সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

খসরু ভাই মারা গেল, আর শীতের পাখির মত এমপি হওয়ার লাইন  

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৯, ২০২১
news-image

বিল্লাল হোসেন:
ধরে নিলাম আপনারা সবাই প্রার্থী হতে চান। হোন, কোন সমস্যা নাই। এটা আপনার গণতান্ত্রিক অধিকার। তবে আপনাদের এই তাড়াহুড়া দেখে একটু লজ্জাই লাগতেছে। লজ্জা এই জন্য না যে, আপনাদের অনেকেই অযোগ্য।

লজ্জা লাগতেছে কারণ, আমাদের প্রিয় নেতা এডভোকেট আবদুল মতিন খসরু ভাই মারা গেল মাত্র কয়দিন হলো। বলা যায়, মারা যাওয়ার পর পরই মানে লাশটি দাফনের সাথে সাথেই আপনারা প্রার্থী হওয়ার জন্য পাগল প্রায় হয়ে উঠলেন! অবস্থাদৃষ্টে মনে হলো-আপনারা মনে হয় এমন একটি সময়ের জন্য মুখিয়ে ছিলেন। বলতে কষ্ট হচ্ছে, তারপরও বলতে হয়, আপনারা ঝাঁকের কৈ মাছের মত এমন উজাইতাছেন যে, মনে হইতাছে জো লাগছে! টপাটপ কে কখন এমপি হইবেন এই নেশায় মজেছেন আপনারা। আপনাদের দেইখা এও মনে হইতাছে যে, আপনারা যেন মনে মনে চাইতেছিলেন খসরু ভাই কখন মরবে! ছি ছি ভাইয়েরা একটু ধৈর্য্য ধরতে পারতেন।

এমপি হইয়েন। আপনাদেরই তো একজন না একজন হবেন। সবাই তো আর হবেন না। আমাদের প্রিয়নেত্রী বঙ্গবন্ধু কণ্যা শেখ হাসিনা নিশ্চয়ই যোগ্য কাউকেই মনোনয়ন দেবেন। প্রিয় নেত্রীর ওপর বিশ্বাস রাখেন। তার আগে একটু হোমওয়ার্ক করতে পারতেন। মানে এই ধরুন আপনি যদি এমপি হোন তো কী কী করবেন আরকি? একটু গবেষণা, বাস্তবভিত্তিক পরিকল্পনা, সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তা, মন্ত্রীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে পারবেন কিনা? আপনার সেই সক্ষমতা আছে কিনা ইত্যাদি। তাছাড়া বিগত দিনে আপনি এলাকার মানুষের সাথে কেমন সম্পর্ক রেখেছিলেন, তাদের বিপদে কতটা পাশে ছিলেন, এই যে করোনাকাল চলতেছে গেল এক বছর ধরে কতটা অসহায় পরিবারের জন্য নূন্যতম সহায়তা, মানে একটু চাল, ডাল, তেল, লবন নিয়ে তার পাশে দাঁড়িয়েছেন? ধরেন পুরো নির্বাচনী এলাকায় আপনি পারেন নি, কিন্তু আপনার গ্রামে বাড়ির পাশে কয়টা গরিব মানুষকে জিজ্ঞেস করেছেন, এই যে ভাই করোনায় তো তোমার কাজকর্ম নাই। তোমার ঘরে কী চাল, ডাল আছে? কীভাবে চলো? এই নাও তোমারে ২ সপ্তাহের চাল ডাল দিলাম। দিছেন কাউকে এমন সহায়তা? মনে হয় না। কারণ আমরা তো এলাকায় ছিলাম। দেখিনাই তো আপনাকে। আবার আপনাদের কেউ কেউ এখন বেশ বাণী দিতেছেন। অনেক যোগ্য আপনি। বড় বড় পাশ দিছেন। অনেক কিছু করতে চান। কই এলাকার বিপদগ্রস্ত মানুষ যখন আপনার কাছে গেছে, তখনতো তাদের দেখে চোখে টিনের চশমা পড়ে থাকতেন। দুর দুর করে তাড়িয়ে দিতেন আইনের দোহাই দিয়ে। এখন তাদের সাথে নিয়ে কাজ করতে চান। অনেক মিষ্টি মিষ্টি করে কথা বলেন। আহারে…আপনাদের একই অঙ্গে কত রূপ! তারা কী আপনার টিনের চশমা পরা চেহারাটা ভুলে গেছে?

