মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) ।। সুবিধাজনক অবস্থানে আওয়ামীলীগ বিএনপিতে লড়াই, সুযোগ নিতে চায় জাপা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
অক্টোবর ৪, ২০১৮
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরাঃ
একাদশ জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় ভোটের উত্তাপ ও বাড়তে শুরু করেছে লাকসাম-মনোহরগঞ্জ (কুমিল্লা-০৯) আসনে। শাসক দল আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টি প্রার্থীরা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। যাচ্ছেন ভোটাদের দ্বারে দ্বারে। সম্ভব্য প্রার্থীরা স্থানীয় নানা সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানেও নিজেদের সম্পৃক্ত করছেন। নতুনসহ প্রবীন রাজনীতিবিদদের ছবি সংবলিত পোষ্টারে ছেয়ে গেছে গুরুত্বপূর্ন সব অলি গলিতে। সম্ভব্য প্রার্থীরা প্রচারের কাজে ব্যবহার করছেন আধুনিক প্রযুক্তি মোবাইল ফোন, এসএমএস ও ফেইসবুকে।

কুমিল্লা-৯ (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসনটির একটি বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো, স্বাধীনতার পর থেকে অনুষ্ঠিত সব ক’টি নির্বাচনেই যে প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন, ওই প্রার্থীর দলই সরকার গঠন করেছে। লাকসাম উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা এবং মনোহরগঞ্জ উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন নিয়ে কুমিল্লা-০৯ সংসদীয় আসন। দু’টি উপজেলায় নিয়ে গঠিত আসনটিতে ৩ লাখ ৬৪ হাজার ৭৮ জন ভোটার রয়েছে।

জাতীয় সংসদের ২৫৭ নম্বর এই আসনটিতে স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত হন জালাল আহমেদ, ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত হন নুরুর রহমান, ১৯৮৬ সালে তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত হন ডা.রফিকুল হোসাইন, ১৯৮৮ সালে চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত হন সাইফুল ইসলাম হিরু। ১৯৯১ সালে পঞ্চম ও ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত হন এটিএম আলমগীর, ১৯৯৬ সালের ১২ জুনের সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে এমপি নির্বাচিত বর্তমান এমপি মো.তাজুল ইসলাম। ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত হন কর্নেল (অবঃ) এম.আনোয়ারুল আজিম। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আনোয়ারুল আজিমকে মাত্র ৪৫৮ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে দ্বিতীয় বারের মতো এমপি হন আওয়ামী লীগের মো.তাজুল ইসলাম। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও তৃতীয়বারের মতো এমপি হন মো.তাজুল ইসলাম।

আসনটিতে আওয়ামীলীগ একক প্রার্থী হিসাবে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকলেও বর্তমানে গ্রুপিং, দ্বন্দ্ব ও কোন্দলে জড়িয়েছেন বিএনপি নেতারা। কেন্দ্রীয় বিএনপির দু’নেতা আনোয়ারুল আজিম ও আবুল কালামের মধ্যে নেতৃত্বের দ্বন্দ্বে হতাশাগ্রস্থ তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা। দু’উপজেলার অধিকাংশ নেতা-কর্মীর মনে করেন আসনটি একসময় বিএনপির ঘাটি হিসাবে পরিচিত ছিল, সকল দ্বন্দ্ব ও কোন্দল মিটিয়ে আসনটি পুনরুদ্ধারে সকলকে নিস্বার্থ ভাবে কাজ করতে হবে। অপরদিকে এই আসনটিতে জামায়াতের রাজনৈতিক তৎপরতা কোনঠাসা হয়ে পড়ছে । তবে দলীয় একটি সূত্র জানিয়েছে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য শক্ত প্রার্থীও প্রস্তুত রেখেছে দলটি। কুমিল্লা-৯ আসনটিতে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা একেবারেই নড়বড়ে। জাপা চেয়াম্যানের হাতে সদ্য ফুল দিয়ে পার্টিতে যোগদান করা সাবেক বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য এটিএম আলমগীর নিজেকে মহাজোটের প্রার্থী পরিচয়ে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ দিকে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে আগামী নির্বাচনে প্রার্থিতার প্রস্তুতি নিচ্ছেন, কেন্দ্রীয় বিএনপির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম। নিজের অবস্থান সুসংহত করতে তার অনুসারীদের দিয়ে কমিটি গঠনের কাজও ইতিমধ্যে সম্পন্ন করেছেন তিনি। নির্বাচনকে সামনে রেখে রাজনীতির মাঠে বেশ সরব হয়ে উঠেছেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম। বিএনপির মধ্যে আবুল কালাম শক্ত অবস্থানে থাকলেও কেন্দ্রীয় বিএনপির কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি কর্নেল (অব.) এম আনোয়ারুল আজিম এক সময় পদ থেকে পদত্যাগ করলেও বর্তমানে দলীয় প্রার্থী হিসাবে কোন অংশে তিনি কম নয়। আগামী নির্বাচনে তিনিও সম্ভাব্য প্রার্থী তালিকায় রয়েছেন।

