বৃহস্পতিবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা বিভাগ: অপেক্ষার অবসান কবে ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৪, ২০২১
news-image

বিশেষ প্রতিবেদন:
কুমিল্লা বিভাগ হচ্ছে, হবে এমন আশ্বাস শুনতে শুনতে ক্লান্ত কুমিল্লার জনগণ। কুমিল্লাকে বিভাগ করা নিয়ে এত আলোচনা, এত বাহানা। উপমহাদেশের প্রাচীণ জনপদ কুমিল্লাকে কেন অবহেলা করা হচ্ছে ? কুমিল্লার এত মন্ত্রী – সাংসদ তারাই বা কেন এক সাথে এ দাবিতে সোচ্ছার হচ্ছে না ? একজন দুইজন দাবি তুললে অন্যরা কেন সেই দাবির সাথে এক হতে পারছে না ? কেন তারা কুমিল্লা বিভাগের দাবির প্রশ্নে নিস্ক্রিয় থাকছে ? আবার বিভাগের নাম পাল্টে ময়নামতি নামে করার পক্ষে আছেন দুই একজন জনপ্রতিনিধি । কেন একটি উপজেলার একটি ইউনিয়নের নামে হবে কুমিল্লার বিভাগ ? এমন হাজারো প্রশ্নের অন্তরালে চাপা পড়ে আছে কুমিল্লার বিভাগ বাস্তবায়ন।

কুমিল্লা অনেক আগেই যৌক্তিকভাবে বিভাগ হওয়ার অন্যতম দাবিদার ছিল। কুমিল্লার যে ঐতিহ্য তাতে রংপুর, সিলেট, ময়মনসিংহের আগেই কুমিল্লা বিভাগ হওয়ার দাবিদার। সরকার যেভাবে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ করছে, তাতে পূর্বাঞ্চলে একটি নতুন বিভাগ করা যেতেই পারে। আর তার জন্য রাজধানী ঢাকা আর বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের ঠিক মাঝখানে শিক্ষা-সংস্কৃতি-যোগাযোগের কেন্দ্রে থাকা প্রাচীন জনপদ কুমিল্লার চেয়ে ভালো কোনো বিকল্প নেই। কিন্তু তারপরেও নানা ইস্যু, না বাহানার ছলে কুমিল্লা এখনো বিভাগ বঞ্চিত।
এক সময় অবিভক্ত ভারতের শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি-অর্থনীতির প্রাণকেন্দ্র ছিল কুমিল্লা। গোমতী-মেঘনা-তিতাস-ডাকাতিয়া বিধৌত কুমিল্লা একসময় অবিভক্ত ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানীও ছিল। বাংলাদেশ শুধু নয়, এই অঞ্চলের সবচেয়ে প্রাচীন জনপদের একটি কুমিল্লা। এই জনপদের স্তরে স্তরে লুকিয়ে আছে হাজার বছরের ঐতিহ্য। কুমিল্লার আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে নজরুলের অনেক স্মৃতি। এই শহরে নজরুল ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন করেছেন, এই শহরে নজরুল হাঁটতেন, এখানে বসে নজরুল কবিতা লিখতেন, এখানে আড্ডা মারতেন, এই কুমিল্লার বাতাসে ভেসে আসে উপমহাদেশের সংগীত সাধক শচীন দেব বর্মণের কণ্ঠ । এখানে এসেছেন অহিংসার বাণী নিয়ে ভারতবর্ষের মহান নেতা মহাত্মা গান্ধী। বিশ^কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পদধূলিতে ধন্য হয়েছে এই কুমিল্লা। বুদ্ধদেব বসুর জন্ম কুমিল্লায়। ওস্তাদ আয়েত আলী খাঁ’দের সেতার ঝঙ্কার তুলেছে কুমিল্লার বাতাসে। পাকিস্তান গণপরিষদে প্রথম বাংলা ভাষার প্রস্তাবক ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত কুমিল্লার সন্তান। বাংলাকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা করার অন্যতম সহযোদ্ধা রফিকুল ইসলামও কুমিল্লার। এখানে রয়েছে শতবর্ষের ঐতিহ্যে লালিত দেশের একমাত্র সার্ভে প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সার্ভে ইনস্টিটিউট। কুমিল্লায় রয়েছে অষ্টম শতকে নির্মিত কোটবাড়ীর শালবন বৌদ্ধবিহারসহ প্রায় অর্ধশতাধিক প্রত্নসম্পদ। রয়েছে ময়নামতি জাদুঘর। আরো রয়েছে লালমাই পাহাড়,শাহ সুজা মসজিদ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ওয়ার সিমেট্রি, নানা ঐতিহাসিক নিদর্শন রয়েছে যা আকর্ষণ করে ইতিহাসবিদ ও পর্যটকদের। এখানকার কোটবাড়িতে রয়েছে ড. আখতার হামিদ খানের আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পল্লি উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড), যেখানের সমবায় ধারণা আলোচিত বিশ^জুড়ে। কুমিল্লার খাদি শিল্প, তাঁত শিল্প, কুটির শিল্প, মৃৎ ও কারু শিল্প, রসমালাই, মিষ্টি, ময়নামতির শীতল পাটি সুনাম দেশজুড়ে। রসমালাই আর খাদির সুনাম তো বিশ্বজুড়ে । ভারতীয় সীমান্তবর্তী কুমিল্লার রাজেশপুরে রয়েছে ইকোপার্ক। কুমিল্লা ইপিজেড, কুমিল্লার বিবিরবাজার স্থলবন্দর, কৃষিক্ষেত্রে অভূতপূর্ব উন্নয়ন, দিদার সমবায় সমিতি, দাউদকান্দির প্লাবনভূমিতে মৎস্য চাষ এখানকার অর্থনৈতিক উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখে আসছে। সব মিলিয়ে দেশের অন্যান্য জেলার চেয়ে কুমিল্লা অনেক বেশি সমৃদ্ধ। এই কুমিল্লাকে বলা হতো ব্যাংক আর ট্যাংকের শহর। যদিও অনেক দীঘি-পুকুর ভরাট করে ফেলেছে ভূমিদস্যুরা। তবু এখনও ঐতিহ্যে ভরপুর ধর্মসাগর, রাণীর দীঘি, নানুয়ার দীঘির মত অনেক জলাশয় টিকে আছে। একসময় অবিভক্ত ভারতের ব্যাংকিং আর সমবায়ের প্রাণকেন্দ্র ছিল কুমিল্লা।

