রবিবার, ১৬ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা পুলিশের মাস্ক কর্মসূচীর সুফলতা: নগরীতে মাস্ক পরিধানের হার ৯০ শতাংশের উপরে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৩, ২০২১
news-image

স্টাফ রিপোর্টার:

মহামারি করোনার দ্বিতীয় স্রোতে বাংলাদেশের  আক্রান্তের হার ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। দেশের প্রাচীণ জেলা কুমিল্লায় এ ভাইরাস দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে। এ ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে কুমিল্লাজুড়ে জেলা পুলিশ নানা কর্মসূচী পালন করছে। ‘‘ মাস্ক পরিধান করার অভ্যেস গড়ি, কোভিডমুক্ত বাংলাদেশ গড়ি ’’ এ শ্লোগানকে সামনে রেখে জেলা পুলিশ মাস্ক পদযাত্রা ও মাস্ক শুমারি কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছেন।

জেলা পুলিশের এ পদক্ষেপ বেশ সফলতার মুখ দেখেছে। কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ব্যস্ততম এলাকায় মাস্ক পরিধানের হার এখন ৯০ শতাংশের উপরে। ক্ষেত্রবিশেষে এ হার ৯৮% পর্যন্ত দেখা যায়। বেশ কিছুদিন পূর্বেও শহরে চলাচলরত পথচারিদেরকে তেমন মাস্ক পরিধান করতে দেখা যেত না। কিন্তু গত কয়েকদিনে তা পরিবর্তন হয়েছে। প্রায় মানুষরাই এখন মাস্ক পরিধান করছেন।

করোনা প্রতিরোধে মাস্ককে অন্যতম প্রধান হাতিয়ার বিবেচনা করা হয়। বাংলাদেশ পুলিশ গত ২১ শে মার্চ হতে জনসাধারণকে মাস্ক পরিধানে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করে। তারই অংশ হিসেবে কুমিল্লা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদের  নেতৃত্বে জেলা পুলিশ নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করে। জেলার প্রতিটি থানায় মাস্ক মঞ্চ স্থাপন করে উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি পরিচালনা করা হয়। নগরীর ব্যস্ততম সড়ক কান্দিরপাড়ের টাউনহলের সামনে মাস্ক মঞ্চ  স্থাপন করে জনসাধারণের চলাচল মনিটরিং করা শুরু হয়। জনসাধারণ মাস্ক পড়ছেন কি না , স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করছেন কি না ইত্যাদি নজরদারি করা হচ্ছে।

জেলা পুলিশের উদ্যোগে বিভিন্ন সড়কে জনসাধারণের মাঝে স্বল্প মূল্যে লক্ষাধিক মাস্ক বিতরণ করা হয়। বিভিন্নভাবে প্রচার প্রচারণা চালানো হয়। নো মাস্ক নো এন্ট্রি কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এছাড়াও জেলা প্রশাসন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে।এ ধরনের বিভিন্ন কার্যক্রমের ফলে মাস্ক পরিধানের হার উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পায়। প্রকৃত চিত্র পাওয়ার লক্ষ্যে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ১১ এপ্রিল  মাস্ক পদযাত্রা এবং মাস্ক শুমারি পরিচালনা করা হয়।

নগরীর কান্দিরপার মোড় হতে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি রাস্তায় প্রায় ৫ শতাধিক জনসাধারণের উপর শুমারি করে দেখা যায় ৯৫ শতাংশের উপরে মাস্ক পরিধান করেছে।ক্ষেত্র বিশেষে এ হার ৯৮% পর্যন্ত দেখা যায়।

পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্র জানায়, আমাদের এ সফলতা  ধরে রাখতে হবে। তবে এখনো গ্রামাঞ্চলে এ হার সন্তোষজনক নয়। এক্ষেত্রে সম্মানিত কুমিল্লাবাসীর সহযোগিতা একান্তভাবে কাম্য।

আর পড়তে পারেন