এ আসনে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগ থেকে একক প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বর্তমান এমপি মো. তাজুল ইসলামের নাম উঠে এসেছে। বিএনপি থেকে কেন্দ্রীয় বিএনপির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম, কেন্দ্রীয় বিএনপির কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি কর্নেল (অবঃ) আনোয়ারুল আজিম, কেন্দ্রীয় যুবদলের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ড. রশিদ আহমেদ হোসাইনী ,কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক দপ্তর সম্পাদক ও আমরা জিয়ার সৈনিক কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সফিকুর রহমান সফিক মনোনয়নের জন্য কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডে চেষ্টা তদবীর চালিয়ে যাচ্ছেন। জাতীয় পার্টি থেকে দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রফেসর ড. গোলাম মোস্তফা ও পার্টিতে সদ্য যোগদান করা সাবেক বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য এটিএম আলমগীর, ইসলামীক ফ্রন্ট বাংলাদেশের প্রার্থী মীর মোঃ আবু বাকার , জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন না থাকায় দলটির পক্ষে এ.এফ.এম সোলায়মান চৌধুরী, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনী প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইসলামী শাসন তন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী হিসেবে সেলিম মাহমুদের নাম শোনা যাচ্ছে।

আওয়ামী লীগ ঃ
আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এই আসন আওয়ামীলীগ থেকে হেভিওয়েট প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য ও লাকসাম উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো.তাজুল ইমলাম। তবে আওয়ামীলীগের অনেকের নাম শুনা গেলেও তারা কেউ মাঠে নেই। এদের মধ্যে ৃহত্তর লাকসামের উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য ও কেএম গ্রুপের চেয়ারম্যান লায়ন মো.নুরু ন্নবী ভূইঁয়া কামাল, আওয়ামীলীগ নেতা ও এক্সীম ব্যাংকের পরিচালক ও নাশা গ্রুপের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম হেলাল, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সদস্য, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ও বেসিসের পরিচালক দেলোয়ার হোসেন ফারুক, বৃহত্তর লাকসামের উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও লাকসাম নওয়াব ফয়জুন্নেছা সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো.শাহ আলম উল্লেখযোগ্য। গত নির্বাচনে এদের মধ্যে কেউ কেউ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

লাকসাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. ইউনুছ ভূইয়া বলেন, আ’লীগ থেকে একক প্রার্থী মোঃ তাজুল ইসলাম। গত সংসদ নির্বাচনে আ’লীগ থেকে ৩ জন মনোনয়ন পত্র জমার বিষয়ে বলেন যে কেউ মনোয়ন পত্র জমা দিতে পারে এতে দোষের কিছু নাই। আমাদের এমপি মোঃ তাজুল ইসলাম দু’উপজেলা উন্নয়নে যেমন কাজ করে গেছেন তেমনি এলাকার জনগণের মন কেড়ে নিয়েছেন। আগামী নির্বাচনে দলীয় থেকে একক প্রার্থী হিসাবে তিনি নির্বাচন করবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

