মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদপুরের মহামায়ায় জনগুরুত্বপূর্ণ সিএন্ডবি খাল এখন অস্তিত্ব সংকটে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ১৬, ২০১৯
news-image

 

মাসুদ হোসেন,চাঁদপুর:

চাঁদপুর সদর উপজেলার ব্যাস্ততম ব্যবসা কেন্দ্র ঐতিহ্যবাহী মহামায়া বাজার। আর এ বাজারটি চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে ও সিএন্ডবি খালের তীর ঘেঁষে অবস্থিত। এ খালটি একসময় ব্যাপক জনগুরুত্বপূর্ণ খাল হিসেবে ব্যবহার হতো। অব্যবস্থাপনা ও সঠিক পদক্ষেপের কারনে হারিয়ে যেতে বসেছে ঐতিহ্যবাহী এ খালটি। পানি পথ হিসেবে খালটির উপর ভিত্তি করে বর্ষা মৌসুমে রাজারগাঁও, মেনাপুর, ধলাইতলীসহ উত্তরাঞ্চলের মানুষজন চলাচল করতো। মহামায়া বাজারের কোল ঘেঁষে বাঁধা থাকতো সারি সারি নৌকা। শুকনো মৌসুমে উৎপাদন হতো কৃষিজাত পণ্য। কিন্তু এখন আর সেই দৃশ্য দেখা যায় না। খালটির পরিস্থিতি এখন মৃতপ্রায়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, একসময়ের জনগুরুত্বপূর্ণ সিএমবি খালটি অব্যবস্থাপনার কারনে কচুরিপানা, কলমিলতাসহ আগাছা জন্মিয়ে হারিয়ে ফেলেছে তার আগের ঐতিহ্য। দেখলে বুঝা যাবে হয়তো কোন চাষকৃত ফসলি জমি। সেই সাথে দখলদারদের দৌরাত্ম্য তো আছেই। ডাকাতিয়া নদী থেকে বের হওয়া জমজমিয়া খালের সাথে একত্রিত হয়েছে এ খালটি। কিন্তু দখলদারদের দৌরাত্ম্যের কারনে পল্লী বিদ্যুৎ এলাকা পর্যন্ত এর প্রশস্ত কিছুটা খুঁজে পাওয়া গেলেও এরপর থেকে অস্তিত্ব পাওয়া দুর্বিসহ হয়ে পড়বে। ব্যাস্ততম এই বাজারে কোন বর্জ ফেলানোর মত নির্দিষ্ট স্থান না থাকায় খালের উপরই ফেলছে এসব বর্জ্য। বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, একটি সময় এ বাজারের পণ্য সামগ্রী পানি পথ হিসেবে আনা নেওয়া হতো এ খালটি দিয়ে। কিন্তু বর্তমান সময়ে তা আর হচ্ছে না। ব্যাস্ততম এ ব্যবসা কেন্দ্র মহামায়া বাজারে যদি কোন অগ্নিকান্ড ঘটে তাহলে নেভানোর জন্য পানি পাওয়া যাবে না। বাজার কেন্দ্রিক যাও একটি মসজিদ ছিল সেটিও গত কয়েক বছর আগে ভরাট হয়ে গেছে। আর এমন যদি হয় বর্তমান এ গুরুত্বপূর্ণ খালের অবস্থা, তাহলে ভবিষ্যতে এ অঞ্চলের কৃষি উৎপাদনসহ প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় ব্যাপক ক্ষতির সম্মূখীন হতে হবে।

এ বিষয়ে মহামায়া বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও সদর উপজেলার ৪নং শাহমাহমুদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান স্বপন মাহমুদের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি এ খালটির বিষয়ে অবগত আছি। খাল খনন করা আমাদের দায়িত্ব না। তবে প্রশাসনের অভিযানের মাধ্যমে সহযোগিতা পেলে দখলদারদের দৌরাত্ম্য রোধ ও খাল খনন করার জন্য সঠিক পদক্ষেপ নেওয়া যেতো। কিন্তু আমার একা পক্ষে তা সম্ভব হয়ে উঠছে না। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাজারের নির্দিষ্ট কোন স্থান না থাকায় সুইপাররা বাজারের সকল বর্জ এ খালটিতেই ফেলিয়ে যাচ্ছে, তবে সহসাই এর একটি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আর পড়তে পারেন