সোমবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা-৩ মুরাদনগর আসন আ’লীগে বাবা-ছেলে বিএনপিতে ৪ ভাই ও স্বামী-স্ত্রীর মনোনয়ন যুদ্ধ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৮, ২০১৮
news-image

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগরঃ
আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়নকে ঘিরে সমগ্র দেশের মতো কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনেও আলোচনা সমালোচনার কমতি নেই।

এ আসনে স্থানীয় সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন ও কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার তার ছেলে উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব ড. অহসানুল আলম কিশোরসহ আ’লীগের মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছে ১৫জন।
বিএনপি থেকে মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ ও তার ৩ ভাই। অপর দিকে সাবেক গণপূর্ত মন্ত্রী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া ও তার স্ত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ড. শাহিদা রফিকসহ মোট ৯জন।

তবে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ রওশন আরা মান্নানসহ ৫জন।

এদিকে মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী বাবা-ছেলে, ৪ ভাই ও স্বামী-স্ত্রীসহ সবাই। একই পরিবারের লোকজন মনোনয়ন প্রত্যাশি হওয়াটাকে কেউ কেউ মনে করছেন, মনোনয়ন নিয়ে দলকে চাপে রাখতেই পিতা-পুত্র, স্বামী-স্ত্রী বা স্বজনরা একই দল থেকে ফরম নিয়েছেন। তবে মুখে অবশ্য এটি স্বীকার করেননি কোনো স্বজনই। তারা প্রত্যেকেই বলছেন, নিজেকে যোগ্য মনে করেই মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন।

এ প্রসঙ্গে আহসানুল আলম সরকার কিশোর বলেন, ‘বাবা মনোনয়ন পেলে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াব। কোনো কারণে যদি তিনি নির্বাচন না করেন সেক্ষেত্রে মনোনয়নের ব্যাপারে কঠোর থাকব আমি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তই আমাদের কাছে চুড়ান্ত।’

একই আসনে বিএনপি থেকে নির্বাচন করতে চান বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ, তার ভাই কেএম মজিবুল হক, কাজী জুন্নুন বসরী, কাজী শাহ্ আরফিন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া তার স্ত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ড. শাহিদা রফিক, ঢাকা দক্ষিন শ্রমীক দলের সাধারন সম্পাদক কাজী আমীর খসরু, এড. নূর এ আলম ও ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মামুন। মনোনয়ন প্রত্যাশি সকলেই নিচ্ছেন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ভোটযুদ্ধের প্রস্তুতি। তাদের সকলেরই বিশ্বাস, আসন্ন নির্বাচনে নিজ দলের হয়ে মনোনয়ন পাবেন তারা।

এ প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, ‘আমি অনেক আগে থেকেই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। ১৯৯১ ও ‘৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারীর নির্বাচনে এ আসনে দু’বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি। ওই সময় থেকে নেতাকর্মীদের সঙ্গে সম্পৃক্ততাও বাড়িয়েছি। তাই আশা করছি এবার মনোনয়ন পাব। স্ত্রীও যদি দল থেকে মনোনয়ন পায় আমার বিশ্বাস, নিশ্চিতভাবে বিজয় আনতে পারবো।’

তবে এ আসনের জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশি অধ্যক্ষ রওশন আরা মান্নান । জনসাধারনের এছাড়াও জাতীয় পার্টির মনোনয়ন আশা করছেন, নাজমা আক্তার, আক্তার হোসেন, আনোয়ার হোসেন মোল্লা ও আলমগীর হোসেন।

এদিকে আ’লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী জাহাঙ্গীর আলম সরকার বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি আমাকে সুযোগ দেন তবে বিজয় উপহার দিতে পারব আমি। এ আসনে যদিও আমাকে ছাড়া আ’লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক স্থানীয় সংসদ সদস্য ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন এফসিএ, কেন্দ্রীয় আ’লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ সম্পাদক আ.খ.ম গিয়াস উদ্দিন, কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ম. রুহল আমিন, হানিফ সরকার, মুরাদনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ আব্দুল কাইয়ুম খসরু, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি সৈয়দ আহাম্মদ হোসেন আউয়াল, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সদস্য সচিব ড. এহসানুল আলম সরকার কিশোর, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম, উপজেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি সফিকুল ইসলামের ছেলে আবু কাওছার সরকার মাসুদ, উপজেলার শ্রীকাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা অলিউল্লাহ পলাশ, আবুল কালাম ও জাহাঙ্গীর আলম আ’লীগের মনোনয়ন ফরম ক্রয় করেছেন। আমার বিশ্বাস মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিলে আমার বিপক্ষে যদি এ আসনে খালেদা জিয়াও নির্বাচন করেন, নিশ্চিতভাবে হারবেন তিনি।

স্থানীয় সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন বলেন, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ উপজেলার জনগন আমাকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছিলো, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহযোগীতায় চেষ্টা করেছি তাদের পাশে থেকে উপজেলার উন্নয়ন করতে। গত ৪ বছরে এ উপজেলায় ১ হাজার কোটি টাকারো বেশি উন্নয়ন হয়েছে। যা স্বাধীনতার পর এ উপজেলায় উন্নয়নের রেকর্ড গড়েছে। আর তা শুধু করতে পেরেছি উপজেলার সকল শ্রেনীর মানুষ আমাকে সহযোগীতা করেছে বলে। আমার বিশ্বাস জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে আ’লীগ থেকে মনোনয়ন দেন। তবে উপজেলার জনসাধারনকে সাথে নিয়ে খুব সহজেই বিজয়ী হবো।

আর পড়তে পারেন