বিএনপি ঃ
এই আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম। বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য কর্ণেল (অবঃ) এম.আনোয়ারুল আজিম, যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক, ডাকসুর সাবেক সদস্য ও বিজিএমইএ’র সাবেক পরিচালক ডক্টর রশিদ আহমদ হোসাইনী, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাবেক দপ্তর সম্পাদক ও আমরা জিয়ার সৈনিক কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সফিকুর রহমান সফিক, মনোহরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জেলা বিএনপি নেতা শিল্পপতি ইলিয়াছ পাটোয়ারী।

মনোহরগঞ্জ উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সারওয়ার জাহান দোলন বলেন, এই আসনে লাকসাম উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কালাম ভাইয়ের বিকল্প নেই । আবুল কালাম ভাইকে দলীয়ভাবে মনোনয়ন দিলে বিএনপি’র ঘাটি হিসাবে পরিচিত এই আসনটি পূর্নরুদ্ধার করা সম্ভব হবে। আমরা তৃনমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদেরকে বেগম জিয়া মুক্তির দাবীতে ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।

লাকসাম পৌরসভা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তাজুল ইসলাম খোকন বলেন, লাকসাম-মনোহরগঞ্জে বিএনপিতে আনোয়ারুল আজিমের বিকল্প কোন নেতা নেই। আমাদের প্রতিটি নেতাকর্মী, সমর্থক ও সাধারণ জনগণ কর্ণেল আজিমকে তাঁদের মনে ঠাঁই দিয়েছেন। আজিম ভাইয়ের নেতৃত্বেই ঐক্যবদ্ধ এবং সকল দলীয় কর্মসূচী পালন হচ্ছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আজিম ভাই ছাড়া অন্য কাউকে এই আসনে চিন্তা করলে বিএনপিকে একটি নিশ্চিত আসন হারাতে হবে।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী মনোনয়ন প্রত্যাশী আবুল কালাম বলেন, দলীয় হাই কমান্ডের নির্দেশই আমি নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছি। লাকসাম-মনোহরগঞ্জে বিএনপিকে শক্তিশালী করতে আমি বহু আগ থেকেই কাজ করে যাচ্ছি। আমি দলের পুরাতন লোক। আগেও মাঠে ছিলাম, এখনও আছি। এবারের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করব এবং বিজয়ী হব ইনশাল্লাহ । তিনি বলেন, লাকসাম-মনোহরগঞ্জে বিএনপির নেতাকর্মীরা আমার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। আমি সবাইকে নিয়েই দল গুছিয়ে যাচ্ছি। কর্ণেল আজিম দলের মধ্যে বিশৃংখলা সৃষ্টি করছেন। তিনি এখন বিএনপির কেউ না। প্রতিটি কমিটিতে আমাদের লোকজন রয়েছে। আজিমের অনুসারীদের কমিটিগুলো বিলুপ্ত হয়ে গেছে। এছাড়া তিনি পদত্যাগ করেছেন, আবার তা প্রত্যাহারের জন্যও আবেদন করেছেন। লাকসাম-মনোহরগঞ্জে তাঁর শূণ্যস্থান পূরণ হয়ে গেছে। সকলে এখন আমার সাথে কাজ করছে।
ধানের শীষের আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক সংসদ সদস্য কর্ণেল (অবঃ) এম.আনোয়ারুল আজিম বলেন, ২০০১ সাল থেকে এই পর্যন্ত প্রতিটি নির্বাচনে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে তৃণমূল বিএনপির নেতাকর্মীদের নিয়ে দলকে সুসংগঠিত করার জন্য কাজ করছি। আর আমার কাছে বর্তমানে দলীয় মনোনয়নের চিন্তার চেয়ে বেশি জরুরী হলো, দলের সকল নেতাকর্মীদের সুসংগঠিত ও ঐক্যবদ্ধ রাখা। কারন লাকসাম-মনোহরগঞ্জ হলো বিএনপির ভোট ব্যাংক। আর আমি রাজনীতি করি দল ও মানুষের কল্যাণে। ইনশাল্লাহ বিএনপি আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে আমার উপরই আস্থা রাখবে।
বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ডক্টর রশিদ আহমদ হোসাইনী বলেন, আমি রাজনীতিতে কোন গ্রুপিং করি না। যারা বিএনপির বহিষ্কার ও সংস্কার রাজনীতি করে তারা কখনো দলীয় স্বার্থে রাজনীতি করে না বরং তারা ব্যক্তি স্বার্থে ফায়দা হাসিল করতে রাজনীতি করছে। তিনি বলেন, নির্বাচন থেকে এখন বিএনপির বড় ইস্যু দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তির আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া। কুমিল্লা-৯ আসনে আমার জনপ্রিয়তা কতটুক তা তৃনমূলনেতা কর্মীসহ সাধারণ ভোটাররা নির্ণয় করবে। প্রাপ্তি-প্রত্যাশার রাজনীতি না করায় নেতা-কর্মীরা আমাকে পছন্দ করে। দল যদি আমাকে মনোনয়ন দেয় এবং সুষ্ঠু নির্বাচন হয় তা হলে আমি বিপুল ভোটে জয়ী হবো ইনশাল্লাহ।

