সোমবার, ১৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ক্ষমতাবান এমপি বদি!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৮, ২০১৮
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

সরকারের মাদক নির্মূল অভিযানে কত মানুষের প্রাণ ঝরল, গ্রেফতার হলো, নিরাপরাধ একরামুল হককেও হত্যা করা হলো। একরামুলের মতো হয়তো অনেক মায়ের বুক খালি হয়েছে যেটা আমরা জানতেই পারেনি। অথচ সেই মাদক সম্রাটের কিছুই হলো না। তার তো কোনো মাথাব্যথাই নেই। বিন্দাস আছেন তিনি। তার মাঝে সৌদি আরবও গেলেন আবার চলেও এলেন। বলতে হবে সাহস আছে ইয়াবা গডফাদার এমপি বদির!

দেশে ফিরে বর্তমানে ঢাকার ন্যাম ভবনে সরকারি বাসায় রয়েছেন তিনি। জানা গেছে, সংসদ অধিবেশনেও যোগ দিবেন এই ইয়াবা সম্রাট।

এদিকে বদিকে নিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বদির বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তবে প্রমাণ নেই। আবার পত্র-পত্রিকায় তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগসহ মাদকের তালিকায় তার নাম থাকার তথ্যও প্রকাশ হয়েছে।

টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশর বলেছিলেন, বাংলাদেশে ইয়াবা এনেছে এমপি বদি। ২০০৮ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এমপি আছেন বদি সাহেব। আমরা দেখি যারা ইয়াবা আমদানির মূল কারিগর, তারা সবাই এমপি সাহেবের আশেপাশে থাকে। আশ্রয়-প্রশ্রয়ে থাকে। এমপি তাদের শেল্টার দেন। তাহলে মানুষ কী বুঝবে? আপনি টেকনাফে এসে মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। শতকরা ৯৫ জনই বলবেন এমপি বদির মাধ্যমেই ইয়াবা এসেছে বাংলাদেশে৷ মূল হোতাদের এখন এলাকায় দেখছিই না।

মাদকবিরোধী অভিযানের আগে পাঁচটি রাষ্ট্রীয় সংস্থার সমন্বয়ে মাদক ব্যবসায়ী ও পৃষ্ঠপোষকদের একটি তালিকা তৈরি করে সরকার। সেই তালিকায় মাদকের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে আছে আব্দুর রহমান বদির নাম। এছাড়া মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তালিকায় এক নম্বরে আছে বদির নাম। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের করা টেকনাফের শীর্ষ মানব পাচারকারীর তালিকাতেও তার নাম ছিল। দেশে মাদক ইয়াবার গডফাদার ও ব্যবসায়ীর তালিকায় টানা ১০ বছর ধরে ছিল বদির নাম। কিন্তু গত মার্চ মাসে একটি সংস্থার তালিকা থেকে সেই নাম বাদ দেওয়া হয়। তবে সেই তালিকায় বদির পাঁচ ভাই, এক ফুপাতো ভাই, দুই বেয়াই ও এক ভাগ্নের নাম আছে। তালিকায় সব মিলিয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে কক্সবাজারের ৮ উপজেলার ১ হাজার ১৫১ জনের নাম আছে৷ এদের অনেকেই এখন এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন।

এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, বদির বিরুদ্ধে কোনো স্বাক্ষী আমরা পাইনি। শুধু নাম থাকলে তো চলবে না। প্রমাণ করতে হবে যে তিনি অপরাধী। আমরা তার বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ পাইনি। প্রমাণ পেলে ব্যবস্থা নেব।

বদিও বলেছেন, কেউ যদি প্রমাণ করতে পারে আমি কোনো ইয়াবা ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলেছি, তাহলে আমি পদত্যাগ করবো। বরং আমিই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সারাক্ষণ যোগাযোগ করি মাদকবিরোধী কর্মকাণ্ড নিয়ে কী করা যায়, সে বিষয়ে।

এসবের মাঝেই গত ৩১ মে এমপি বদি হঠাৎ দেশ ত্যাগ করে সৌদি আরবে ওমরা পালনে চলে যান। সে সময় বদির বিদেশ গমনকে নিয়ে সারা দেশে নানা গুঞ্জন ওঠে। স্বপরিবারে দেশ ছাড়ায় বদির দেশে ফিরে আসা নিয়ে অনেকেই সংশয় প্রকাশ করেছিলেন। মাদকবিরোধী অভিযানের ভয়ে বদি গোপনে দেশ ছেড়েছেন বলে মনে করা হচ্ছিল। মাদকবিরোধী অভিযান থেকে রেহাই পেতে বদি স্বপরিবারে ওমরা পালনে যাওয়াকে কৌশল হিসেবে মনে করেছিলেন অনেকে।

তবে সৌদি আরবে যাওয়ার আগে এমপি বদি বলেছিলেন, অভিযানের ভয়ে তার দেশ ছাড়ার তথ্যটি সম্পূর্ণ অসত্য। তিনি অনেক আগেই ওমরা পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। নিয়ম অনুযায়ী তিনি যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতিও নিয়েছেন। ওমরা পালন শেষ আগামী ১৭ জুন দেশে ফিরে আসার কথা জানিয়েছিলেন ইয়াবা সংশ্লিষ্টতা নিয়ে বহুল আলোচিত-সমালোচিত এমপি বদি। যেমন কথা তেমন কাজ। এত অপরাধ করেও বুক ফুলিয়ে কথা বলছেন, চলাফেরা করছেন। অথচ সরকার বদির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থাই নিচ্ছে না। আর এখন তো মাদক অভিযান অনেকটাই আড়ালে চলে গেছে।

ইয়াবা সম্রাট বদিকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে পত্র-পত্রিকা, লেখক ও ব্লগার, বিশিষ্টজনেরা সবাই আঙুল তুলে কথা বলেছেন ও লিখেছেন। তারপরেও সরকার নিশ্চুপ। প্রশ্ন জাগে- তাহলে কি সরকারের চাইতে বদির ক্ষমতা বেশি হয়ে গেলো!

আর পড়তে পারেন