সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কোভিড-১৯ প্রতিরোধে লকডাউন- বিশ্ব ও বাংলাদেশ প্রেক্ষিত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৬, ২০২১
news-image

 

লেঃ কর্ণেল নাজমুল হুদা খান:

মরনঘাতী কোভিড-১৯ প্রতিরোধে দেশে তৃতীয় পর্যায়ে লকডাউন চলছে । এ অতিমারীর দ্বিতীয় ঢেউ শেষ না হতেই সীমান্তবর্তী জেলা সমূহে সংক্রমনের উর্ধ্বমূখীতা, দ্রুততা, হাসপাতালমুখীতা এবং মৃত্যুর হার বেড়ে যাওয়া এবং দেশে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট সনাক্তের প্রেক্ষিতে সার্বিক সংক্রমণ রোধে জাতীয় কমিটির পরামর্শ ক্রমে এ লকডাউন অত্যন্ত সময়োপযোগী। এতে যেমন আক্রান্ত ব্যাক্তি থেকে সংক্রমন ছড়ানো রোধ হবে, তেমনি ভৌগলিক বিচারে সারাদেশে সংক্রমনের উর্ধ্বমুখীতা ঠেকানো সম্ভব হবে ।

ইতিবৃত্তঃ
প্রকৃতপক্ষে দুনিয়া কাঁপানো সকল মহামারী যথা- প্লেগ অব এথেন্স (৪৩০ খ্রীঃ),জাষ্টিনিয়ান প্লেগ (৫৪১ খ্রীঃ), ব্ল্যাক ডেথ (১৩৪৬ খ্রীঃ), কলেরা (১৮১৭), স্প্যানিশ ফ্লু (১৯১৮-১৯২০), এশিয়ান ফ্লু ( ১৯৫৭-১৯৫৮), গুটি বসন্ত, ইবোলা (২০১৪-২০১৫) ইত্যাদি সকল সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে স্থান-কাল ভেদে বিভিন্ন মাত্রা ও পদ্ধতিতে লকডাউন প্রথা প্রয়োগ এবং কার্যকর হিসেবে প্রমানিত হয়েছে।

কোভিড-১৯ প্রতিরোধে সর্বপ্রথম লকডাউন শুরু হয় হুবেই প্রদেশের উহান শহরে। ২৩শে জানুয়ারী থেকে ৮ই এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত ২ মাস ২ সপ্তাহ ২ দিনের স্থায়ী এ লকডাউনে উহান ও অন্যান্য ১৫ টি শহরের ৭ কোটি লোককে সর্বাতœক লকডাউনের আওতায় আনা হয়। কোভিড-১৯ বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়ার পর অস্ট্রেলিয়ায় ২৩ মার্চ থেকে ১৫ মে পর্যন্ত , কানাডায় ৫টি প্রদেশে প্রায় ২ সপ্তাহ থেকে ৪ মাস , ব্রাজিলে এক নাগাড়ে আড়াই মাস , ফ্রান্সে জাতীয় ও প্রাদেশিক ভাবে ২৬১ দিন, জার্মানীতে ১৪৮-২১৮ দিন, ইটালিতে জাতীয় ভাবে ১২৯ এবং প্রাদেশিক ভাবে ৮৮ থেকে ২১২ দিন , যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন প্রদেশে ৩ সপ্তাহ থেকে ৪ মাস এবং ভারতে জাতীয় ভাবে ১০ সপ্তাহ প্রাদেশিক ভাবে ১০ সপ্তাহ সহ সারা পৃথিবীর প্রায় ৩৯০ কোটি মানুষ লকডাউনের বিধি নিষেধের আওতায় আসে। এখনও পৃথিবীর বহু দেশে কোভিড-১৯ প্রতিরোধী এ কার্যক্রম চলছে।

