সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

চাঁদপুরের উপজেলা শহরগুলোতে মাস্ক ব্যবহার করলেও গ্রামাঞ্চলে উদাসীনতা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৯, ২০২০
news-image

 

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুরঃ

সারাবিশ্বে চলছে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ। এই ঢেউয়ে সংক্রমণের মাত্রার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে মৃত্যুর হারও। অনেক দেশ ইতোমধ্যে লকাডাউন ঘোষণা করেছে। কোনো কোনো দেশ জারি করেছে কারফিউ।

শীতে বাংলাদেশেও করোনা সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে সতর্ক করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। যদিও এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে কি-না তা কেউ বলতে পারছেন না। কিন্তু ইতোমধ্যে করোনায় সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার গত দুই মাসের তুলনায় বেড়েছে।

এ পরিপ্রেক্ষিতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কায় অন্যান্য প্রস্তুতির পাশাপাশি চাঁদপুরে চলছে মাস্ক ব্যবহারের পক্ষে ব্যাপক অভিযান। প্রশাসনের অভিযানে প্রতিদিন জরিমানা, মামলা ও মাস্ক পরিধানসহ করা হচ্ছে সচেতন। এসবের ভয়ে ও স্বল্পসংখ্যক সচেতনতায় শহরে মাস্ক ব্যবহার বাড়লেও গ্রামাঞ্চলে দেখা যায় মাস্ক ব্যবহারে উদাসীনতা।

বুধবার (৯ ডিসেম্বর) জেলার কয়েকটি প্রত্যন্ত অঞ্চল ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন বাজার থেকে শুরু করে পাড়া মহল্লায়, চা দোকানগুলোতে অবাধে মাস্ক ব্যবহার ছাড়া চলাচল করছে মানুষজন। অথচ মামলা বা জরিমানার ভয়ে শহরে প্রবেশের সময় মাস্ক পরিধানের সচেতনতা লক্ষ্য করা গেছে। বিশেষ করে উপজেলা শহরগুলোতেই মাস্ক ব্যবহারে সচেতনতা রয়েছে। কারন, এসব এলাকায় মাস্ক ব্যবহারে প্রশাসনের নজরদারি বেশী থাকতে দেখা যায়। কিন্তু উপজেলা শহর ব্যতিত অন্যান্য ছোট বড় বাজারগুলোতে মাঝে মধ্যে প্রশাসনের অভিযান করায় মানুষ তা আমলে নিচ্ছে না। মাস্ক ব্যবহারে অসচেতনতায় সংক্রমণ ছড়াতে পারে বলে সচেতন মহলের।

অভিযানকারী দলের ম্যাজিস্ট্রেটরা বলছেন, অভিযানে দেখা গেছে, মাস্ক কারও মুখে আছে, কেউবা কানে ঝুলিয়ে রেখেছেন, কারও শার্টের পকেটে, আবার কেউবা পকেটে রেখে দিয়েছেন। জানতে চাইলে একেকজন একেক অযুহাত দিচ্ছেন। মাস্ক ব্যবহারে নিজে থেকে সতর্ক না হলে হাজার অভিযান চালিয়েও কোনো লাভ হবে না। তারপরও অভিযানের কারণে অনেকেই সচেতন হচ্ছেন এবং মাস্ক ব্যবহার করছেন। করোনা মোকাবিলায় মাস্ক ব্যবহারে আরও বেশি সচেতন হওয়া দরকার বলে মনে করছেন অভিযান সংশ্লিষ্টরা।

এবিষয়ে চাঁদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, প্রশাসনের পাশাপাশি এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার, মসজিদের ইমাম ও স্থানীয় শিক্ষকগণ স্ব স্ব এলাকায় এ বিষয়ে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে মানুষকে সচেতন করতে হবে।

আর পড়তে পারেন