শনিবার, ৩১শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কোন্দলে জর্জরিত বুড়িচং উপজেলা আ’লীগ: তিন বছরে ৪ কমিটি !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১১, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

কোন্দলে ভারাক্রান্ত কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগ। বিগত ৩ বছরে এই উপজেলায় ৪টি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ নিয়ে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মধ্যে ধুম্রজাল তৈরি হয়েছে।

প্রথমে ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সালে কুমিল্লা (দ.) জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (এমপি) এবং কুমিল্লা (দ.) জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক রেলপথ মন্ত্রী মো. মুজিবুল হক (এমপি) স্বাক্ষরিত কমিটিতে অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খান সভাপতি ও সাজ্জাদ হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক করে ৭১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

এর ১২ দিনের মাথায় ১৮ ফেব্রুয়ারি আখলাক হায়দারকে সভাপতি ও অ্যাডভোকেট রেজাউল করিমকে সাধারণ সম্পাদক করে কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং ব্রাহ্মণপাড়ার) আসনের এমপি প্রয়াত নেতা অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু (এমপি) আরেকটি নতুন কমিটিতে স্বাক্ষর করেন। তারপর কিছু দিন যেতে না যেতেই পুনরায় অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খানকে আহ্বায়ক করে ২১ জনকে যুগ্ম আহ্বায়ক ৪৯ জনকে সদস্য করে আরেকটি কমিটিতে স্বাক্ষর করেন প্রয়াত নেতা অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু (এমপি)।

এর পর ২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম খানকে সভাপতি ও আখলাক হায়দারকে সাধারণ সম্পাদক করে নতুন আরেকটি বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হয়।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র নীতিমালা অনুযায়ী ৩ বছরের মধ্যে একই উপজেলায় কিভাবে ৪টি কমিটি করা হয় তা বোধগম্য হচ্ছে না কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি।

তিনি বলেন, সম্মেলন ছাড়া ও গঠনতন্ত্র না মেনে এইভাবে ৩ বছরের একই উপজেলায় ৪টি কমিটি অনুমোদন দেওয়া আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও নিয়ম বহির্ভূত।

জানা যায়, আওয়ামী লীগের ওয়েবসাইট যেখানে সারা দেশের সব ইউনিটের কমিটির অনুলিপি সংরক্ষণ করে রাখা হয় সেখানে ২০১৮ সালের ৬ ফেব্রুয়ারির ৭১ সদস্য বিশিষ্ট অ্যাডভোকেট হাসেম খান সভাপতি ও সাজ্জাদ হোসেন সাধারণ সম্পাদক কমিটি পাওয়া গেছে। এর পরে আর কোনো কমিটির আপডেট করা হয়নি।

এই বিষয়ে কুমিল্লা (দ.) জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ২০১৮ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ৭১ সদস্য বিশিষ্ট হাসেম খান সভাপতি ও আমি সাজ্জাদ হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক করে কুমিল্লা (দ.) জেলা আওয়ামী লীগ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে সমন্বয় করে যে কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে এই কমিটি এখনো বৈধ আছে। বাকিগুলো অবৈধ কমিটি করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত আবদুল মতিন খসরুর সরলতাকে পুঁজি করে একটি স্বার্থান্বেষী মহল আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশকারী বিএনপি জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে বার বার সম্মেলন ছাড়া ও আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র না মেনে এবং অসাংগঠনিকভাবে বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের ৩ বছরে ৪টি কমিটি তৈরি করিয়েছেন, যা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দপ্তর সেলে এবং ওয়েবসাইটে নাই।

তিনি আরও বলেন, ২০১৮ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লা (দ.) জেলা আওয়ামী লীগ ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সমন্বয়ে যে কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, এখনো সেই কমিটির মেয়াদ আছে। অতএব বুড়িচং উপজেলা আওয়ামী লীগের বৈধ কমিটি এটাই এবং এই কমিটির মেয়াদ শেষ না হতে কীভাবে আরও ৩টি কমিটি তৈরি করা হয়। একটি কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর আবার সম্মেলনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী নতুন কমিটির অনুমোদন দিতে হয়।

বর্তমান সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল আবুল হাশেম খান বলেন, বর্তমানে আমি বুড়িচং উপজেলার আওয়ামী লীগের সভাপতি দায়িত্ব পালন করছি। কেহ যদি অবৈধ বলে প্রমাণ করতে পারে, তা হলে মেনে নেব।

উপজেলা চেয়ারম্যান ও বুড়িচং উপজেলার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আখলাক হায়দার বলেন, বর্তমানে আমি দায়িত্ব পালন করছি বুড়িচং উপজেলার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে। কেহ যদি অবৈধ প্রমাণ করতে পারে, তা হলে মেনে নেব। এই বিষয় আমি বেশি কথা বলতে চাই না।

সূত্র: যুগান্তর।

আর পড়তে পারেন