শনিবার, ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদপুরে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে লিগ্যাল নোটিশ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৪, ২০১৭
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মো. পারভেজ করিম বাবুর বিরুদ্ধে বিবাহের তথ্য গোপন রেখে স্বপদে বহাল থাকার অভিযোগ এনে গত ২৩ আগস্ট লিগ্যাল নোটিশ প্রদান করেছেন মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি (হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগ ) ড. মো. ইউনুস আলী আখন্দ।
জানা যায়, গত ১২ জুলাই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভায় বিবাহিত নেতাদের পদ ছেড়ে দিতে ৭২ ঘন্টা সময় বেধে দেয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু উক্ত সিদ্ধান্তকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. পারভেজ করিম বাবু পদত্যাগ না করে গত ১৩ জুলাই ১৭ইং জেলা ছাত্রলীগের আওতাধীন শাহ্রাস্তি উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষনা করেন। যা সম্পূর্ন সংগঠন পরিপন্থি এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সিদ্ধান্তের অবজ্ঞার শামিল বলে অভিযোগ এনে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম বাহার গত ১৫ জুলাই ১৭ ইং বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর অভিযোগ দায়ের করেন। এতে তিনি বিবাহিত চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদকের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি জানান।
পরবর্তীতে গত ২৭ সেপ্টেম্বর ১৭ ইং আবারও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মো. খোরশেদ আলম বাহার বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি এর বরাবর বিবাহিত চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. পারভেজ করিম বাবু অদ্যাবধি সময় পর্যন্ত পদত্যাগ না করায় দ্রুত সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আরো একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
সর্বশেষ গত ২৮ সেপ্টেম্বর ১৭ ইং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭১ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জেলা ছাত্রলীগ ঘোষিত আনন্দ র‌্যালি সংবাদপত্রে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বয়কট করেন জেলা ছাত্রলীগের বেশির ভাগ নেতাকর্মী। বিজ্ঞপ্তিতে বর্তমান জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. পারভেজ করিম বাবু বিবাহিত ও অযোগ্য হওয়ার কারণ দেখিয়ে চাঁদপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগ, চাঁদপুর শহর ছাত্রলীগ, চাঁদপুর সরকারি বিশ^বিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগ ও চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি , সহ সভাপতি, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকবৃন্দ এক হয়ে কর্মসূচি বয়কট করেন এবং বিবাহিত সাধারণ সম্পাদক পদত্যাগ না করা পর্যন্ত ভবিষৎতে কোন কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণ করবেন না বলে উল্লেখ করেন। এ নিয়ে সমগ্র জেলা ছাত্রলীগের রাজনীতিতে ধুম্জাল সৃষ্টি হয়েছে।

 

আর পড়তে পারেন