মঙ্গলবার, ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

গোপন তথ্য প্রকাশের জের ধরে কুবিতে ছাত্রলীগ কর্মীকে শিবির বানিয়ে মারধর করে পুলিশে সোপর্দ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৪, ২০১৭
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ

কুমিল্লা বিশ^বিদ্যালয় ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের পূর্ব বিরোধের জের ধরে আব্দুল হালিম নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে সাড়ে ১৬ ঘণ্টা আটকে রেখে মারধর করে শিবির সাজিয়ে পুলিশে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কুবি ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইলিয়াস হোসেন সবুজ ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে আব্দুল হালিমের বাবা মো. আব্দুল কাদের এ অভিযোগ করেছেন। তিনি জানান, কুবি ছাত্রলীগের ইলিয়াস গ্রুপ না করায় তার ছেলেকে ফাঁসানো হয়েছে।

আব্দুল হালিম বিশ^বিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের ষষ্ঠ ব্যাচের ছাত্র। তিনি কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার পাঁচথুবি ইউনিয়নের কোটেশ^র গ্রামের বাসিন্দা। বিশ^বিদ্যালয়ের শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের ৩০০৪ নম্বর কক্ষের আবাসিক ছাত্র।

বিশ^বিদ্যালয়ের একাধিক সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আব্দুল হালিম কুমিল্লা বিশ^বিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর থেকেই ছাত্রলীগের সাথে সম্পৃক্ত হন। তিনি বিশ^বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক আলিফ-রেজার অনুসারী। ওই সময় ইলিয়াস গ্রুপের একটি গোপন মিটিংয়ের অডিও রেকর্ড তৎকালীন ছাত্রলীগের সভাপতি আলিফকে গোপনে অবহিত করে ছাত্রলীগ কর্মী আব্দুল হালিম। পরে ছাত্রলীগ নেতা ইলিয়াস সে বিষয়টি জানতে পারে।

সম্প্রতি বিশ^বিদ্যালয় শাখার সভাপতির দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই আলিফ-রেজা গ্রুপের কর্মীদের ক্যাম্পাস ছাড়তে বাধ্য করেন বতর্মান সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ গ্রুপের নেতাকর্মীরা। অনেককে মারধর করে বের করে দেন। এদিকে পূর্বের মিটিংয়ের তথ্য প্রকাশের বিষয়টির জের ধরে ২০ জুলাই রাত ১১টায় আব্দুল হালিমের হাতে শিবিরের বই, সিডি ও চাঁদা আদায়ের রসিদ ধরিয়ে দিয়ে ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলে তার নিজ কক্ষে বেদম প্রহার করে ইলিয়াস গ্রুপের কর্মীরা। এরপর তাকে সারা রাত আটকে রেখে পরদিন দুপুরে প্রভোস্টকে চাপ প্রয়োগ করা হয়। বিকেল সাড়ে ৪ টায় দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ১৬ ঘণ্টা পর তাকে পুলিশে দেওয়া হয়।

এরপর, বিশ^বিদালয়ের প্রভোস্ট ড. বিশ^জিৎ চন্দ্র দেব কুমিল্লা সদর দক্ষিণ থানা পুলিশকে লিখিতভাবে জানিয়েছেন, ২১ জুলাই দুপুর সোয়া ১টায় ইলিয়াস মোবাইল ফোনে তাকে লিখিতভাবে জানান, আব্দুল হালিমকে শিবিরের সিডি, নোটবুক ও চাঁদা আদায়ের রসিদসহ আটক করা হয়েছে। এ সময় ছাত্ররা তাকে মারধর করে। বিষয়টি সম্পর্কে তদন্ত করতে ও স্থিতিশীল পরিবেশ নিয়ন্ত্রণ করতে তিনি ওই চিঠিতে পুলিশকে অনুরোধ জানান।

এ ধরনের ঘটনায় সাধারণত প্রশাসন বাদী হয়ে মামলা করলেও হালিমের বিরুদ্ধে বাদি হয়েছেন ইলিয়াস হোসেন সবুজ নিজে। মামলায় তিনি উল্লেখ করেন, ২০ জুলাই রাত ১১টার সময় আব্দুল হালিমকে আটক করা হয়। অথচ পুলিশে খবর দেওয়া হয় পরদিন দুপুরে। পুলিশের ডায়রিতে মামলা দায়েরের সময় ২১ জুলাই বিকেল সাড়ে চারটা উল্লেখ করা হয়। এই রহস্যময় ঘটনা এবং দীর্ঘ সাড়ে ১৬ ঘণ্টা হালিমকে আটকে রাখার বিষয়টিও রহস্যজনক বলে মনে করছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

