বৃহস্পতিবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ৬, ২০১৭
news-image

শাহাদাত বিপ্লব, কুবি ঃ
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের চলমান অন্দোলনের মধ্যেই উপাচার্যের বিরুদ্ধে আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা বানচালের অভিযোগ করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। সোমবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতি এ অভিযোগ করে।
মানববন্ধনে শিক্ষক নেতারা বলেন, ‘আগামী ১৭ এবং ১৮ নভেম্বর আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা বন্ধ করার উদ্দেশ্যে উপাচার্য তার মদদপুষ্ট শিক্ষকদের দিয়ে নীল নকশা বাস্তবায়ন করতে চাচ্ছেন। ভর্তি পরীক্ষার টেকনিক্যাল কমিটি ওএমআর শীট আনার জন্য তারিখ নির্ধারণ করেছে ১৩ নভেম্বর। এই ওএমআর শীট ক্রয়ে সমন্বয় করছেন টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান উপাচার্যপন্থী শিক্ষক দুলাল চক্রবর্ত্তী। ওএমআর শীটে ভুল ক্রটি আছে কিনা তা যাচাই বাচাই করে এত অল্প সময়ে কিভাবে ভর্তি পরীক্ষা সম্পন্ন করা সম্ভব। এই টেকনিক্যাল কমিটি কোন কাজই করেনি।’
শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান অভিযোগ করে বলেন, ‘এখানে উপাচার্য তার মদদপূষ্ট শিক্ষকদের নিয়ে সুক্ষ ষড়যন্ত্র করছেন। ‘বি’ ইউটিনের আসন বিন্যাস ও কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা কমিটির আহবায়ক হলেন উপাচার্যপন্থী শিক্ষক এম এম শরীফুল করীম এবং সদস্য সচিব হলেন উপাচার্যের ছাত্র প্রক্টর ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন। এই কমিটি ‘বি’ ইউনিটের আহবায়কের সাথে কোন মিটিং করেনি। কোন সহযোগীতা তারা করেননি। এ অবস্থায় কিভাবে ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু হতে পারে?’ এদিকে ‘এ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় কেন্দ্রে ‘প্রশ্নপত্র এবং ও এম আর শীট বিতরণ’ উপকমিটির প্রধান উপাচার্যপন্থী শিক্ষক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সৈয়দুর রহমান কোন কারণ ছাড়াই পদত্যাগ করেছেন মানববন্ধনে এমন দাবিও করেন শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ।
মানববন্ধনে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসানের উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষক সমিতির সহ-সভাপতি এন এম রবিউল আউয়াল চৌধুরী, শামীমুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজী ওমর সিদ্দকী ,বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো: জিয়া উদ্দিন প্রমুখ।
‘বি’ ইউটিনেটর আসন বিন্যাস কমিটির সদস্য সচিব ড. কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘আমরা বেশ কয়েকটা মিটিং করেছি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমাও দিয়েছি।’
মানববন্ধনে বক্তারা উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম এবং দুর্নীতির বিভিন্ন চিত্র তুলে ধরে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন যোগ্য উপাচার্যকে নিয়োগ প্রদানের জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
তবে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো: আলী আশরাফ এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘উপাচার্যের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে রাখলে তো কোন কাজই ভালোভাবে চলবে না। আর ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার দ্বায়ভার শিক্ষক সমিতির।’
উল্লেখ্য, উপাচার্যের বিরুদ্ধে নিয়োগে বানিজ্য, আত্মীয়করণ, বিচারহীনতার সাংস্কৃতি চালু, আর্থিক দুর্নীতির অভিযোগে তার বিচার ও অপসারনের দাবিতে গত ১৬ অক্টোবর থেকে তার কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে আন্দোলন করছে শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ।

আর পড়তে পারেন