সোমবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১১, ২০১৯
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ঃ
নানা বির্তক আর অনিয়মের বেড়াজালে আক্রান্ত হয়ে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের এখন বেহাল দশা। কুমিল্লা জেলা সদর, সদর দক্ষিণ, লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, বরুড়া, নাঙ্গলকোট, চৌদ্দগ্রাম, বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া নিয়ে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা । এ জেলা ছাত্রলীগের একটি ঐতিহ্য থাকলেও তা এখন ম্লান হওয়ার পথে। ছাত্রলীগের এ কমিটির সভাপতিসহ বেশিরভাগ নেতাই বিবাহিত, কেউ প্রকাশ্যে আবার কেউ বা গোপনে সংসার করছে। এছাড়া জাতীয় দিবস ও দলীয় সাংগাঠনিক কর্মসূচি দায়সারাভাবে পালন, অনুষ্ঠানের নামে ফটোসেশন, উপজেলা পর্যায়ে দেয়া কমিটি নিয়ে বির্তকের সৃষ্টি, অছাত্র, মাদক সেবনকারি, মাদক ব্যবসায়ি ও ভিন্ন দলের ছেলেদের ছাত্রলীগে স্থান দেয়া নিয়ে রয়েছে নানা বির্তক।

জানা যায়, ২০১৫ সালের ২০ জুলাই এক বছরের জন্য ৬ সদস্য বিশিষ্ট জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেন বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তৎকালিন সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকি নাজমুল আলম। আবু তৈয়ব অপিকে সভাপতি ও লোকমান হোসেন রুবেলকে সাধারণ সম্পাদক করে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। পরে ২০১৭ সালের ২৪ জুন এ কমিটি বর্ধিত করা হয়। ঘোষণা করা হয় ২০৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি। এ কমিটিতেও অপিকে সভাপতি ও রুবেলকে সাধারণ সম্পাদক রাখা হয়। তবে এ কমিটির মেয়াদ উল্লেখ করা হয়নি। এ কমিটি ঘোষণা করেন কেন্দ্রীয় কমিটির তৎকালিন সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ আর সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন। যদিও এ কমিটি নিয়েও নানা বির্তক ছিল। ঘোষিত কমিটিতে ঠিকাদার, অছাত্র, সেলুন ব্যবসায়িদের স্থান দেয়া হয় বলে অভিযোগ ছিল। কমিটি ঘোষণার পর প্রথমদিকে সাংগাঠনিক কার্যক্রম দেখা গেলেও পরবর্তীতে তা দায়সারাভাবে পালন করা হয় বিভিন্ন সূত্র জানায়।

বর্তমানে জেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে প্রায় ১৫ জন বিবাহিত, কয়েকজন সন্তানের পিতা, ১৪ জন বয়স উর্ত্তীণ, ২৬ জন চাকুরীজীবি ও ব্যবসায়ি, ঠিকাদার রয়েছে। রয়েছে অস্ত্র, অর্থ কেলেংকারি ও হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি।

উপজেলা কমিটিগুলো নিয়ে নানা বির্তক ঃ
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলার বিভিন্ন উপজেলা কমিটিগুলো গঠন নিয়ে রয়েছে নানা বির্তক। অভিযোগ রয়েছে অর্থের বিনিময়ে প্রায় অযোগ্য ব্যক্তিদের হাতেই তুলে দেয়া ছাত্রলীগের কমিটিগুলো। কয়েকটি উপজেলায় কমিটিও গঠন হয়নি। জেলার বুড়িচং, সদর দক্ষিণ, সদর, লালমাই উপজেলায় এখনো কমিটি দিতে পারেনি জেলা ছাত্রলীগ। এছাড়া লাকসাম ও মনোহরগঞ্জের কমিটি মেয়াদোর্ত্তীণ।

জানা যায়, ২০১৬ সালের ২৪ জুলাই মোঃ জালাল উদ্দিনকে সভাপতি ও মোঃ বাছির খানকে সাধারণ সম্পাদক করে এক বছরের জন্য বুড়িচং উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করে জেলার সভাপতি অপি ও সম্পাদক রুবেল । কিন্তু একদিন পরেই ২৬ জুলাই কেন্দ্রীয় কমিটি বুড়িচং উপজেলার এ কমিটি বাতিল করে দেন। সূত্র জানায়, সাংসদ আব্দুল মতিন খসরুর অনুমতি ছাড়াই এ কমিটি করা হয়েছিল। এছাড়া সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা , বয়স সমস্যাসহ নানা অভিযোগ থাকায় এ কমিটি একদিনের বেশি স্থায়ী হয়নি।