কুমিল্লায় সরকারের প্রায় সব ধরনের প্রতিষ্ঠান রয়েছে। একটি পরিপূর্ণ আবাসিক জেলা হিসেবে কুমিল্লার সুনাম রয়েছে। ভৌগোলিক ও উন্নত যোগাযোগব্যবস্থার কারণে কুমিল্লা খুবই সমৃদ্ধ জনপদ। এ ছয় জেলার মানুষের সঙ্গে সড়ক, রেল ও নদীপথে যোগাযোগ অত্যন্ত মসৃণ। দাপ্তরিক বেশির ভাগ কাজেই ছয় জেলার মানুষ কুমিল্লায় জড়ো হন। এখানে দিনে এসে দিনে কাজ করে বাড়ি ফিরে যাওয়া সম্ভব। ছয় জেলার মানুষের আঞ্চলিক ভাষাও কাছাকাছি। কুমিল্লা সবকিছুতেই অগ্রসরমাণ। কুমিল্লায় সিটি করপোরেশন ও শিক্ষা বোর্ডসহ সরকারের অনেকগুলো দপ্তরের বিভাগীয় কার্যালয় এখানে বিদ্যমান রয়েছে। কুমিল্লায় সরকার আইটি ভিলেজ করার উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু নানা কারণে কুমিল্লা অবহেলার পাত্রেই রূপ নিয়েছে।

প্রাচীনকালে সমতট জনপদের অন্তর্গত ছিল কুমিল্লা এবং পরবর্তীতে এটি ত্রিপুরা রাজ্যের অংশ হয়েছিল। কুমিল্লা নামকরণের অনেকগুলো প্রচলিত মতের মধ্যে মোটামুটি গ্রহণযোগ্য তথ্য পাওয়া যায় চৈনিক পরিব্রাজক ওয়াং চোয়াঙ কর্তৃক সমতট রাজ্য পরিভ্রমণের বৃত্তান্ত থেকে। তার বর্ণনায় কিয়া-মল-ঙ্কিয়া নামের যে স্থানের উল্লেখ পাওয়া যায় তা থেকেই কমলাঙ্ক বা কুমিল্লার নামকরণ হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন। সেই ঐতিহাসিক কুমিল্লা নাম বাদ দিয়ে কুমিল্লা বিভাগের নামকরণের জন্য বেছে নেয়া হয়েছিল ময়নামতি নামটি। তখন ক্ষোভে ফেটে পড়ে কুমিল্লাবাসি। এটি নিয়ে কুমিল্লা ও সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা কুমিল্লার সন্তানরা তীব্র প্রতিবাদ করে। এক সময় আবার থমকে যায় কুমিল্লার বিভাগ বাস্তবায়নের বিষয়টি।