সংক্রমন রোধে লকডাউনঃ
উহান সিটির গবেষক দলের তথ্য অনুযায়ী শহরে লকডাউনের পূর্বে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুন হতে সময় লাগত ২ দিন, লকডাউনের কয়েকদিন পরই দ্বিগুন হওয়ার সময় বেড়ে ৪ দিন হয়ে যায় এবং একসময় এটি ১৯ দিনে পরিনত হয় অর্থাৎ সংক্রমন প্রায় ১০ গুণ হ্রাস পায়। অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া প্রদেশে ৬ সপ্তাহের লকডাউনে আক্রান্তের সংখ্যা শুন্যের কোটায় নেমে আসে। বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী রবিস জনসন বলেন, ভ্যাক্সিন নয় বরং লকডাউনই দেশের কোভিড-১৯ সক্রমন কমার প্রধান কারণ।শহরে আক্তান্ত, হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যু সংখ্যা কমেছে লকডাউনের কারনেই। তিনি স্কাই নিউজ ও জিনহুয়াকে এক সাক্ষাতকারে এ কথা বলেন। ইটালীতে লকডাউন ছিল সর্বোতভাবেই সফল। গবেষকগন সংক্রমন মডেল বিশ্লেষন করে প্রমান করেন লকডাউনের কারনে সংক্রমন ৮ গুন এবং মৃত্যুর হার ৩ গুন হ্রাস পায়। দিল্লীর মূখ্যমন্ত্রী লকডাউন শুরুর কয়েকদিন পর গত ২৪ মে ২০২১ তারিখে বলেন, ২৪ ঘন্টার লকডাউনে সংক্রমনের হার কমেছে প্রায় ১২% । ভারতের ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া “নিউজ ১৮” জানায়, লকডাউনের ফলে মহারাষ্ট্রে আক্রান্তের তীব্রতা নিম্নমূখী, মুম্বাইতে ১ দিনে আক্রান্তের হার কমেছে শতকরা ২০ ভাগ। মেডিক্যাল এক্সপ্রেসজার্নাল প্রকাশ করে, লকডাউনের শুধুমাত্র সামাজিক দূরত্বের কারণে ১৩% সংক্রমন হ্রাস পায়। সায়েন্স মাস জার্নালে ২০৬টি গবেষনা বিশ্লেষনের তথ্য মোতাবেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখায় ৩৭% এবং জরুরী নয় এমন ব্যবসা প্রতিষ্টান বন্ধে প্রায় ২৫ ভাগ কোভিড-১৯ সংক্রমন হ্রাস পায় বলে প্রকাশ করে । এলসেভিয়ার প্রকাশিত এক জার্নালে, লকডাউনের সামাজিক দূরত্বের কারনে ১৭ ডলার অর্থনৈতিক ক্ষতির বিপরীতে কোভিড-১৯ সংক্রমন, হাসপাতালে চিকিৎসা ও মৃত্যুর কারনে ক্ষতির পরিমান দাড়ায় প্রায় ৪১ ডলার অর্থাৎ প্রায় আড়াইগুন বেশি। ১১ টি ইউরোপিয় দেশের গবেষনায় দেখা যায়, লকডাউন কোভিড-১৯ সংক্রমন নির্দেশক জ সূচক এক এর নীচে নামাতে সহায়তা করে (যদিজ< ১ থাকে সংক্রমনের হার নিম্নমুখী থাকে)। আই এম এফ ও বিশ্বব্যাংক বলেছে, “ফলপ্রসু লকডাউনের মাধ্যমে সংক্রমন নিয়ন্ত্রণকারী দেশ সমূহের দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়নে সক্ষম হয়েছে”।

বাংলাদেশ প্রেক্ষিতঃ
বাংলাদেশে ৮ই মার্চ সর্বপ্রথম ইটালী ফেরত ৩ জনের দেহে করোনা ভাইরাস সনাক্ত নিশ্চিত হয় এবং ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। মার্চের শেষে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ৫১ এবং মৃত্যু ঘটে ৫ জনের। এ পর্যায়ে ২৬ শে মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত কোভিড-১৯ বিস্তার প্রতিরোধে সাধারন লকডাউন ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে জীবন-জীবিকা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বজায় রাখার স্বার্থে ব্যবসা বানিজ্য ও অন্যান্য অর্থনৈতিক কর্মকান্ড চালু রেখে কোভিড-১৯ বিস্তার রোধে ৩০ মে ২০২০ পর্যন্ত মোট ৫২ দিন সীমিত আকারে লকডাউন নির্দেশনা চালু রাখা হয়।