আব্দুল হালিমের বাবা ঘটনাটি সাজানো দাবি করে, মামলা থেকে তার ছেলেকে মুক্তি দিতে প্রশাসনসহ সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

পাঁচথুবি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান রাফি রাজু বলেন, আব্দুল হালিম এলাকায়ও ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। একই কথা জানান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুলও।

কুমিল্লা ছাত্রলীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মো. এরশাদ জানান, আব্দুল হালিম তার সঙ্গে ছাত্রলীগের মিটিং-মিছিলে নিয়মিত যোগ দিয়েছেন। তার ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত থাকা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।

বিশ^বিদ্যালয় শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজা-ই এলাহী বলেন, হালিম কখনো শিবির করেনি। তাকে শিবির বানিয়ে পুলিশে সোর্পদ করা হয়েছে । সে ছাত্রলীগের একনিষ্ঠ কর্মী।

এ বিষয়ে পাঁচথুবী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান রাফি রাজু বলেন, আঃ হালিম এলাকায়ও ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল।
এ বিষয়ে কুবি ছাত্রলীগের সভাপতি ইলিয়াস হোসেন সবুজ জানান, হালিম শিবির কর্মী। ছাত্রলীগের ক্ষতি করার জন্য সে শিবির থেকে ছাত্রলীগে প্রবেশ করেছে। এ বিষয়টি জানার পর আমরা তাকে পুলিশে দিয়েছি।
সদর দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম জানান, আমরা কিশ্ববিদ্যালয় থেকে খবর পেয়ে আব্দুল হালিমের বিছানার উপর শিবিরের সিডি, নোটবুক ও চাঁদা আদায়ের রসিদগুলো পেয়েছি। ছেলেটি আসলে শিবির কর্মী কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আমাদের তদন্ত অব্যাহত রয়েছে।

কুবি সূত্র জানায়, চলতি বছরের ২৬ মে বিশ^বিদ্যালয়ের ১১ সদস্যের কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এতে প্রথম ব্যাচের লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী মো. ইলিয়াস হোসেনকে সভাপতি ও গণিত ষষ্ঠ ব্যাচের মো. রেজাউল ইসলাম ওরফে মাজেদকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। কমিটি ঘোষণার সময় বিশ^বিদ্যালয়ে গ্রীষ্মকালীন ছুটি ছিল। ৯ জুলাই ক্লাস শুরুর পর থেকেই বেপরোয়া হয়ে ওঠেন ইলিয়াস ও রেজাউল এবং তাদের অনুসারীরা। এরই মধ্যে মারধরের শিকার হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল শাখা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, কাউছার মাহমুদ, বিশ^বিদ্যালয় শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আঁখি আলম রকি ও ছাত্রলীগের কর্মী মুহাম্মদ আলিম, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের দশম ব্যাচের শুভ্র ও লোকপ্রশাসন বিভাগের আমিনুল ইসলামসহ আরও অনেকে। এর মধ্যে ১২ জুলাই ইলিয়াস-রেজাউলের মারধরে পুরো রাত অজ্ঞান অবস্থায় কাটান জসিম। বিষয়টি জানাজানি হলে মামলার হুমকিও দেওয়া হয় তাকে। মারধরের পর হল ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন শাখা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি মহিউদ্দিন নাবিল, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানা, জসিম উদ্দিন, কাউছার মাহমুদ, তমাল, মোহাম্মদ তানভীর, মুহাম্মদ আলিম ও আমিনুল ইসলামসহ শতাধিক নেতা-কর্মী। পরে এদের অনেকে সমঝোতার ভিত্তিতে হলে ফিরেছেন। সম্প্রতি ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রেজাউল ইসলাম ওরফে মাজেদ একটি হলের ছাত্রলীগের সম্মেলনের পর স্থানীয় সাংবাদিকদের সাথেও বাজে আচরণ করেছেন।

বিশ^বিদ্যালয় শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজা-ই এলাহী নিজেও মাস্টার্স না করে ঢাকায় অবস্থান করছেন। তিনি আপাতত কুবিতে ফিরবেন না বলেও জানা গেছে। এসব বিষয় কেন্দ্রীয় সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগকে জানানোর পরও কমেনি ইলিয়াস-রেজাউলের সংগঠনের স¦ার্থবিরোধী কর্মকান্ড।

আর পড়তে পারেন