও। আর গরীরের ক্ষুধা পেটেই রয়ে যাচ্ছে।
এমন অভিযোগ রয়েছে কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাইজখার ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড মেম্বার ও ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান এর বিরুদ্ধে। পেশায় সারের ডিলার শাহজাহান। ইউনিয়নে রয়েছে সারের সাব ডিলার। প্রায় এক একর চাষাবাদী জমিও রয়েছে তার। রাজনৈতিক ভাবে ইউনিয়নের ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক এবং খুচরা সার বিক্রেতা সমিতি কুমিল্লা জেলার সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। সদ্য বিদায়ী শীত মৌসুমে নিজ এলাকায় ঘটা করে উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ রাজনৈতিক নেতাদের উপস্থিতিতে দরিদ্র শীতার্থদের মাঝে কম্বল বিতরণও করেন তিনি।
কিন্তু জনপ্রতিনিধি সমাজ সেবক ওই ব্যক্তিটি ইউনিয়ন পরিষদের হতদরিদ্র ব্যক্তিদের নামে বরাদ্দকৃত ১০টাকা কেজি চাউল এর কার্ড তার নিজের নামসহ স্ত্রী, মা-বোন ও ভাগ্নির নামে বরাদ্দের মাধ্যমে সুবিধা ভোগ করে আসছেন!
ক্ষমতায় আসলে জনগণকে ১০টাকা কেজি দরে চাউল দিবে এমন প্রতিশ্রুতিতে আওয়ামীলীগ সরকার গঠনের পর গত ২০১৬-১৭ অর্থ বছর থেকে কেজি প্রতি ২৩ টাকা ভর্তুকি দিয়ে দরিদ্র জনগোষ্ঠিকে ওই সুবিধার আওতায় আনেন খাদ্য মন্ত্রনালয়। কিন্তু ইউপি মেম্বার শাহজাহান এর মত আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতাদের স্বেচ্ছাচারিতায় সরকারের সেই উদ্যোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রকৃত হতদরিদ্ররা।
গত বছরের ৬ নভেম্বর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ইউপি মেম্বার শাহজাহান ও তার পরিবারের ৫ সদস্যের নামে কার্ড ইস্যু করেন। সেই থেকে প্রতি বরাদ্দে হতদরিদ্রের চাউল নিচ্ছেন ওই মেম্বার।
এ ঘটনায় এলাকায় আলোচনার-সমালোচনার ঝড় উঠে। সমালোচনা হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকেও। দলীয় সিনিয়র নেতাসহ প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে ফেইস বুকে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন এলাকার বহু মানুষ।
এব্যাপারে দায়িত্বরত অফিসার উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম জানান, আমি ডিলাদের সুষম চাউল বিতরণ করি, কিন্তু তালিকা করি নাই। তালিকা যেভাবে পেয়েছি সে ভাবেই বিতরণ করা হচ্ছে।
এব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মফিজুল ইসলাম জানান, এলাকার হতদরিদ্রদের তালিকা তৈরি করতে উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাসহ ইউনিয়নে কমিটি রয়েছে। ওই কমিটি যাদের নাম দিয়েছে তাদের নামেই কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। সেগুলো প্রকৃতপক্ষে যাচাই-বাছাই করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হয় উঠে না।
মাইজখার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শাহ্ সেলিম প্রধান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ওই মেম্বার আমার পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান। প্রতিটি বরাদ্দ কে পাবে বা কাকে দিতে হবে সেজন্য এলাকার মেম্বারদের উপরই দায়িত্ব দেই। কিন্তু তারা যদি নিজেরাই দরিদ্রের চাউল নিতে মরিয়া হয়ে উঠে সেজন্য আমার কি করার আছে।
চান্দিনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এসএম জাকারিয়া জানান, আমি খোঁজ নিচ্ছি। খাদ্য কর্মকর্তার সাথে আলোচনা সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এব্যাপারে অভিযুক্ত ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বার মো. শাহজাহান এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, আমার মত এমন অনেক মেম্বারই নাম দিয়েছে। চেয়ারম্যান সকল মেম্বারদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন আপনারা প্রত্যেকে ৫জন করে নাম দেন। সেই সুবাদে আমিও ৫টি নাম দিয়েছি।

আর পড়তে পারেন