কুমিল্লা বিভাগ করার দাবিতে আন্দোলন শুরু হয়েছিল সেই অনেক বছর আগে। ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গকে কেন্দ্র করে কুমিল্লা টাউন হল মাঠে জনসভা হয়। ১৯৬০ সালে প্রশাসন বিকেন্দ্রীকরণের ফলে কুমিল্লা পৃথক জেলার মর্যাদা পায়। গোমতী নদীর তীরে এ শহরের অবস্থান। একে বলা হয় পথিকৃৎ কুমিল্লা। ১৯৮৬ সালে কুমিল্লা বিভাগ বাস্তবায়ন আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তৎকালীন কুমিল্লা পৌরসভার চেয়ারম্যান ও বর্তমানে কুমিল্লা সদর আসনের সাংসদ আ ক ম বাহাউদ্দিন। ১৯৮৯ সালে বৃহত্তর কুমিল্লার কুমিল্লা, চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং বৃহত্তর নোয়াখালীর নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষèীপুরসহ ছয়টি জেলা নিয়ে কুমিল্লা বিভাগ প্রতিষ্ঠার দাবি শুরু হয়। কুমিল্লা গণফোরাম নামের একটি সামাজিক সংগঠনের ব্যানারে ওই দাবি নিয়ে আন্দোলন শুরু হয়। পরে সংগঠনের নাম হয় কুমিল্লা গণদাবি পরিষদ।

অনেক দাবির পর ২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারি সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রীসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রাম বিভাগকে ভেঙে কুমিল্লা, চাঁদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষèীপুর জেলা নিয়ে কুমিল্লা বিভাগ করার ব্যাপারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে নির্দেশনা দেন। এরকম নির্দেশনা শুনে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বৃহত্তর কুমিল্লাবাসী কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। আবার ওই বছরের ৪ মার্চ মহান জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুমিল্লাকে বিভাগ করার ঘোষণা দেন। কুমিল্লা নামে বিভাগ নিয়ে যখন প্রক্রিয়া শেষের দিকে এগুচ্ছিল তখন একনেকের সভায় কুমিল্লা নামের পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত আসলে বৃহত্তর কুমিল্লাবাসী রাজপথে আন্দোলনে নামে। এমনিভাবে বিভাগ বাস্তবায়নের বিষয়টি বিলম্বিত হতে থাকে।

এছাড়াও বৃহত্তর কুমিল্লার সাথে বৃহত্তর নোয়াখালী জেলার নোয়াখালী, ফেনী, লক্সীপুর থাকা না থাকা নিয়ে টানাপোড়েন দেখা দেয়। শেষ পর্যন্ত বৃহত্তর নোয়াখালী বৃহত্তর কুমিল্লার সাথে থাকছেনা এমন আভাসই দিলেন আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক। আইনমন্ত্রী কুমিল্লা বিভাগ প্রসঙ্গে জানান, কুমিল্লা নামেই বিভাগ হচ্ছে। যাদের সঙ্গে নিতে চেয়েছিলাম তারা আসবে না। তবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং চাঁদপুর থাকছে কুমিল্লার সঙ্গে। কুমিল্লা বিভাগ হওয়ার সিদ্ধান্ত এবং সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়ে গেছে। তবে জানা যায়, কুমিল্লা জেলাকে ভেঙ্গে আরেকটি জেলা হতে পারে। সেটি হতে পারে লাকসাম বা দাউদকান্দি জেলা। কারণ বিভাগ করতে হলে অন্তত ৪টি জেলা লাগবে। সবই এখন পর্যন্ত ধোয়াশা। তবে কবে হবে এটি বাস্তবায়িত তা কেউই বলতে পারছে না।

দেখা যাক উপমহাদেশের প্রাচীন জনপদ ও ঐতিহাসিকভাবে সমৃদ্ধ, অথচ নানা কারণে অবহেলিত এই কুমিল্লা কবে বিভাগে বাস্তবায়িত হয় । তবে কুমিল্লার জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে ঐক্য না হলে বিভাগের স্বপ্ন যে স্বপ্নই থেকে যাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

আর পড়তে পারেন