মঙ্গলবার, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা সড়ক-মহাসড়কে মৃত্যুর মিছিল কেন থামছে না?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জানুয়ারি ২০, ২০১৯
news-image

 

সেলিম সজীবঃ

কোনোমতেই থামানো যাচ্ছে না সড়ক-মহাসড়কে মৃত্যুর মিছিল। প্রতিদিনই ঝরছে তাজা প্রাণ। গতকালও কুমিল্লা জেলায় দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন অন্তত ৮ জন। এছাড়া এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরো ১৫ জন। সড়ক দুর্ঘটনায় কুমিল্লায় এক দিনেই ঝরে গেল ৮টি প্রাণ। অথচ সড়ক-মহাসড়ক-সেতুই সরকারের উন্নয়নের অন্যতম প্রতীক। বাস্তবে তা বাণিজ্যের উর্বরক্ষেত্র আর ক্ষেত্রবিশেষে গণমৃত্যুর ফাঁদে পরিণত হয়েছে।

দাউদকান্দি প্রতিনিধি জানান, গতকাল সকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জে সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা কাভার্ডভ্যানকে ধাক্কা দেয় দ্রুতগতির ঢাকাগামী একটি গ্রীণ লাইন পরিবহন। এতে কাভার্ডভ্যানের চালক ও বাসের সুপারভাইজার ফাহাদ আলী রাজি আহত হন। স্থানীয়রা ফাহাদকে গৌরীপুরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে ঢাকায় নেয়ার পথে মারা যান কাভার্ডভ্যান চালক। দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, শুনেছি একটি দুঘর্টনা ঘটেছে।

কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্টে প্রতিনিধি জানান, গতকাল দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট মার্কেট সংলগ্ন এমপি চেকপোস্টের সামনে ময়নামতি হাইওয়ে পুলিশের রেকারের নিচে চাপা পড়ে এক বেদে সম্প্রদায়ের নারীর মৃত্যু হয়েছে। নিহতের পরিচয় পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে ময়নামতি হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান জানান, মারুতি পরিবহন থেকে পড়ে রেকারের সাথে ধাক্কা খেয়ে তার মৃত্যু হয়েছে।

দাউদকান্দি প্রতিনিধি জানান, গতকাল বিকেল পৌণে ৩ টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দি উপজেলার গৌরিপুর বাসস্ট্যান্ডের পশ্চিম পাশে মায়ের দোয়া পরিবহন বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে তিনজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে কমপক্ষে ১২ জন যাত্রী। নিহতদের মধ্যে দুইজন পুরুষ যাত্রী এবং একজন মহিলা পথচারি। তাদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ জানান, ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী মায়ের দোয়া পরিবহন নামের বাসটি প্রথমে একজন মহিলা পথচারিকে চাপাঁ দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাঁদে পড়ে যায়। এ সময় বাসের দুইজন পুরুষ যাত্রী নিহত হন। এ ঘটনায় আরো ১২ জন যাত্রী আহন হন।

বুড়িচং প্রতিনিধি জানান, গতকাল দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার কোরপাই এলাকায় আরেকটি দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ২ জন নিহত হয়।

ময়নামতি হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক এখলাসুর রহমান জানান, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা একটি প্রাইভেট কারের সামনের চাকা ফেটে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে খাদে পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বেপরোয়া গতি কেড়ে নিচ্ছে প্রাণ এ দেশে সড়ক দুর্ঘটনার অতি উচ্চ হারের কারণ বহুমুখী। নির্ধারিত গতিসীমার চেয়ে অনেক বেশি গতিতে যান চালানোর প্রবণতা প্রধান কারণগুলোর একটি। কোনো কোনো বিশেষজ্ঞ বলেন, সড়কের সংকীর্ণতা, বিপজ্জনক বাঁক ইত্যাদি সমস্যাকে ছাপিয়ে যায় বেপরোয়া যান চালানোর প্রবণতা।

অনেক চালক রাস্তা ফাঁকা পেলেই যানবাহনের গতি বিপজ্জনক মাত্রায় বাড়িয়ে দেন, ফলে দুর্ঘটনা বেশি হয়, হতাহত মানুষের সংখ্যাও অনেক বাড়ে। বেপরোয়া যান চালিয়ে দুর্ঘটনা ঘটিয়ে প্রাণহানির দায়ে চালকের বিচার ও শাস্তি হয় না। এমনকি শাস্তির দাবি উঠলে, কিংবা মামলা হলে মোটরযান শ্রমিকেরা আন্দোলন শুরু করেন, মন্ত্রী পর্যায়ের নেতারাও সেই অন্যায় আন্দোলনে ইন্ধন জোগান। এভাবে চালকদের দোষে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানির ঘটনাগুলো প্রতিকারহীন থেকে যায়। মোটরযান আইনে সড়ক দুর্ঘটনায় দণ্ডিত চালকের সর্বোচ্চ শাস্তি তিন বছরের কারাদণ্ড; কিন্তু এই আইনের প্রয়োগ নেই; দণ্ডবিধির অধীনে মামলা হলে সে মামলার নিষ্পত্তি হয় না।

যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ, ট্রাফিক পুলিশ—সবাই যেন ধরে নিয়েছে সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের প্রাণহানি ও অঙ্গহানি যেন অপ্রতিকার্য সমস্যা। কিন্তু এভাবে আর চলতে দেওয়া যায় না। যানবাহনের চালকদের বেপরোয়া যান চালানো দ্রুত বন্ধ করতে হবে। লাইসেন্সবিহীন যানচালক, ফিটনেসবিহীন যানবাহন যেন রাস্তায় নামতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে হবে।

আর পড়তে পারেন