বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদপুরে নদীর মোহনায় বর-কনের ব্যতিক্রমী ফটোসেশন ফেসবুকে ভাইরাল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২১
news-image

 

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুরঃ
চাঁদপুর বড় স্টেশনে পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর মোহনায় বর-কনের ফটোসেশনে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে।

ব্যতিক্রমী এই আয়োজনের মূল কর্ণধার চট্টগ্রামের বাপ্পী হাসান বলেন, গত ১৫ জানুয়ারী চাঁদপুর শহরের একটি ক্লাবে স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর বিয়ের ছবি তোলার আমন্ত্রণ পাই। আমরা যখন চাঁদপুর আসি তখন চাঁদপুরের পদ্মা, মেঘনা ও ত্রি নদীর মোহনাটি চোখে পড়ে। আমার তখনই মনে হয়েছিলো এখানে ব্যতিক্রমী কিছু করি।

এদিকে চাঁদপুর ত্রি নদীর মোহনায় ফুল সজ্জিত নৌকায় বর কনের ওয়েডিং ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

ফেসবুক গ্রুপে মাহমুদুল হাসান নামে এক ব্যক্তি ছবিটি পোস্ট করে লিখেন- এই প্রথম চাঁদপুরের পদ্মা, মেঘনা, ডাকাতিয়া তিন নদীর মিলনস্থলে বর-কনে ব্যতিক্রম ফটোসেশন করেছে। নদীতে নৌকা সাজিয়ে বিয়ের স্মৃতি ধরে রাখতে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায় বর ও কনেকে। এতে দেড় হাজারের বেশি লাইক ও ৭০টির বেশি মন্তব্য করেছেন ফেসবুক ব্যবহারকারীরা।

এ বছরের গত ১৪ জানুয়ারি বিয়ে হয়েছে আর ওয়েডিং ফটোসেশন হয়েছে ১৫ জানুয়ারি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরের প্রতিবেশী ফাতেমা ভুইয়া। গতকাল ১৩ ফেব্রুয়ারি ছবিগুলো প্রকাশ করেন আয়োজনের কর্ণধার বাপ্পি হাসান।

লাক্সারী ওয়েডিং বাংলাদেশ এর ফেসবুক পেজে ছবিগুলো পোস্ট করে প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী বাপ্পী হাসান লিখেন, “পদ্মা, মেঘনা, ডাকাতিয়া তিন নদীর মিলন স্থল” বড় স্টেশন, চাঁদপুর”
বিয়ের ছবি তোলার জন্য বাংলাদেশের অনেক জেলাতেই যাওয়ার সুযোগ হয়েছে, তার ধারাবাহিকতায় এই বার যাওয়া হয়েছিলো চাঁদপুর।

চাঁদপুরে আসলাম আর চাঁদপুরের ইলিশ খাবো না তা কি আর হয়? সকাল সকাল সবাই মিলে ইলিশ ভাজা দিয়ে ভাত খেয়ে তারপর ফটোশুট করতে নেমেছি।

বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল দুপুরের চাঁদপুরের একটা ক্লাবে, আসলে আমরা চেয়েছিলাম যে করেই হোক চাঁদপুরের নদী-নৌকা নিয়ে কিছু ছবি তুলবো, তাই চাঁদপুরের বড় স্টেশন নামে একটা ঘাট আছে ওখানেই ছবি তুলবো আমরা আগে থেকেই প্ল্যান করে রেখে ছিলাম, তবে বর কনে সময় মতো স্পট আসতে পারবে কিনা সেটা নিয়েই ভয় ছিলো, আপু পার্লার থেকে আসবে তারপর ছবি তুলবো।
দিনটা ছিলো শুক্রবার। তাই বড় স্টেশন জায়গাটাতে অনেক মানুষ এর ভিড় ছিলো। আপু, ভাইয়া আসার পর সবাই খুব অল্প সময়ের মধ্যে ছবি গুলো তুলতে হয়েছে, ছবি তুলে আবার ক্লাবে যেতে হবে, মানুষের ভিড় সব মিলিয়ে খুব তাড়াহুড়ার মধ্যে ছবিগুলো তোলা।

আর পড়তে পারেন