জাতীয় পার্টি ঃ
দীর্ঘদিন ধরে কুমিল্লা-৯ আসনে অস্তিত্ব সংকটে রয়েছে সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি। সংসদে জাপা বিরোধী দলের ভূমিকায় থাকলেও এখানে কোন্দলের কারনে দলটির অস্তিত্ব সংকটে । তবে ২৩ এপ্রিল ১৮ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে জাপায় যোগদান করেছেন এই আসনের সাবেক বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য এটিএম আলমগীর। নির্বাচন প্রসঙ্গে এটিএম আলমগীর জানান, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-৯ আসন থেকে তিনি জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং নির্বাচন করবেন। এদিকে জাতীয় পার্টি আর এক নেতা, এর আগে জাতীয় পার্টির নাঙ্গল প্রতীকে এই আসন থেকে ৩ বার নির্বাচনে অংশ নিয়ে জামানত হারিয়েছেন অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা। তিনিও দলটির মনোনয়ন প্রত্যাশী বলে জানা গেছে।

জামায়াত ও অন্যান্য ঃ
এই আসনে ইতিমধ্যে জামায়াতের প্রার্থী হিসেবে জনপ্রশাসন ও সংস্থাপন মন্ত্রণালয়ের সাবেক সচিব এবং কেন্দ্রীয় জামায়াতের শুরা সদস্য এ.এফ.এম সোলায়মান চৌধুরীর নাম শোনা যাচ্ছে। সোলায়মান চৌধুরী ফেনি জেলার জেলা প্রশাসক থাকাকালে জয়নাল হাজারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে ওই সময়ে দেশজুড়ে আলোচিত হয়েছিলেন।

অপরদিকে, এই আসনে ইসলামীক ফ্রন্ট বাংলাদেশ প্রার্থী হিসেবে মীর মোঃ আবু বাকারের নাম শোনা যাচ্ছে। নির্বাচনকে গিরে এই আসনে মীর আবু বকর এর ছবি সম্বলিত চেয়ার মার্কায় পোষ্টার চোখ পড়ার মতো। নির্বাচন সর্ম্পকে ইসলামীক ফ্রন্টের প্রার্থী আবু বকর জানান, আমরা স্বাধীনতা স্বপক্ষে আল্লাহ রাসুলের ইসলামীক শাসন ব্যবস্থায় কায়েম লক্ষ্যে রাজনীতি করে দেশ ও জাতীয় কল্যাণে কাজ করা ইসলামীক ফ্রন্টের মূল লক্ষ্য।

আর পড়তে পারেন