বৃহস্পতিবার, ১৪ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা সদরের পূর্বাঞ্চল মাদক ব্যবসার বড় হাট, বেপরোয়া কিশোর গ্রুপ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৪, ২০২১
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু:
কুমিল্লা জেলা এখন মাদকের স্রোতে ভাসছে। বলা যায় এ জেলা এখন উর্বর ভূমি। কিশোর-যুবক থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত সব বয়সী মানুষই মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। বিশেষ করে কুমিল্লার পূর্বাঞ্চল এলাকাগুলো মাদকের করাল গ্রাসে আক্রান্ত। সম্প্রতি যোগদান করা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ জেলায় মাদক বিস্তার রোধে বেশ সক্রিয় ভূমিকা পালন করছেন। গত ২০ বছর ধরে মাদক এ জেলার রন্ধে রন্ধে নিজের অবস্থান শক্ত করে নিয়েছে। ফলে হাত বাড়ালেই মাদক পাওয়া যাচ্ছে। মাদক নিয়ে ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ প্রথম পর্বে থাকছে “সদরের পূর্বাঞ্চল পরিস্থিতি”।

পূর্বাঞ্চল এলাকাগুলোর মাদকের স্পটগুলো হলো -কুমিল্লা নগরীর ১৫ নং ওয়ার্ডের কাশারীপট্টি, কাশারীপট্টি চৌমুহনী, চকবাজার, বাসস্ট্যান্ড, পুরাতন মৌলভীপাড়া, কাটাবিলের গদার মার কলোনী, হযরতপাড়া মাঠ, বেবি স্ট্যান্ড, পৌর মার্কেট, বজ্রপুর, ৬ নং ওয়ার্ডের গর্জনখোলা, ধোয়াপট্টি, ১৮ নং ওয়ার্ডের নুরপুর, তেলিকোনা, ১৭ নং ওয়ার্ডের সুজানগর, টিক্কাচর, পাথুড়িয়াপাড়া, জগন্নাথ মন্দির, গোবিন্দপুকুরপাড়, ১৬ নং ওয়ার্ডের সংরাইশ, নবগ্রাম, মুক্তার বাড়ির গলি, চক্ষু হসপিটালের সামনে, কলের পুকুর পাড়, ১২ নং ওয়ার্ডের নানুয়াদিঘীর দক্ষিণ ও পূর্ব পাড়। এছাড়া গোমতী ব্রিজ, পাচঁথুবি ইউনিয়ন, জগন্নাথপুর ইউনিয়ন মাদকের উর্বর ভূমি। এ সব এলাকায় মাদকের সাথে জড়িত রয়েছে কমপক্ষে ২ শতাধিক কিশোর-যুবক ও মহিলা।

এসব এলাকায় দিনে দুপুরে মাদক বিক্রি হচ্ছে অবাধে। ফেনসিডিল, বিশেষ করে হেরোইন, গাজা ও ইয়াবা বিক্রির অন্যতম হাট এসব এলাকার স্পটগুলো। এসব এলাকায় মাদক সহজলভ্য হয়ে যাওয়ায় যুব সমাজ সহজে মাদকাসক্ত হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া তারা চুরি-ছিনতাই ইত্যাদির সাথেও জড়িত হয়ে পড়ছে। কাশারীপট্টি, পুরাতন মৌলভীপাড়া, কাটাবিল, বজ্রপুর, গদার মার কলোনী,তেলিকোনা, সংরাইশ, সুজানগর এলাকাগুলোতে প্রায় মাদক নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটে। মাদক নিয়ে প্রায় ৪টি হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এলাকাগুলোতে এখন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলে মাদক সেবনকারি হোন্ডা চালক-আরোহীদের আসা-যাওয়া।

স্থানীয় বিভিন্ন সূত্রে এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, কাশারীপট্টি, চকবাজার, কাটাবিল, গর্জনখোলা, মুরাদপুর এলাকায় গত ৫ বছরে মাদকাসক্ত হয়ে মারা গেছেন অন্তত ৫৬ জন। সেই সাথে এসব পরিবারের ভবিষ্যতও অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়েছে। মাদকাসক্ত হয়ে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ২টি।
মাদকের প্রসার নিয়ে শংকিত স্থানীয় লোকজন। তারা জানান,মাদক ব্যবসায় তরুণ, যুবকরা জড়িয়ে পড়েছে। সন্ধার পর থেকে বহিরাগত ছেলেদের আনাগোনা বেড়ে যায়। প্রায় সময় মাদকের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। আমরা বেশ আতংকে থাকি সব সময়।

মাদক রোধে কাজ করছেন জেলা পুলিশ। গত ১/২ মাসে বেশ সফল অভিযান পরিচালনা করেছে পুলিশ।

মাদক বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সোহান সরকার বলেন, পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশে আমরা মাদকের নেটওয়ার্ক ভেঙ্গে দেয়ার জন্য কাজ করছি। আমরা সম্প্রতি এ জেলায় ২ টন গাজাঁ ও হাজার হাজার ইয়াবা উদ্ধার করেছি। কুমিল্লা কোতয়ালী এলাকায় বেশি মাদকের অভিযান পরিচালনা করেছি। গত মে মাসে ৭১টি মাদকের মামলা দায়ের করা হয়েছে। থানা পুলিশ ৪৭ জন মাদক মামলার আসামিকে গ্রেফতার করেছে। মাদকের গডফাদাররা এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। মাদক পরিবহনের স্পটগুলোতে আমরা চেকপোষ্ট বসিয়ে মাদক প্রসার রোধে কাজ করছি।

 

আর পড়তে পারেন