শুক্রবার, ১৮ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা মহাসড়কে পুলিশের চেকপোস্টে যানবাহন আটক করে ঘুষ আদায়ের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১২, ২০২১
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট:

কুমিল্লায় হাইওয়ে পুলিশের চেকপোস্টে বিভিন্ন ধরনের যাত্রীবাহী যানবাহন আটক ও ঘুষ আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের দাউদকান্দি এবং ইলিয়টগঞ্জ এলাকায় হাইওয়ে পুলিশ চেকপোস্ট স্থাপন করে ঈদে ঘরমুখো মানুষকে হয়রানি করে এসব উৎকোচ বা ঘুস আদায় করছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রী এবং চালকরা।

মহামারি করোনাভাইরাসের ফলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যাত্রীবাহী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় বিকল্প যানবাহন হাইয়েস, নোহা, প্রাইভেটকার এবং মিনি পিকআপযোগে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরছেন মানুষ। আর এ সুযোগে এসব যানবাহনকে চেকপোস্টে আটক করে অর্থ আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বেশকিছু চালক এবং যাত্রী।

এদিকে যাত্রীবাহী যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও কিছু কিছু যাত্রীবাহী বাস যাত্রীদের কাছ থেকে পাঁচ-সাতগুণ বেশি ভাড়া আদায় করে মহাসড়কে চলাচল করছে। আর এসব যাত্রীবাহী বাস থেকে মোটা অংকের উৎকোচ আদায় করছে হাইওয়ে পুলিশ।

গাদাগাদি করে এসব যানবাহন যাত্রী বহন করলেও এসব যানবাহনের বিরুদ্ধে আইনগত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ না করে রফাদফার মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আবার কিছু কিছু যানবাহন থেকে যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে অমানবিক কাজও করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এতে নারী ও শিশুরা বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

বিশেষ করে মহাসড়কের ইলিয়টগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির সামনে নিরাপত্তা তল্লাশির নামে যাত্রীবাহী এসব যানবাহনকে সিগন্যাল দিয়ে থামিয়ে অর্থ আদায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ চালকদের।

এদিকে নিরাপত্তা তল্লাশির নামে যানবাহন আটকের ফলে মহাসড়কে থেকে থেমে যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে ঈদে ঘরমুখো মানুষ যেমন ভোগান্তিতে পড়ছে তেমন পণ্যবাহী যানবাহনগুলোও বিপাকে পড়ছে।

তবে নিরাপত্তা তল্লাশি ছাড়া কোনো যানবাহন থেকে অর্থ আদায় করা হচ্ছে না বলে দাবি হাইওয়ে পুলিশের। চালকদের এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন বলেও হাইওয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

ঢাকা থেকে নোয়াখালীগামী টিআরএক্স হাইয়েসের যাত্রী আকরাম হোসেন জানান, প্রতিটি যাত্রীবাহী হাইয়েস নোহা প্রাইভেটকারসহ নানা ধরনের যানবাহন আটক করছে ইলিয়টগঞ্জ ফাঁড়ির পুলিশ। পরে চালককে ডেকে নিয়ে কাগজপত্র চেক করছে এবং মামলার ভয় দেখাচ্ছে। চাহিদা অনুযায়ী উৎকোচ দিলে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে।

ঢাকা থেকে চাঁদপুরগামী হাইয়েস চালক আবু ফয়সাল বলেন, আমি রিজার্ভ যাত্রী নিয়ে এসেছি, কিন্তু তাও আমাকে এক ঘণ্টা আটক করে রেখেছে দাউদকান্দি হাইওয়ে পুলিশ। তারপর তাদের ম্যানেজ করেই ছাড় পেয়েছেন, বাকিটা আর বলতে পারব না ভাই।

এছাড়া বেশ কিছু বাসযাত্রীও হাইওয়ে পুলিশের এমন উৎকোচ আদায় দেখে হতবাক হয়েছেন। অভিযোগের বিষয়ে কথা বলার জন্য দীর্ঘক্ষণ ফোনে চেষ্টা করা হলেও ফোন রিসিভ করেননি ইলিয়টগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ।

দাউদকান্দি হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহিরুল হক জানান, নিষিদ্ধ যানবাহনে যাত্রী বহনকারীদের আটক করা হচ্ছে। পরে এভাবে যাত্রী পরিবহন অবৈধ এবং সামনের দিকে যাত্রী বহন করার শর্তে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, চেকপোস্টে দায়িত্বরত কোনো পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে যদি উৎকোচ গ্রহণের অভিযোগ পাই তাহলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরও বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে মহাসড়কে যানবাহনের চাপ কিছুটা বেড়েছে। তবে তা নিয়ন্ত্রণের জন্য হাইওয়ে পুলিশের তৎপরতাও বাড়ানো হয়েছে।

সূত্র: যুগান্তর।

আর পড়তে পারেন