মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

খাব্বাব মৃত্যুতে কুমিল্লা ইবনে তাইমিয়া পরিবারের শোকের ছায়া

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ১৭, ২০১৭
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

“খাব্বাব কে হারিয়ে আমরা জীবন্ত এক নক্ষত্র হারিয়েছি। সব কিছুর উপরে উঠে খুব অল্প সময়ের মধ্যে তিনি মিশে যেতেন অবলীলায়। কারো উপকার করতেন কোনো কারণ না জেনেই। তার নেশা ছবি তোলা হলেও পেশা ছিলো পরোপকার।” পানিতে ডুবে নিহত খাব্বাব স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এভাবেই নিজেদের অনূভূতি প্রকাশ করেন তার কয়েকজন স্কুল বন্ধু। তারা আরও বলেন, “মুহূর্তের মধ্যে সবার সঙ্গে মিশে যাওয়াই ছিল খাব্বাব চরিত্রের ব্যতিক্রমী দিক। সবার সঙ্গে প্রাণের মিল ছিল তার।” নানা স্মৃতি ফ্রেম বন্দি করার যে কাজটি করতেন খাব্বাব, সেই তিনি আজ ফ্রেমে বন্দি হলেন, এটা যেন মেনে নিতে পারছেন না তার বন্ধুরা। তাই তাকে শেষ বিদায় জানাতে পারছেন না অনেকেই। অনেক বন্ধুবান্ধব তার আড্ডাকে এখনো জীবন্ত চোখে দেখছেন। তার সঙ্গে আড্ডার বণর্না দিতে গিয়ে তার এক সহপাঠী বলছেন, “খাব্বাব ছিলেন জীবন্ত এক আড্ডাবাজ। সবাইকে মুহূর্তেই মাতিয়ে তুলতে পারতেন। সে আর আমাদের মাঝে নেই, এটা কোনোভাবেই বিশ্বাস করতে পারছি না।” সহপাঠীরা বাকরুদ্ধ হয়ে বলেন, “সব বয়সের মানুষদের সঙ্গে মিশে যাওয়া খাব্বাব এতো সহজে আমাদের কাছ থেকে হারিয়ে যাবেন, এটা মানতে পারছি না। সমবয়সী মানুষদের গন্ডি ছাড়িয়ে তার চলাচল ছিল সব মহলে।” পরিবারের বড় ছেলে খাব্বাব। ডানপিটে খাব্বাব ছোট বেলা থেকেই ছবি তোলার প্রতি প্রবল ঝোঁক ছিলো। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে খাব্বাব এর শিক্ষক ডাঃ আব্দুর রব দৈনিক আজকের কুমিল্লাকে বলেন, “খাব্বাব ছোট বেলা থেকেই ছিলো চঞ্চল, পরিশ্রমী ও আত্মবিশ্বাসী। যে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিতো, তা না করে ক্ষান্ত দিতো না। ছবি তোলাকে সে পেশা নয়, নেশা হিসেবে নিয়েছিলো। আর পেশা ছিলো পরোপকার করা।” খাব্বাব এর স্কুলের এক ছোট ভাই BAUST শিক্ষাথী মিনাহাজুল ইসলাম আবেগতাড়িত কণ্ঠে দৈনিক আজকের কুমিল্লাকে বলেন, “ভাই এতো দ্রুত মানুষের সঙ্গে মিশে যেতে পারতো যা কল্পনাই করা যায় না। সবার সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখা ছিলো তার ব্যতিক্রম একটি গুণ।”

আর পড়তে পারেন