২০১৮ সালের ২৫ জুলাই ও ২৬ জুলাই নাজমুল হোসেন মজুমদারকে আহবায়ক করে ২৭ সদস্যের বরুড়া উপজেলা শাখা ছাত্রলীগ ও গোলাম ফারুক রুবেলকে আহবায়ক করে ২৩ সদস্যের বরুড়া পৌরসভা ছাত্রলীগের কমিটি প্রকাশ করে জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। অভিযোগ উঠে, অনৈতিক লেনদেনের মাধ্যমে গঠনতন্ত্র লংঘন করে বরুড়া উপজেলা শাখার নবগঠিত ওই কমিটিতে অছাত্র, বিবাহিত, সরকারি চাকুরি, মাদক ব্যবসায়ী ও বয়স্ক লোকদের স্থান দেয়া হয়। জানা গেছে, গঠনতন্ত্র লংঘন করায় এ কমিটি প্রকাশে বিলম্ব করে তারা। ২৯ জুলাই কমিটি ঘোষণার দুই ঘণ্টার মাথায় কমিটিতে স্থগিতাদেশ দিয়ে দলীয় শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে জেলার দুই নেতাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।
এছাড়াও ২০১৬ সালের ৫ নভেম্বর নাঙ্গলকোট উপজেলায় মেমোরিয়াল সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়েও বেশ বির্তক হয়। কলেজ ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মো. ওবায়দুল হককে সভাপতি ও শিবির নেতাদেরকে পদায়িত করে ৬১ সদস্য বিশিষ্ট ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেয় কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ। ওই সময় এ বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে। বিষয়টি নিয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়। যদিও পরে ওই কমিটিতে কোন পরিবর্তন আসেনি।

এদিকে সদর দক্ষিণ উপজেলা ছাত্রলীগের আহŸায়ক করা হয় মোঃ আয়াত উল্লাহকে। জানা যায়, এটি মৌখিক কমিটি। কাগজে-কলমে নেই। যুগ্ম আহŸায়ক হিসেবে আছেন ইকরাম হোসেন সুজন, কামরুল হাসান ভুট্টো। প্রথমে ২১ সদস্য, পরে আরো ২ জন বাড়ানো হয়েছে। জানা যায়, চলতি মাসের ২২ তারিখ এই উপজেলার ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। ২ নভেম্বর এ উপলক্ষে একটি প্রস্তুতি সভাও করা হয়। এতে জেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে অবহিত করা হয়নি বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

এছাড়া বুড়িচং – বি পাড়া ছাত্রলীগের কমিটিতে জেলার সভাপতি ও সেক্রেটারির কোন স্বাক্ষর নেই বলে জানা গেছে। স্থানীয় সাংসদ আব্দুল মতিন খসরু নিজেই এই দুই কমিটি করেছেন বলে জানা গেছে। এখানেও জেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদককে অবহিত করা হয়নি বলে জানা গেছে।
এছাড়া মনোহরগঞ্জের কমিটি নিয়েও বির্তক রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে কমিটিতে বেশ কয়েকজন অছাত্র ও মাদক ব্যবসায়ি রয়েছে। যদিও কমিটি মেয়াদ উর্ত্তীণ।

দায়সারাভাবে চলছে জাতীয় ও দলীয় কর্মসূচীঃ
চলতি বছরের ১৩ জুন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ আহসান হাবিব স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ২০১৯-২০ সালের মেগা বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে আনন্দ মিছিল করার নির্দেশনা দেওয়া হয়। কিন্তু জানা যায়, জেলা দক্ষিণ ছাত্রলীগ সে নির্দেশনা পালন করেনি। কোন স্বাগত মিছিল করা হয়নি। এমনকি চলতি বছরের একুশে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার অনুষ্ঠানে জেলা আ’লীগের অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগ সভাপতি অপি ছিলেন না।

অভিযোগ রয়েছে, জেলা ছাত্রলীগ প্রায় অনুষ্ঠানই দায়সারাভাবে করছে। নামেমাত্র ফটোসেশন কিংবা দায়সারাভাবে অনুষ্ঠান পালন করছে। এ নিয়ে তৃণমূলে বেশ ক্ষোভ রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা ছাত্রলীগের এক কর্মী জানান, এদেশের প্রাচীণ সংগঠন হলো ছাত্রলীগ। কুমিল্লায় ছাত্রলীগের একটা ঐতিহ্য আছে। কিন্তু এই ছাত্রলীগই এখন চলছে দায়সারাভাবে।জেলা নেতারা এখন অন্য কাজে ব্যস্ত। অনেকেই বিবাহিত জীবনযাপন করছেন। তাই নতুন কমিটি গঠন এখন সময়ের দাবি।

সাংগাঠনিক কার্যক্রমে নিস্ত্রিয় থাকার অভিযোগে ২০১৭ সালের ১৫ মে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি অপি ও সাধারণ সম্পাদক রুবেলকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদ কর্তৃক আয়োজিত বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অনুপস্থিত থাকায় তাদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. লোকমান হোসেন রুবেল জানান, বিভিন্ন কারনে কয়েকটি উপজেলায় ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া সাংগাঠনিক কার্যক্রমে আমরা সব সময় সক্রিয় আছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি জানান, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম বিভাগের সবচেয়ে সক্রিয় সংগঠন। আমরা দায়িত্বশীলতার সহিত সকল জাতীয় ও দলীয় সাংগাঠনিক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। দায়সারাভাবে কার্যক্রম পরিচালনার বিষয়টি ভিত্তিহীন। ছাত্রলীগের নতুন কমিটি হওয়ার আগ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করে যেতে চাই। এরপরে দল আমার অতীত কর্মকান্ড বিবেচনা করে যেখানে কাজ করার সুযোগ দেয়, দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সেখানে কাজ করে যাবো।

আর পড়তে পারেন