শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

ক্যাম্পাসের আড্ডা আর বন্ধুত্বের মেলবন্ধন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
সেপ্টেম্বর ১০, ২০১৭
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

তরুণ-তরুণীদের জীবনে আড্ডা একটা অংশ। আর ক্যাম্পাস জীবনে এই আড্ডা যেন একটু বেশিই হয়। ক্যাম্পাস হলো একজন শিক্ষার্থীর জীবনে মজার একটি সময়। আর এই ক্যাম্পাস জীবনে আড্ডা ছাড়া জীবন অচল-অসার। আড্ডায় জড়িয়ে অনেকেই খুঁজে পেয়েছে নতুন বন্ধু। কেউবা মনের মানুষ। আর আড্ডা অনেককে করে তুলছে আত্মবিশ্বাসী। ঈদের ছুটি শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসগুলো আড্ডায় মেতে উঠেছে। তার মধ্যে অন্যতম ফুলের সমারোহ আর অপার প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। শিক্ষার্থীদের পিএল শেষ তাই এক হাতে ল্যাপটপ, আর এক হাতে চা। আবার কেউ ভালোবাসে সায়মা ম্যামকে তাদের মুখ নিয়ে কয়টা বাক্য ফুটে ঊঠে কখন যে চা শেষ হয়ে গেছে তার কোনো হিসাব নেই।

তবুও চলছে আড্ডা। পাশে গিটারে উঠছে মান্নার চিরচেনা সুর। আর পাশে বসে সালমান গাইছে বেসুরে। আবার কেউবা ব্যস্ত খুনসুটিতে। এভাবেই জমে ওঠে ক্যাম্পাসের আড্ডা। সেই আড্ডার আলোচনা বেশিরভাগই হয় ক্যারিয়ারভিত্তিক। অনেক সময় হাস্যরসের আড্ডাও হয়। আড্ডার মাধ্যমে জ্ঞানের পরিধিকে প্রসারিত করা যায়। আহসানুল্লাহ ক্যাম্পাসের যেসব জায়গায় বেশি আড্ডার আসর বসে সেগুলো হল ক্যান্টিন, হাওয়া ভবন রেডএক্স, টেক্সটাইল টাইগার্স গ্রাউন্ড, বিভিন্ন জায়গা। তবে টঙ মামা দোকান ত আছে। আড্ডা মানে অফুরন্ত আনন্দ। আড্ডা ছাড়া ক্যাম্পাসের কথা কল্পনাও করা যায় না। আড্ডাকে নিছক আড্ডা বলতে নারাজ টেক্সটাইল বিভাগের শিক্ষার্থী তানজিম, শাওন, মান্না, রাহাত ও সাহরার। তাদের মতে, আড্ডা মানে শুধুই আড্ডা নয়। এই আড্ডায় থাকে স্বপ্ন দেখা, থাকে ভবিষ্যতের ছক আঁকা। আড্ডার মাধ্যমে জ্ঞানের পরিধি বাড়ে। আড্ডা মানে হাসি মুখ। আড্ডা মানে দুঃখ-কষ্ট ভাগাভাগি করে নেওয়া। আড্ডা ছাড়া ক্যাম্পাস জীবন অচল।

আড্ডায় জেগে থাকে ক্যাম্পাস, জেগে থাকে তারুণ্য। তুষার জানান, বন্ধুত্বটা এক অনন্য সম্পর্ক। যদিও এতে প্রয়োজন-অপ্রয়োজনের বিষয়গুলো এসে যায়, বিশেষ করে ভার্সিটি লাইফের এ বন্ধুত্বগুলো অনেক সময়ই টিকে না বলে শোনা যায়। তবে অনেক বন্ধুর মাঝে ভালো বন্ধু খুঁজে পাওয়া জীবনের এক অতুলনীয় অধ্যায়। বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে অনেক সময়ই প্রেমের সম্পর্ক হয়ে যায়, যা আসলে বন্ধুত্বের মধ্যে নিয়ে আসা ঠিক নয়। ওয়াসিফা মতে, ভার্সিটির বন্ধুত্বগুলো কিছু কিছু ক্ষেত্রে সারাজীবন টিকে থাকে। আর এটা এমন একটি সময়, যখন আমরা জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার গুরুত্বপূর্ণ একটি ধাপে থাকি। ফলে বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়াটা এ সময় খুব প্রয়োজন। আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবর্তে স্কুল জীবনের বন্ধুত্ব টিকে থাকার কথা বললেও দেখা যায়, ছোটবেলার বন্ধুত্বগুলোও একসময় হারিয়ে যায়।

তাহেরা বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে কম্প্রোমাইজের বিষয়টি তুলে ধরেন। তার মতে বন্ধুত্বের জন্য শুধু মনের মিল হলেই হয় না, একসঙ্গে চলতে গেলে প্রায় সময়ই অপর বন্ধুটির ভালো লাগা-মন্দ লাগাকেও গুরুত্ব দিয়ে কম্প্রোমাইজ করতে হয়। নাহলে বন্ধুত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে যায়।

আর পড়তে পারেন