রবিবার, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

কুমিল্লা উত্তর জেলা আ’লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে নেই অনেক ত্যাগী নেতাকর্মীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ৫, ২০২০
news-image

ডেস্ক রিপোর্টঃ

গত বছরের ৯ ডিসেম্বর কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই সময় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়। সম্মেলনের দীর্ঘ এক বছর অপেক্ষার পর গত মঙ্গলবার অনুমোদন হয় ৭৫ সদস্যবিশিষ্ট কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পূর্ণাঙ্গ কমিটি।

দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের অভিযোগ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মু. রুহুল আমিন ও সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টার প্রভাব খাটিয়ে বেশিরভাগ গুরুত্বপূর্ণ পদ তাদের উপজেলার নেতাকর্মীদের দিয়েছেন। এ ছাড়া কমিটিতে ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করার অভিযোগ রয়েছে।

গত মঙ্গলবার ঘোষিত ওই কমিটির পদ সংখ্যা ৩৯টি আর সদস্য পদ ৩৬টি। অনুমোদিত ওই কমিটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, মোট ৩৯টি গুরুত্বপূর্ণ পদের মধ্যে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ পেয়েছেন ২৩ নেতা। এর মধ্যে সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টারের নিজ উপজেলা দেবিদ্বার থেকে পদ পেয়েছেন সর্বোচ্চ ১৪ জন। ওই উপজেলায় সদস্য পদ পেয়েছেন আরও চারজন। আর সভাপতি মু. রুহুল আমিনের নিজ উপজেলা মুরাদনগরে পদ পেয়েছেন নয়জন। এ ছাড়া ওই উপজেলায় সদস্য পদ পেয়েছেন আরও নয়জন। এদিকে কুমিল্লা উত্তর জেলার রাজনৈতিক সদর কেন্দ্র চান্দিনা উপজেলায় হলেও এই উপজেলায় ৩৯টি গুরুত্বপূর্ণ পদের মধ্যে পদ পেয়েছেন মাত্র তিনজন। এ ছাড়া ৩৯টি পদের একটিও জোটেনি জেলার হোমনা উপজেলায়। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দুই উপজেলার বেশিরভাগ নেতা পদ পাওয়ায় বিষয়টিকে নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছেন অন্যান্য উপজেলার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

গত জেলা কমিটির দপ্তর সম্পাদক আবুল হাসেম সরকার বলেন, ১৮ বছর দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলাম, চার বছর ছিলাম ভারপ্রাপ্ত। অথচ এই পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে আমার ঠাঁই হয়নি। যারা জেলা কমিটির সভাপতি-সম্পাদক হয়েছেন, তারা থানা কমিটিরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেননি। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে টাকার বিনিময়ে অযোগ্য লোকদের রাখা হয়েছে। অনেক ছাত্রলীগ-যুবলীগের ছেলে পদ পেলেও বাদ পড়েছেন দলের সিনিয়র ত্যাগী নেতারা।

হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি ও গত জেলা কমিটির কোষাধ্যক্ষ শাহ

আলম খন্দকার বলেন, অসংখ্য ত্যাগী নেতাকর্মী কমিটিতে নেই। আমাদের হোমনা জেলার গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা হলেও এখানে এমপিসহ মাত্র পাঁচজনকে সদস্য রাখা হয়েছে।

বর্তমান কমিটির সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুনতাকিম আশরাফ টিটু বলেন, পুরো কমিটিতে বৈষম্য করা হয়েছে। নতুন কমিটিতে এমন অনেকে আছেন যারা ইউনিয়ন বা থানা কমিটিতেও নেই। গত কমিটিতে যারা জেলা কমিটিতে নেতৃত্ব দিয়েছেন তাদের অনেকেই এবারের কমিটিতে নেই।

এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মু. রুহুল আমিনের সঙ্গে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে অভিযোগ প্রসঙ্গে সাধারণ সম্পাদক রৌশন আলী মাস্টার বলেন, যারা কমিটিতে এসেছে তাদের সবার বিষয়ে গোয়েন্দা সংস্থা খোঁজখবর নিয়েছে, তদন্ত করেছে। এখানে বিতর্কিত কেউ নেই। আর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক যেই এলাকার, সেই এলাকার বেশি লোক কমিটিতে থাকে- এটাই স্বাভাবিক। কারণ রাজনীতি করতে লোক লাগে। এটা কোন অন্যায় নয়।
সূত্র:সমকাল

আর পড়তে পারেন