মঙ্গলবার, ১৮ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা-লাকসাম-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কে সীমাহীন দুর্ভোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ২৯, ২০১৭
news-image

সেলিম চৌধুরী হীরা, লাকসাম:
কুমিল্লা-লাকসাম-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে অসংখ্য খানা-খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। লাকসাম জংশন থেকে খিলা বাজার পর্যন্ত প্রায় ১০কিঃমিঃ দূরত্বের মহাসড়কটির বিভিন্ন অংশে অসংখ্য ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বর্ষার মৌসুম হওয়ায় গর্তগুলোতে পানি জমে বেহাল দশায় পরিনত হয়। ফলে পথচারীসহ পরিবহন যাত্রীরা প্রতিনিয়ত তছনছ সড়কে সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। এ সড়কে চলাচলরত যানবাহনগুলো ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এবং দিনদিন দুর্ঘটনা বাড়ছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়ে কুমিল্লা-লাকসাম আঞ্চলিক মহাসড়কের লাকসাম অঞ্চলে প্রায় ১০ কিঃমিঃ রাস্তা চলাচলের অযোগ্য ও মরন-ফাঁদে পরিণত হয়েছে। লাকসাম জংশন, মিশ্রি, চাঁদপুর রেলগেইট, বাইপাস, ফতেপুর, চন্দনা বাজার, খিলা বাজার সড়কের মাঝখানেই সৃষ্টি হয়েছে ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত। বৃষ্টি হলে জমছে পানি। সূর্য উঠলে উড়ছে ধুলোবালি। জনগণের ত্রাহি অবস্থা। এতে প্রতিদিনই ঘটছে প্রায় ছোট-বড় দুর্ঘটনা। এসব স্থানে কার্পেটিং উঠে গিয়ে গর্ত তৈরী হওয়ায় এ সড়কে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রীদের যাতায়াত করতে পড়তে হয় সীমাহীন দুর্ভোগে।

দীর্ঘদিন যাবৎ পূর্নাঙ্গভাবে সড়কটির সংস্কার না হওয়ায় অল্প বৃষ্টিতেও খানাখন্দের সৃষ্টি হয় বারবার। সড়ক ও জনপথ বিভাগ কয়েকদিন পরপর নামমাত্র এসব গর্তে সুড়কি, ইট, বালু দিয়ে সড়কটি সচল রাখার চেষ্ঠা করলেও এর স্থায়িত্ব হয় অল্প কয়েকদিন, পরে আবার যেই সেই। ভাংঙ্গাচুরায় তছনছ হওয়া এসব রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে জনসাধারণকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এসব গর্তে পানি জমে ময়লা ও কাদাজলে একাকার অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। খানাখন্দে ভরা রাস্তাগুলো দিয়ে সাইকেল, রিকশা, ভ্যান, চলাচলের সময় চাকা দুমড়ে-মুচড়ে যাচ্ছে আর বাস, ট্রাক, মোটর সাইকেল, মাইক্রোবাস চলাচলে ঘটছে ছোট-খাটো দুর্ঘটনা। এসব রাস্তায় যাতায়াত কারীদের অভিযোগ, রাস্তার নির্মাণ কাজের গুণগত মান নিম্নমানের হওয়ায় বারবার বিভিন্ন স্থানে কার্পেটিং ওঠে গিয়ে ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে গাড়ির গতি কম থাকায় সৃষ্ট যানজটে সময় অনেক বেশি লাগছে।
এ সড়কে সওজ কর্তৃপক্ষ মাঝে মাঝে কার্পেটিংয়ের উপরের স্তর তুলে বা যেখানে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে সেখানে কিছু পাথর আর খোয়া দিয়ে দায়সারাভাবে মেরামত করে আসছে। এ সড়কটি দেশের একটি গুরুত্বপূর্ন সড়ক হলেও সওজের কাছে যেন কিছুই না। এমন দায়সারা কাজ করে চলেছে এ দপ্তরটি। এতে করে বিশেষ মহল মনে করেন টুকটাক মেরামতে রাষ্ট্রের যেমন অর্থ অপচয় হচ্ছে তেমনি সরকারের প্রতি নেতিবাচক মনভাবও তৈরী হতে পারে সাধারণ জনগণের মাঝে।

তিশা পরিবহনের চালক নুরু মিয়া জানান, দীর্ঘ ৭বছর ধরে ঢাকা-লাকসাম মহাসড়কে ড্রাইভিং করে আসছি। কিন্তু কুমিল্লা থেকে লাকসাম অঞ্চলের সড়কগুলোতে গত দু-বছর ধরে খানা-খন্দের কারণে প্রতিনিয়ত গাড়ির যত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে। বিশেষ করে যাত্রীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয়। আবার গাড়ির চাকা গর্তে পড়লে অনেক সময় হেলপার ও গাড়িতে থাকা মালামাল সড়কে পড়ে যায়।
মিশ্রি গ্রামের আবদুস সামাদ বলেন, এ সড়কে প্রতিদিন মোটরসাইকেলে করে মেয়েকে স্কুলে যাতায়াত করাতে অনেক কষ্ট হয়। দু-একদিন আগে মেয়েকে নিয়ে স্কুলে যাওয়ার সময় মোটরসাইকেল গর্তে পড়ে আমি ও মেয়ে শরীরে আঘাত পাই এবং তার বই-খাতা ভিজে যাওয়ায়।
লাকসাম পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মোতালেব খান বলেন, কুমিল্লা-নোয়াখালীর লাকসাম অঞ্চলে সড়ক ও জনপথের প্রায় ১০ কিঃমিঃ সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। কয়েক দিনের টানা বর্ষণে এ সড়কটি যানবাহন চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে ইতিমধ্যে। সড়কগুলো যেভাবে মেরামত করা হচ্ছে, তা কোনো কাজে আসছে না। মেরামতের দুদিন না যেতেই আবার গর্ত সৃষ্টি হচ্ছে। বড় বড় গর্তের কারণে গাড়ির অনেক মূল্যবান ষন্ত্রাংশ নষ্ট হচ্ছে। এতে করে প্রতিদিনই পরিবহন মালিকদের গুনতে হচ্ছে মোটা অংকের জরিমানা।
কুমিল্লা সড়ক ও জনপথের উপ-সহকারী রেজাহী রাব্বী বলেন, গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে সড়কের পাশে দোকান-পাঠের জন্য জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়ে খানা-খন্দ তৈরি হয়। ইতিমধ্যে কুমিল্লা টমছম ব্রিজ থেকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ পর্যন্ত ৫৯ কিঃমিঃ এ সড়কটি ফোর লেনে উন্নত করার জন্য প্লানিং প্রোগ্রামের আওতায় আনা হয়েছে। বর্ষার মৌসুম শেষ হলেই আমরা এ সড়কটির মেরামত কাজ শুরু করবো।

আর পড়তে পারেন