সোমবার, ২৯শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা এয়ারপোর্ট এর ইতিহাস

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২২, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ

কুমিল্লা বিমানবন্দর (Comilla Airport) এর সম্পর্কে প্রাপ্ত তথ্যমতে, কুমিল্লা এয়ারপোর্ট ১৯৪০ সালে স্থাপিত হয়। ২য় বিশ্ব যুদ্ধ চলাকালীন অনেকটা তড়িঘড়ি করেই এই এয়ারপোর্ট স্থাপন করে আমেরিকা। এই এয়ারপোর্ট এ আমেরিকার কিছু যুদ্ধ বিমান উঠানামা করত জাপানি বিমানকে পাহারা দেয়ার জন্য।

অখ্যাত ইতিহাস প্রনেতা এমএমআর এর উদ্বৃতিতে জানা গেছে, “১৯৫০ সাল থেকে শুরু করে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত এই বিমান বন্দর হতে তেজগাঁও পুরান বিমান বন্দরে অভ্যন্তরীন বিমান চলাচল করত। তারপর ঢাকার জিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর স্থাপিত হওয়ার পর থেকে কুমিল্লা এয়ারপোর্ট এর কার্যক্রমও শেষ হয়ে যায়। অর্থাৎ অজ্ঞাত কারনে বন্ধ হয়ে যায় প্রাচীন এই বিমান বন্দর। তবে, এমএমআর এর এই তথ্যগুলোর সাথে কিছুটা দ্বিমত পোষন করেছেন তরুন ইতিহাস বিশ্লেষক ম্যাকলুক। লন্ডনের এই নাগরিকের মতে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন, বৃটিশদের উদ্যোগেই এই এয়ারপোর্ট স্থাপিত হয়েছিল এবং সেখানে বৃটিশ আর্মির ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছিল।

বাংলাদেশের অতি পরিচিত একটি নাম কুমিল্লা। কুমিল্লার সাথে জড়িয়ে আছে বাংলার ইতিহাস। দিনে দিনে উন্নত হচ্ছে কুমিল্লা। বাংলাদেশে সর্বমোট ১৫টি বিমান বন্দর আছে। অন্য সব বিমান বন্দর গুলোর কথা সবার জানা থাকলেও অনেকেই হয়তো জানেন না কুমিল্লাতে একটি বিমান বন্দর আছে। আমিও জানতাম না।

আমার কুমিল্লার এক বন্ধুর কাছে জানতে চেয়েছিলাম কুমিল্লাতে কোনো বিমান বন্দর আছে কিনা। সে অবাক হয়ে বললো কুমিল্লাতে বিমান বন্দর আছে আমি জানিনা। জানার কৌতুহল থেকে ইন্টারনেটে খোজ করলাম। তারপর নিশ্চিত হলাম যে হ্যা কুমিল্লাতে একটি বিমান বন্দর আছে। কুমিল্লা সরকারী হাসপাতালের পাশে ইপিজেড এলাকায় কুমিল্লা বিমান বন্দরের অবস্থান।

বর্তমানে কুমিল্লা বিমান বন্দরটি পতিত্যাক্ত অবস্থায় আছে। ছোট এই বিমান বন্দরের ৫০০০ ফিট রানয়েতে মাঝে মাঝে সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান চলাচল করে। সম্প্রতি ইউনাইটেড এয়ার লাইন্স ঘোষণা দিয়েছে কুমিল্লা বিমান বন্দরে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। খবরটি অবশ্যই কুমিল্লা বাসীদের জন্য খুব আনন্দের। আগামী সেপ্টেম্বর মাসে আনা হচ্ছে ১৮ আসনের তিনটি এবং ১০ আসনের একটি উড়োজাহাজ। এই উড়োজাহাজ গুলো দিয়ে কুমিল্লায় ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে।
কুমিল্লা বিমান বন্দরটি অনেক পুরানো। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এখানে মিত্র বাহিনীর বিমান ও সামরিক ঘাটি ছিল। এখান থেকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের অনেক অপারেশন চালানো হয়েছে বিশেষ করে বার্মা ও চীনে।

অনেক যোদ্ধা এখানে নিহত হয়েছেন, আবার অনেকে সুস্থ হয়েছেন এখানকার সামরিক হাসপাতালে থেকে।যারা নিহত হয়েছেন তাদের অনেকেই শায়িত হয়েছেন কুমিল্লার ওয়ার সিমেত্তিরিতে।

আর পড়তে পারেন