বৈশ্বিক অতিমারীর ঘটনাক্রমে করোনা ভাইরাসের ধরন পরিবর্তন ব্রাজিল, যুক্তরাজ্য ও দক্ষিন আফ্রিকা স্ট্রেইন সনাক্ত, ডেল্টা ভাইরাসের উর্ধ্বমুখী সংক্রমনের প্রেক্ষিতে কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় ঢেউয়ের আবির্ভাব ঘটলে ৫ই এপ্রিল থেকে ২য় পর্যায়ের লকডাউনের ঘোষনা প্রদান করা হয়। সর্বশেষ সীমান্তবর্তী জেলা গুলোর আক্রান্তে মৃত্যুর সংখ্যা বৃদ্ধিতে পহেলা জুলাই থেকে ৩য় পর্যায়ের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষনা করা হয়।

সম্প্রতি একটি তুলনামূলক গবেষনায় দেখা গেছে, মার্চ ২০২০ থেকে মে ২০২১ পর্যন্ত রাশিয়ায় আক্রান্তের হার বাংলাদেশের চেয়ে দেড়গুণ বেশি এবং মৃত্যুর হারও ছিল অনুরূপ। বাংলাদেশের তুলনায় যুক্তরাষ্ট্রের আক্রান্তের হার মিলিয়ন প্রতি গড়ে ৪-৬ গুন এবং মৃত্যুর হারও একই হারে বেশি প্রতিয়মান হয়। নিউইয়র্কএবং ইটালিতে পরিচালিত হাইপোথেটিক্যাল মডেল বিশ্লেষণে লকডাউনের পূর্ববর্তী অবস্থা বিবেচনায় দেখা যায় যে, লকডাউন নির্দেশনা কার্যকর না হলে ২০ দিন পর আক্রান্তের হার প্রায় ৮ গুন ও মৃত্যুর হার ৫ গুন বৃদ্ধি পেত। বাংলাদেশে ২য় ঢেউয়ের প্রক্কালে ৫ই এপ্রিল আক্রানেÍর সংখ্যা ছিল ৭,০৭৫। ২০ দিন পর অর্থাৎ ২৪ এপ্রিল আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২,৬৯৭; সে অর্থে উপরোক্ত মডেল বিশ্লেষনের তুলনামূলক বিচারে আক্রান্ত কমেছে ৩৮ শতাংশ । লকডাউন সহ অন্যান্য প্রতিরোধমূলক নির্দেশনাই যে এ হ্রাসের কারণ তা উপরোক্ত মডেল বিশ্লেষনের তথ্যই প্রমান করে। এছাড়া লকডাউন কালে জনসমাগম বন্ধ করায় ২০-২৫%, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধে ২৫-৩০% সংক্রমন হ্রাসে ভূমিকা রাখছে বলে গবেষনায় প্রকাশ।

জাতিসংঘের মতে, কোভিড-১৯ সংক্রমন প্রতিরোধে বৃহৎ পরিসরে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং চলাচল নিয়ন্ত্রনে লকডাউন একটি যথোপযুক্ত পদক্ষেপ। তবে জীবনজীবিকা, অনিবার্য সামাজিক ও অর্থনৈতিক কর্মকান্ড, প্রান্তিক জনগোষ্টির চাহিদাগুলোকে প্রাধান্য দিয়েদেশ সমূহ নিজ নিজ পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারে। কোয়ারেন্টাইন, আক্রান্ত সনাক্তকরন, আইসোলেশন, চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা এবং স্বাস্থবিধির যথাযথ অনুসরন ও উদ্ভুদ্ধকরনই কোভিড-১৯ সংক্রমন প্রতিরোধের মূল হাতিয়ার বলে মতামত পোষন করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
দেশে ইতিমধ্যে ৫৮ লাখ ৮৯ হাজার ১৫ জন ১ম ডোজ এবং ৪২ লাখ ৮৯ হাজার ৯১৩ জন পূর্ন ডোজ সম্পন্ন করেছে। ক্রমান্বয়ে দেশের ৮০ শতাংশ মানুষকে বিনামূল্যে টিকা প্রধান করা হবে। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে চলতি লকডাউনসহ সকল নির্দেশনা মেনে চলা এবং স্বস্থ্যবিধি যথাযথ মেনে চলেই প্রানসংহারী কোভিড-১৯ প্রতিরোধ যুদ্ধে আমরা বিজয়ী হব, এটাই হোক সকলের অঙ্গীকার।

লেখক:

লেঃ কর্ণেল নাজমুল হুদা খান, এমফিল, এমপিএইচ
জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ
সহকারী পরিচালক , কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, কুর্মিটোলা ,ঢাকা।
ই-মেইলঃ [email protected]

আর পড়তে পারেন