মঙ্গলবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা জিলা স্কুলের নামের আগে-পরে বার্জার পেইন্টস ! চারদিকে সমালোচনার ঝড়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৩০, ২০১৭
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতুঃ
উপমহাদেশের প্রাচীণ শহর কুমিল্লা জেলার শিক্ষাক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে ১৮৩৭ সালে প্রতিষ্ঠিত কুমিল্লা জিলা স্কুল। বাংলাদেশের অনেক রথী-মহারথী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করেছেন। এক নামেই যে প্রতিষ্ঠান সারা বাংলাদেশে আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে, সাইনবোর্ডে সেই নামের আগে “বার্জার রংয়ের কোম্পানির নাম ” জুড়ে দিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এ নিয়ে চলছে সমালোচনার ঝড়। সাবেক শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সুশীল সমাজও সমালোচনা করছেন কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রধাণ শিক্ষকের এমন কান্ডজ্ঞানহীন কর্মকান্ডের। সবার মুখে একই কথা-তিনি কিভাবে জিলা স্কুলকে বাণিজ্যিক কোম্পানির সাইনবোর্ড হিসেবে ব্যবহার করলেন।


এখন কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রশাসনিক ভবন, লাইব্রেরী, একাডেমিক ভবনের সাইনবোর্ডে কুমিল্লা জিলা স্কুলের নামের আগে ও পরে শোভা পাচ্ছে বার্জার পেইন্টসের নাম। একটি সাইনবোর্ড তৈরিতে যেখানে এক/দেড় হাজার টাকার বেশি প্রয়োজন নেই। সেখানে একটি রংয়ের কোম্পানির সাথে জিলা স্কুলের মত খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠানের নাম জুড়ে দেয়াকে ভালো চোখে দেখেনি কেউ।


বিভিন্ন সূত্রমতে, এসব বাণিজ্যিক কোম্পানিগুলো বিশাল অংকের টাকার বিনিময়ে এসব বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। আর জিলা স্কুলের মত প্রতিষ্ঠানের খ্যাতিকে ব্যবহার করতে হলে তো বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় হওয়ারই কথা। বিপুল পরিমাণ অর্থের বিনিময়েই এই বিজ্ঞাপন ব্যবহার করা হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়।


ইভান আশফাক বার্জার পেইন্টস সম্বলিত কুমিল্লা জিলা স্কুলের সাইনবোর্ডের ছবি আপলোড করে তার ফেসবুক পেজে লিখেছেন- “আজ থেকে আমরা বার্জার ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র…. এই লজ্জা কই রাখি!!!! ইংরেজরা বানিজ্য করতে এসে এক সময় যে রকম সা¤্রাজ্যবাদ সৃষ্টি করে আমাদের পরাধীন করেছিল, কিছু কিছু মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানীর এটি একটি আধুনিক সাম্রাজ্যবাদ ছাড়া আর কিছু নয়। অবিলম্বে কুমিল্লা ডিসি ও শিক্ষা অফিস বরাবর স্বারকলিপি প্রদানসহ প্রয়োজনে মানববন্ধন করে এর প্রতিবাদ করা উচিত। এই বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে কার পকেটে কত টাকা পাচার হয়েছে সেটিও তদন্তের দাবি রাখে। আমাদের সাংবাদিক বন্ধুরা, দয়া করে কলম ধরুন। যে কলম দিয়ে আপনারা লিখছেন তার কিছুটা দাঁয় পরিশোধের এটি একটি সুর্বণ সময়”।
হাসান মোরশেদ হিমেল লিখেছেন, “দেখছত্তি কিতা করছে এইডা!জিলা স্কুল এর নামের আগে পরে স্পন্সর এর নাম!!!!এতো টেকার অভাব হইলে আমরারে কইতো,প্রয়োজনে প্রতি বছর নতুন সাইনবোর্ড বানাই দিতাম”।
ফরহাদ বিন ফরিদ লিখেছেন, “এইডা কোন কথা হইল! বাংলাদেশে মনে হয় এই কাজ ১ম হইল। খুবই খারাপ লাগছে”।
ওপেল আহমেদ লিখেছে, বেনিয়াকরণের শিকার!! আসলেই বিশ্রী লাগছে।


