সোমবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা নগরীতে ফের সক্রিয় কিশোর অপরাধীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
আগস্ট ৯, ২০১৮
news-image

সেলিম সজীব ঃ
কুমিল্লা নগরীতে কিশোর অপরাধীরা ফের সক্রিয় ভূমিকায় নেমেছে। আর এ সকল অপরাধীদের সক্রিয়তা মানেই ছিনতাই, মাদক সংশ্লিষ্টতা ও হত্যাকান্ডের মতো ভয়াবহ অপরাধ সংঘটিত হওয়া। একটি হত্যাকান্ডের পর পরই পুলিশের জোর তৎপরতা দেখা গেলেও নিয়মিত তদারকি না থাকার অভাবে আবার কিশোর অপরাধীরা আবারো খুনের মতো ভয়ানক অপরাধে লিপ্ত হচ্ছে। আর এজন্য আতংক-উৎকন্ঠায় রয়েছেন সাধারণ মানুষ।

কুমিল্লা নগরীতে চলতি বছরেই কিশোর অপরাধীদের হাতে স্কুল ও কলেজের কয়েকজন ছাত্র খুন হয়েছে। এ সকল ঘটনায় হত্যা মামলা দায়েরও হয়েছে। এ সকল হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত কিশোর ও যুবক অপরাধীরাই অধিকাংশ আইনের আওতায় আসলেও পাড়া-মহল্লায় নতুন নতুন কিশোর গ্যাং তৈরি হচ্ছে। দিনের বেলায় বিভিন্ন স্কুল-কলেজের সামনে আড্ডা দিচ্ছে বখাটেরা। সন্ধ্যার পর পাড়া-মহল্লার মোড়ে মোড়ে দেখা যায় এদের অবস্থান।

বিভিন্ন সূত্রমতে, এদের মূলে রয়েছে রাজনৈতিক আশ্রয়। রাজনৈতিক বিভিন্ন দলের মিছিল-সভায় তাদের দেখা যায়। আবার তাদের অনেকেই বড় বড় রাজনৈতিক দলের অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতৃত্বে আছে। তাই তারা ধরাছোয়ার বাইরে থাকে।

কুমিল্লা নগরীর চকবাজার, কাশারীপট্টি চৌমুহনী, চামাইরাপুকুর পাড়, চকবাজার সিএনজি স্ট্যান্ড, চকবজার পৌর মার্কেটের সামনে, বজ্রপুর, কাটাবিল, হযরত পাড়া, বালুতুপা, দক্ষিণ চর্থা থিরাপুকুর পাড়, ধর্মপুর, রেইসকোর্স, পার্ক রোড এসব কিশোর অপরাধিদের মূল মিলন মেলা। এসব এলাকায় কিশোর অপরাধিরা মোবাইল ছিনতাই, পকেটমার, অর্থলুট, মাদক ব্যবসা বিশেষ করে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত। এসব কাজ করতে গিয়ে তারা অস্ত্র ব্যবহার করতেও কুন্ঠাবোধ করে না। যে কোন একটি বড় ধরনের অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পরই পুলিশের তৎপরতা জোরদার হয়। পরবর্তীতে ফের তেমন তৎপরতা দেখা যায় না। এছাড়া এ সকল কিশোর অপরাধীদের স্বজনদের গাফিলাতির কারনে দিন দিন সংখ্যাটা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েই চলেছে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করেই এ হত্যাকান্ড ঘটছে বলে ইতোমধ্যে পুলিশের তদন্তে পাওয়া গেছে।

গত ১০ জুলাই কুমিল্লা নগরীর অজিত গুহ মহাবিদ্যালয়ের উচ্চ মাধ্যমিক বিজ্ঞান বিভাগের ২য় বর্ষের ছাত্র শিহাব উদ্দিন অন্তুকে ছুরিকাঘাত করে খুন করা হয়। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ হত্যাকান্ড ঘটেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। তবে স্থানীয় এবং অন্তুর পরিবারের সন্দেহের তীর ফারিয়া নামের এক কলেজছাত্রী ও তার প্রেমিকের দিকে।  এরপরই পুলিশের সোরসকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করা হল।

এ বিষয়ে পুলিশ সূত্র বলছে, কিশোর বয়সী অপরাধীদের প্রতি আমাদের সব সময় নজরদারি রয়েছে। বিশেষ করে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের সামনে নিয়মিত পুলিশের টহল ও সাদা পোশাকে পুলিশের অবস্থান থাকে। এরপরও এ ধরনের হত্যাকান্ডের ঘটনা অনাকাঙ্খিতভাবে ঘটে যাচ্ছে। এ বিষয়ে অভিযান পরিচালনা হচ্ছে।

আর পড়তে পারেন