শনিবার, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চাদঁপুরে এইচএসসিতে পাসের হার ৫৫.৬৫%, জিপিএ-৫ পেয়েছে ৭১

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৪, ২০১৭

জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে শীর্ষে চাঁদপুর সরকারি কলেজ , সার্বিক ফলাফলে শীর্ষে কচুয়া ড. মুনসুর উদ্দিন কলেজ

সিদ্দিকুর রহমান নয়নঃ

এবারের এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে কুমিল্লা বোর্ডের বিপর্যয় ঘটলেও কিছুটা মান ধরে রেখেছে চাঁদপুর জেলা। গড় পাসের হারে বোর্ডের চেয়ে এগিয়ে আছে চাঁদপুর জেলা। আর চাঁদপুর জেলার আট উপজেলার মধ্যে গড় পাসের হারে শীর্ষে আছে কচুয়া উপজেলা এবং সবচেয়ে ফলাফল বিপর্যয় ঘটেছে হাজীগঞ্জ উপজেলার কলেজগুলোতে। এদিকে জেলার ৫৬টি কলেজের মধ্যে জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে সেরা অবস্থানে আছে চাঁদপুর সরকারি কলেজ। এ কলেজের সার্বিক ফলাফলও এবার অন্যান্য বছরের তুলনায় অনেক ভালো হয়েছে। এছাড়া সার্বিক ফলাফল বিবেচনায় গতবারের মতো এবারো জেলার শীর্ষে রয়েছে কচুয়ার ড. মুনসুর উদ্দিন মহিলা কলেজ। এ কলেজ থেকে ৫ জন জিপিএ-৫ সহ শতভাগ পাস করেছে। জেলার আর কোনো কলেজে শতভাগ পাস করে নি। এদিকে মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ ও হাইমচর উপজেলায় কোনো জিপিএ-৫ নেই।

রোববার সারাদেশে একযোগে সাধারণ শিক্ষাবোর্ড, মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড ও কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৭ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়। এ ফলাফলে দেখা গেছে যে, দেশের আটটি সাধারণ বোর্ডের গড় পাসের হার হচ্ছে ৬৬.৮৪%। আর কুমিল্লা বোর্ডে পাসের হার হচ্ছে ৪৯.৫২ %। চাঁদপুর জেলার পাসের হার ৫৫.৬৫%। পাসের হারের দিক দিয়ে কুমিল্লা বোর্ড থেকে চাঁদপুর জেলা এবার এগিয়ে রয়েছে। এ জেলার ৫৬টি কলেজ থেকে এবার এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছে মোট ১৩ হাজার ৯শ’ ৬৭ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৭ হাজার ৭শ’ ৭৪ জন। আর জিপিএ-৫ পেয়েছে মোট ৭১ জন। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় চাঁদপুর জেলার ফলাফল এবার তেমন ভালো হয় নি।

জেলার ৫৬টি কলেজের ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে, সার্বিক ফলাফল বিবেচনায় জেলার শীর্ষ অবস্থানে আছে কচুয়া ড. মুনসুর উদ্দিন মহিলা কলেজ। এ কলেজ থেকে ১শ’ ৬ জন পরীক্ষা দিয়ে ৫ জন জিপিএ-৫সহ শতভাগ পাস করেছে। এছাড়া জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে জেলার শীর্ষে আছে চাঁদপুর সরকারি কলেজ। এ কলেজ থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৮ জন। কলেজ থেকে মোট পরীক্ষা দিয়েছে ৬শ’ ৭ জন, পাস করেছে ৩শ’ ৯৫ জন, পাসের হার ৬৫.০৭%। এদিকে ৮ উপজেলার মধ্যে ফলাফলে সবচেয়ে বিপর্যয় হয়েছে হাজীগঞ্জ উপজেলার। এ উপজেলায় পাসের হার ৩৯.১০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে মাত্র ৫ জন। উপজেলার ৮টি কলেজ থেকে মোট পরীক্ষা দিয়েছে ২ হাজার ৯শ’ ৯০ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ১ হাজার ১শ’ ৬৯ জন।

আর পড়তে পারেন