জিলা স্কুলের ২০০০ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের মধ্যেও এ বিষয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
ডাঃ রাব্বি হোসেন লিখেছেন, “তীব্র প্রতিবাদ জানাই। প্রধান শিক্ষকের অব্যাহতি দাবি করছি।” মাকসুদ উল্লাহ লিখেছেন, “এর প্রতিবাদ করা দরকার। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলা দরকার”। জাবেদ ইকবাল লিখেছেন, “এটা প্রধান শিক্ষকের বাজে কাজ। কেন তিনি বার্জার কোম্পানির কাছ থেকে টাকা নিলেন ? একটা সাইনবোর্ড লাগানোর জন্য স্কুল ফান্ডের কোন সমস্যা হলে অন্তত পুরাতন ছাত্রদের কাছ থেকে সাহায্য নিতে পারতো”।
আনিছুর রহমান লিখেছেন, “স্কুলের কোনো পরিচালক আছে বলে তো মনে হয় না, একটা রং কোম্পানী এত বড় রংবাজিটা করল কেমনে ”?
লিওমিনিয়াস নাহা লিখেছেন,“ দ্রুত একটা প্রতিবেদন করা দরকার, যাতে বাংলাদেশের সবাই প্রতিবাদ করতে পারে”।


সাইদুল হক লিখেছেন, “(চেনা ব্রাহ্মণের পৈতা লাগে না )-আমাদের জিলা স্কুলও সেই রকম। আর তারা কিনা এর সাইবোর্ড ব্যবহার করছে। স্কুল কি কোম্পানির মার্কেটিং করছে নাকি ? জিলা স্কুলের পাশাপাশি কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এ রকম সাইনবোর্ড চোখে পড়েছে। অথচ,কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবকরা এবং স্কুল হতে পাশকৃত সিনিয়র ও জুনিয়র ভাইয়েরা এর কোন প্রতিবাদ করছে না। তাহলে শিক্ষা কি এখন বানিজ্য হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। জিলা স্কুল-২০০০ ব্যাচের সকলের পক্ষ থেকে ধিক্কার জানাই এ রকম বানিজ্যিক রূপী শিক্ষা ব্যবস্থাকে। সকলের কাছে আমার প্রশ্ন এগুলো কি আসলে শিক্ষা ”?
ইসতিয়াক মাহমুদ লিখেছেন, “শুনেছিলাম, আপনার মন চাইলো আর আপনি ছেলেপেলেদেরকে (যারা এই স্কুল এর ই প্রাক্তন ছাত্র) বিকেলে মাঠে খেলতে দিবেন না, তারা যদি খেলতে যায় তাহলে আপনি আবার তাদেরকে গালি দিবেন। শুনেছি আপনার মন চাইলো আপনি বাস্কেটবল এর জন্য মাঠ রেডি করলেন কিন্তু পোলাপান খেলতে গেলে দিবেন না, কারন মাঠ নষ্ট হয়ে যাবে (মাঠ নষ্ট হলে টাকা কি আপনার পকেট থেকে দিতে হবে?) আজ দেখলাম, আপনি বিকট দর্শন একটা সাইনবোর্ড লাগালেন যেখানে স্কুল এর নাম এর চাইতে পন্য এর নামটাই আগে চোখে পরে। আমাদের কিউরিয়াস মন জানতে চায় স্কুল এর ফান্ড এর কি অভাব পরসে যে স্পন্সর নিয়ে নিয়ে সাইনবোর্ড লাগাইতে হবে, নাকি………….? আর যেই কথাগুলা শুনেছি এইগুলা যদি সত্যি হয় তাহলে এলামনাই কমিটি তে যারা আছেন তারা কি এইগুলা দেখেননা? নাকি তারা ও অসহায়” ?


বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসক আমিনুল ইসলাম তার ফেসবুকে লিখেছেন, বানিজ্য কোথায় গিয়ে ঠেকেছে! কুমিল্লা জিলা স্কুলের মত এমন একটা ঐতিহ্যবাহী স্কুলের কি অবস্থা! এটা যেন কোন স্বনামধন্য স্কুলের নয়, এখনকার শিক্ষকসহ অন্যান্যরা অর্থের বিনিময়ে কর্পোরেটদের কাছে বিক্রী হতে কত নগ্ন ও জঘন্যভাবে ইচ্ছুক তার একটা সাইনবোর্ড। আমি নিশ্চিত আমাদের সময়ের শিক্ষকরা কোন ভাবেই এমনটি হতে দিতেন না।
এ বিষয়ে জানতে কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রধাণ শিক্ষক রাশেদা আক্তারের মুঠোফোনে কল দিয়ে মুঠোফোন সংযোগে পাওয়া যায়নি।

আর পড়তে পারেন