আপনাদের অনেকে আবার বলায় ভালো। মাইক পেলে বেশ কোকিলকন্ঠী আপনাদের বচন। কই, আপনার তো একটি কর্মীও দেখি না যে, দলের জন্য একটা মিছিল দেয়। জাতির পিতার জন্ম বা শাহাদৎ দিবস, বিরোধী দলের আন্দোলন সংগ্রাম, তাদের ভাংচুর জ্বালাও পোড়াওর বিরুদ্ধে সোচ্চার কণ্ঠে প্রতিবাদ করে, দলের খারাপ সময়ে এমন একজনকেও তো পাই না আমরা তৃণমুলের কর্মীরা। তখন কই থাকে আপনার কোকিলকন্ঠী বচন? আপনার মত আরও কেউ কেউ আবার খসরু ভাইর খুব কাছের স্নেহধন্য, পুত্রতুল্য বলে স্টেটাস দিতাছেন ফেইসবুকে। অবশ্য ফেইসবুক আপনাদের অনেকের জন্য আর্শিবাদ। এটি আপনাদের কর্মীহীন জীবনে নেতার হওয়ার খায়েশ পুরণে সহায়তা করছে। সুন্দর সাদা পাঞ্জাবির ওপর কালো মুজিবকোর্ট পরে আপনারা যেই সুন্দর ছবি দিচ্ছেন আর প্রার্থী হতে চান বলে দোয়া চাচ্ছেন তাতে আমাদের প্রিয়নেত্রীকেও আপনারা হয়তো কনফিউজড করে ফেলবেন! তিনিও মনে করে বসতে পারেন, আরে আপনারা তো বিরাট জনদরদি নেতা! তবে আমাদের নেত্রী নিশ্চয় এতটা বোকা না। তিনি এখন বিশ্ব চড়াইয়া খান। তাবৎ দুনিয়ার নেতারা আমাদের নেত্রীর প্রজ্ঞার কাছে নতজানু। এই নেত্রীকে শুধু ফেইসবুকীয় নেতার আদল ফুটিয়ে তুলে এমপি হয়ে যাবেন-এটা আমাদের মত কর্মীদের মনে হয় না।

বলি কি, একটু আয়নায় নিজের সত্যিকার চেহারা দেখেন। এই যে, এত এত দুর্যোগ হচ্ছে দেশে, তখন আপনি আপনার এলাকার মানুষের পাশে কতদিন ছিলেন, তাদের জন্য কী আশা ভরসা দিয়েছিলেন, দলের দুর্দিনে নিজে কী করেছেন? দলের জন্য কয়টা মামলা খেয়েছেন, বিরোধী দলের মার খেয়েছেন, গুলি খেয়েছেন কিংবা রক্তচক্ষুর মুখে পড়েছিলেন-এটা একটু হিসাব কইরেন। আপনাদের যে, মানুষ কোনো দিনও তার পাশে পায়নাই, খসরু ভাই মরে যাওয়ার পর আপনারে দেখতেছে আপনি তাদের জনদরদী নেতা, এমপি হয়ে তাদের ভাগ্যের আমুল পরিবর্তন করবেন এটা তাদেরকে বিশ্বাসযোগ্য করবেন কীভাবে ভায়া? আর যে বলছেন, খসরু ভাইয়ের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে চান বলতেছেন, তো তিনি কী কী কাজ করেছেন, আপনার জন্য কী কী বাকি রেখেছেন এটার কী কোন লিস্ট আছে আপনার কাছে? আপনার এলাকায় কতটি গ্রাম, তাদের কতজন শিক্ষিত, কত শতাংশ গরিব, কত শতাংশের ঘরবাড়ি নেই, কত শতাংশের ভিটেমাটি নেই, জমিজমা নেই, আয়ের উৎস নেই-এর কোন পরিসংখ্যান আছে আপনার কাছে? আপনি এমপি হলে প্রথম এক বছরে কী করবেন, কীভাবে করবেন, কোন কোন কাজ অগ্রাধিকারে করবেন-তার কী বাস্তবসম্মত কোন হোমওয়ার্ক আছে ভায়া আপনার? আমি তো জানি তা আপনার নেই। তৃণমূল দলেও আপনার তেমন গ্রহণযোগ্যতা নেই। সাংগঠনিক কাজেও পাওয়া যায় না। আপনি তো জানি অনেক পাশ দিছেন। অনেক অনেক ত্যাগী নেতা আপনি।

আপনাদের অনেকে শীতের পাখি হয়ে আমাদের ভাগ্য বদলাতে চান ভালো কথা। তবে আমাদের প্রিয়নেতা খসরু ভাইকে খাটো কইরেন না। তিনি আমাদের বুড়িচং-ব্রাক্ষণপাড়ার মানুষের জন্য আর্শিবাদ হয়ে এসেছিলেন। তার মর্যাদা রাইখেন। যারা সত্যিকার যোগ্য, মানুষের পাশে থাকে, কাজ করে, সামাজিক কর্মকান্ডে সব সময় থাকে, মুখে এক অন্তরেও এক-এমন একজন হন। আপনাদের মধুর বচন যেন বাস্তবে থাকে এটা দেখাইয়েন আমাদের। জানি আপনারা এত এত যোগ্য নেতার ভিড়েও নিশ্চয় আরও কোন যোগ্য কাউকে নেত্রী আমাদের উপহার দেবেন। সবাইকে তো আর দিতে পারবে না। তাই হতাশ হইয়েন না। মৌসুম চলে গেলেও আমাদের পাশে থাইকেন, চইলা যাইয়েন না। শীতের পাখি বলে আপনাদের যে অপবাদ দেয় মানুষ, এটা বদলাতে কাজ কইরেন। আজ না পান, আগামীতে পাবেন। তবে রাজনীতিটা অন্তর দিয়া কইরেন, পোশাকে না। আপনাদের পোশাকের রাজনীতিতে মানুষকে বোকা বানিয়ে ধোকা দেয়ার জাদুকরী শক্তি আছে। এটা কইরেন না।

লেখক:
বিল্লাল হোসেন

সাবেক চেয়ারম্যান, ষোলনল ইউনিয়ন ও

সাংগঠনিক সম্পাদক, উপজেলা আওয়ামী যুবলীগ।

আর পড়তে পারেন